বাল্যবিয়ে থেকে আত্মহত্যায় রেহাই নিল পিইসি ফলপ্রার্থী

শরীয়তপুর প্রতিনিধি, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ২৮ নভেম্বর ২০১৬, ১৯:৪৫
প্রতীকী ছবি

জোর করে এগারো বছরের মেয়ে সাবিনাকে বিয়ে দিতে চাচ্ছিলেন অভিভাবক। রবিবার সবে পিইসি পরীক্ষা শেষ করেছে মেয়েটি। ওই দিন তাকে বিয়ে দিতে পীড়াপীড়ি করেন অভিভাবকর। বাল্যবিয়ে থেকে রেহাই পেতে আত্মহত্যার বেছে নেয়  সাবিনা।

শরীয়তপুর পৌরসভার দক্ষিণ মধ্যপাড়া গ্রামে এই মর্মান্তিক ঘটনা ঘটে।

নিহত সাবিনা চরলক্ষ্মী নারায়ণ গ্রামের সুলতান খাঁর মেয়ে। রুদ্রকর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পঞ্চম শ্রেণির  ছাত্রী ছিল।

এই ঘটনায় বিয়ের ঘটক রহিমা বেগম ও নিহতের নানি মাকসুদা বেগমকে আটক করেছে পুলিশ।

পুলিশ জানায়, কিছুদিন আগ থেকেই বিয়ে দেয়ার জন্য সাবিনাকে ঘটক মাকসুদা বেগম বিভিন্ন পাত্র দেখায়। কিন্তু সাবিনা বিয়েতে রাজি ছিল না। রবিবার পিইসি শেষে বাড়ি ফিরে সে। জোর করে সাবিনাকে বিয়ে দেয়ার কথা বলে ঘটক ও নানি। এতে মেয়েটি আত্মহত্যা করেছে বলে ধারণা করছে পুলিশ।

সোমবার দুপুরে লাশ ময়ন্তাতদন্তের জন্য সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে।

এ ব্যাপারে পালং মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (তদন্ত) এমারাৎ বলেন, আমরা এই ঘটনায় বিয়ের ঘটক রহিমা বেগম ও নিহতের নানি মাকসুদা বেগমকে আটক করেছি। ময়ন্তাতদন্ত শেষে বলা যাবে এটকি হত্যা না আত্মহত্যা।

(ঢাকাটাইমস/২৮ নভেম্বর/প্রতিনিধি/এলএ)

সংবাদটি শেয়ার করুন

বাংলাদেশ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন ফিচার বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত