এই সময়ের তিন ইতিবাচক

আরিফুর রহমান
 | প্রকাশিত : ১০ ডিসেম্বর ২০১৬, ১৮:৩২

নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচন শুধু কোনো এক শহরের নয়, জাতীয় রাজনীতিরও অংশ বটে। আওয়ামী লীগ এবং বিএনপি দুই দলের প্রার্থীই মাঠে আছেন। ছুটে বেড়াচ্ছেন ভোটারদের দুয়ার থেকে দু্য়ারে। ফল কী হবে? জানা যাবে, ২২ ডিসেম্বরের ভোটের পর। নির্বাচনী উত্তাপের নতুন মাত্রা যোগ করলেন নারায়ণগঞ্জের সংসদ সদস্য শামীম ওসমান। ৯ ডিসেম্বর শুক্রবার এক সংবাদ সম্মেলনে তার বক্তব্যে আকাশ থেকে পাতালে নেমে এসেছেন অনেকে। সত্যিই শামীম ওসমান তো তিনি? অবাক হওয়ারই কী আছে? সাংবাদিকদের মুখোমুখি মানুষটি যা বলছেন তার সঙ্গে অতীতের ইতিহাস উল্টোই। তিনি বললেন, ‘একই পরিবারে তিন ভাই-বোন থাকলেও ঝগড়া হয়। শেখ হাসিনার পরিবার তো দুই কোটি কর্মীর। সেখানে ঝগড়া তো হবেই।’ বলছিলেন সেলিনা হায়াৎ আইভী প্রসঙ্গে। ‘হ্যাঁ, আইভী এক সময় আমার বিরুদ্ধে কথা বলেছে। কিন্তু আমি বলি নাই? ও যা বলেছে, আমি তো তার চেয়ে বেশি বলেছি। আমরা ভাই-বোন ছিলাম, ভাই-বোন আছি। আইভীর প্রতি আমার কোনো রাগ, দুঃখ কিছু নেই।’ সরকারি দলে এই ঐক্যের প্রয়োজন ছিল। সুস্থ রাজনৈতিক চর্চার মধ্য দিয়ে ঢাকার পরশিনগর নারায়ণগঞ্জ আরও সমৃদ্ধ হবে-এই কামনা আমাদের।

দুই.

নির্বাচন কমিশন পুনর্গঠনের জন্য ১৩ দফা প্রস্তাব দিয়েছেন বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া। প্রস্তাবটি পৌঁছেছে রাষ্ট্রপতির কাছে। বিএনপি চায় সব দলের ঐক্যমতের একটি বাছাই কমিটি করা হবে। সেই কমিটির প্রতিটি পদের বিপরীতে সম্ভাব্য দুজনের নাম প্রস্তাব করবে। রাষ্ট্রপতি সেই তালিকা থেকে পরবর্তী সিইসি এবং কমিশনার দুজনের নাম প্রস্তাব করবে। রাষ্ট্রপতি সেই তালিকা থেকে পরবর্তী সিইসি এবং কমিশনার পদে লোক নিয়োগ করবেন। এটা সংবিধানসম্মত নয়, বলছেন আওয়ামী লীগ নেতারা। এর আগে রাষ্ট্রপতির করা সার্চ কমিটি ইসি পুনর্গঠন করেছে। এবারও তেমনটাই হবে, ইঙ্গিত দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তবে তিনি বলেছেন রাষ্ট্রপতি যে পদক্ষেপ নেবেন তাই হবে।

তিন.

দেশের মাটিতে ক্রিকেটর ক্ষুদ্রতম সংস্করণের সবচেয়ে বড় আসর বিপিএলের পর্দা নামলো। টিকিটের উচ্চমূল্য, দর্শকখরা, জুয়াবাজি, বিশৃ্খলা, কেলেঙ্কারি-এ ধরনের বেশি কিছু ঘটনা অনেক বেশি সামনে এসেছে এবারের আসরে। তবে কিছু নেতিবাচক ঘটনায় বিসিবি দ্রুত ব্যবস্থা নিয়েছে। আবার কিছু ঘটনায় একচোখা নীতি নিয়েছে তারা, এমন অভিযোগ রয়েছে। তবু ভালোয় ভালোয় শেষ হয়েছে চতুর্থ আসর। ম্যাচ পাতানো বা পাতানো বোলিং-ব্যাটিংয়ের সন্দেহ ডালপালা মেলতে পারেনি। কোনো কোনো খেলায় গ্যালারি দর্শকশূন্য থাকলেও দেশজোড়া মানুষ ছোটপর্দায় ঠিকই উপভোগ করেছে প্রতিটি খেলা। দেশি তারকারা বিদেশিদের সমানতালেই ব্যাটে-বলে ঝলক দেখিয়েছে। টাইগার ক্রিকেট দলের জন্যে যা ইতিবাচক ফল বয়ে আনবে। তাই অব্যাহত থাকুক আমাদের বিপিএল-যাত্রা।

লেখক: সম্পাদক, ঢাকাটাইমস এই সময়

সংবাদটি শেয়ার করুন

রাজপাট বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন ফিচার বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত