ইসি নিয়ে আইন: রাষ্ট্রপতির নির্দেশনার অপেক্ষায় সরকার

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
| আপডেট : ০৪ জানুয়ারি ২০১৭, ১৮:৩৫ | প্রকাশিত : ০৪ জানুয়ারি ২০১৭, ১৫:২২

নির্বাচন কমিশন নিয়ে আইন করার জন্য রাষ্ট্রপতির নির্দেশনার অপেক্ষায় আছে সরকার। আইমন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন, ‘সংবিধানে এটা স্পষ্টভাবেই লেখা আছে, এটা রাষ্ট্রপতির এখতিয়ার। রাষ্ট্রপতি এই ব্যপারে সিদ্ধান্ত দেবেন। যদি আইন প্রণয়ন করতে হয় তাহলে রাষ্ট্রপতিই বলবেন। রাষ্ট্রপতির নির্দেশনার জন্য আমরা অপেক্ষা করছি।’

বুধবার রাজধানীর বিচার প্রশাসন ও প্রশিক্ষণ ইনিস্টিটিউটে এক কর্মশালার উদ্বোধন শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন। সংবিধানে এই বিষয়ে আইন করার কথা থাকলেও এখন পর্যন্ত কোনো সরকার এই আইন করেনি। নির্বাচন কমিশন গঠন নিয়ে রাষ্ট্রপতির সংলাপেও এই বিষয়টি উঠে এসেছে। একাধিক দল থেকে এই আইন করার পর নির্বাচন কমিশন গঠনের প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে।

রাষ্ট্রপতি আদেশ দিলে আগামী সংসদ অধিবেশনে এ বিষয়ে কোনো আইন করতে সরকারের প্রস্তুতি আছে কি না জানতে চাইলে আইনমন্ত্রী বলেন, ‘আমাদের একটি লেজিসলেটিভ বিভাগ আছে। রাষ্ট্রপতি কিছু করার জন্য যখন নির্দেশ দেবেন। আমরা নিশ্চয় সেই কাজটা তরিৎ করার ক্ষমতা রাখি।’

আইনমন্ত্রী বলেন, ‘আপনারা একটু অপেক্ষা করেন। এই আলাপ আলোচনার মাধ্যমে রাষ্ট্রপতি কি সুপারিশ করেন। রাষ্ট্রপতি যেই সুপারিশ করেন সেটা আমরা মানতে বাধ্য।’

আইনমন্ত্রী বলেন, ‘রাষ্ট্রপতি একটা আলাপ আলোচনা করছেন। সেই ক্ষেত্রে সরকার থেকে এমন কোনো কথা আমি বলতে চাই না। যেক্ষেত্রে এই আলাপ আলোচনার সাফল্যের বিঘ্নিত হয়। এই সরকার বদ্ধপরিকর একটা সুষ্ঠু এবং নিরেপেক্ষ নির্বাচন করতে। আমরা চেষ্টা করছি এই আলাপ আলোচনার মাধ্যমে এমন একটা বিষয় বেরিয়ে আসুক, যে শেখ হাসিনার সরকারের যে ইচ্ছা গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করা।’

 

‘ট্রাইব্যুনাল নিয়ে যতবার চিঠি দেবে ততবারই পাল্টা চিঠি’

আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল পুরাতন হাইকোর্ট ভবন থেকে সরানোর জন্য সুপ্রিম কোর্ট প্রশাসন যতবার চিঠি দেবে ততবারই তা পুনর্বিবেচনার জন্য পাল্টা চিঠি দেয়ার কথা জানান আইনমন্ত্রী।

আইনমন্ত্রী বলেন, ‘আমাদের মানবতাবিরোধী অপরাধ, যুদ্ধাপরাধের বিচারের অভিজ্ঞতা ছিল না। আমরা এই ট্রাইব্যুনাল ও প্রসিকিউশন টিম গঠন করেছি। পর্যায়ক্রমে তাদের অভিজ্ঞতা বেড়েছে। আজকে এটা সারাবিশ্বে স্বীকৃত। এই ট্রাইব্যুনাল সুষ্ঠু বিচার আমাদের উপহার দিচ্ছে।’

হাইকোর্ট ও আপিল বিভাগে নতুন বিচারপতি নিয়োগের বিষয়ে আইনমন্ত্রী বলেন, রাষ্ট্রপতি বিচারক নিয়োগ দিয়ে থাকে। আমার মনে হয়, হাইকোর্ট ও আপিল বিভাগে বিচারপতির সংঙ্কট দেখা দিলেই তখনই আমরা বিচারপতি নিয়োগের বিষয়ে রাষ্ট্রপতির কাছে অনুরোধ জানাবো। সেই ক্ষেত্রে চলমান প্রক্রিয়া যখনই প্রয়োজনীয়তা দেখা দিবে তখনই বিচারপতি নিয়োগ হবে। এ ক্ষেত্রে নিয়োগটা যাতে বিতর্কের উর্ধ্বে থাকে এবং যোগ্য লোক নিয়োগ দেয়ার চেষ্টা করা।’

অন্য এক প্রশ্নের জবাবে আইনমন্ত্রী বলেন, বিচারপতি নিয়োগ দেয়ার বিষয়ে একটা আইন চলতি বছরের মধ্যেই করে ফেলবে সরকার।

(ঢাকাটাইমস/০৪জানুয়ারি/এমএবি/ডব্লিউবি)

সংবাদটি শেয়ার করুন

জাতীয় বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :