চাঁদপুরে অবাধে বিক্রি হচ্ছে জাটকা

শওকত আলী, চাঁদপুর
| আপডেট : ২০ জানুয়ারি ২০১৭, ১০:১৭ | প্রকাশিত : ২০ জানুয়ারি ২০১৭, ০৯:৪৬

চাঁদপুরের নদীগুলোতে জাটকা নিধনের মহাৎসব চলছে জেলেদের মাঝে। কে কত বেশি জাটকা শিকার করতে পারে এবং তা বিক্রি করবে এ নিয়ে তাদের মধ্যে চলে প্রতিযোগিতা। এসব জাটকা অবাধে বিক্রি হচ্ছে চাঁদপুরের বিভিন্ন বাজারগুলোতে। ইতোমধ্যে এসব জাটকা নিধনে জড়িয়ে পড়েছে চাঁদপুরের মেঘনা পাড়ের শত শত জেলে পরিবার।

এসব জেলে মতলব উত্তরের ষাটনল থেকে শুরু করে হাইমচর পর্যন্ত বিস্তীর্ণ এলাকায় নির্বিচারে প্রতিদিন মহাউৎসবের মতো জাটকা নিধনে নেমে পড়ছে। চাঁদপুর শহরের পুরান বাজার, হরিসভা, বহরিয়া বাজার, ১০নং লক্ষ্মীপুর মডেল ইউনিয়ন, হানারচর ইউনিয়ন, হরিনা ঘাট এলাকা ও হাইমচরের কালি খোলা এলাকায় এসব জাটকা বিক্রির পাইকারি হাট বসে প্রতিদিন। জেলেরা প্রতিদিন ভোর ৪টা থেকে শুরু করে সকাল ৬টা পর্যন্ত এবং রাত ৮টা থেকে ১০টা পর্যন্ত ওই বাজারগুলোতে বিক্রি চালিয়ে যায়। এসময় দূর-দুরান্ত থেকে খুচরা বিক্রেতারা এখানে এসে ভিড় জমায় এবং ক্রয় করে জাটকা।

স্থানীয়রা জানায়, এসব জেলের সাথে একটি বড় সিন্ডিকেট রয়েছে। তারা বিভিন্ন দপ্তর মেনেজ করে ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে। জাটকা ইলিশ বিভিন্ন বাজারগুলোতে প্রতিনিয়তই বিক্রি হচ্ছে। কিন্তু বাজারগুলোতে তদারকি করার কেউ না থাকায় তারা নির্ভয়ে বিক্রি করছে।

ফরিদগঞ্জ উপজেলার চান্দ্রা এলাকার বাজার ঘুরে দেখা গেছে, সেখানে ১৫/২০ জন মাছ বিক্রেতা রয়েছেন। সবাই জাটকা ইলিশ বিক্রি করছেন। এ সময় পুরো বাজারে জাটকা ইলিশে সয়লাভ হয়ে গেছে। এসব অসাধু জাটকা বিক্রেতারা নিরাপত্তার কথা ভেবে শহরের বাজারগুলোতে বিক্রি না করে গ্রাম-গঞ্জের বাজারগুলোতে অহরহ বিক্রি করছেন। মা ইলিশ রক্ষায় প্রশাসনের এতো তোড়জোড় থাকলেও জাটকা নিধন প্রতিরোধে এখন পর্যন্ত কোন পদক্ষেপ নেয়া হয়নি।

এ বিষয়ে মৎস্য কর্মকর্তারা জানান, আমরা জনসচেতনতা বৃদ্ধির জন্য নদীর তীরবর্তী এলাকায় মাইকিং করেছি। এছাড়াও অচিরেই এদের বিরুদ্ধে আরো বড় ধরনের পদক্ষেপ নেয়ার ব্যবস্থা নেয়া হবে।

(ঢাকাটাইমস/২০জানুয়ারি/প্রতিনিধি/এলএ)

সংবাদটি শেয়ার করুন

বাংলাদেশ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন ফিচার বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত