বিখ্যাত চিত্রশিল্পীর ছবির মডেল হলেন প্রিয়তি

মাহমুদ উল্লাহ, ঢাকাটাইমস
| আপডেট : ২০ মার্চ ২০১৭, ১৫:০৮ | প্রকাশিত : ২০ মার্চ ২০১৭, ১৫:০৫

চে গুয়েভারার বিখ্যাত যে ছবিটি টিশার্টে পরে তরুণরা ঘুরে বেড়ায় সেই ছবিটি কে একেছিলেন জানেন? এটি এঁকেছিলেন বিশ্ববিখ্যাত চিত্রশিল্পী জিম ফিটঝপ্যাটরিক। এই ছবিটি এঁকেই তিনি বিখ্যাত হয়ে গিয়েছিলেন। এরপর এঁকেছেন হাজার হাজার বিভিন্ন ধরনের ছবি। তিনি মূলত ফ্যান্ট্যাসি ঘরাণার ছবি আঁকেন। সেই জিমই এবার আঁকলেন বাংলাদেশের মডেল অভিনেত্রী মাকসুদা আক্তার প্রিয়তিকে। এ তথ্য প্রিয়তি নিজেই তার ফেসবুক পেজে জানিয়েছেন।ঢাকাটাইমস তার সঙ্গে যোগাযোগ করলে এ নিয়ে বিস্তারিত তথ্য জানান।

প্রিয়তি ঢাকাটাইমসকে বলেন, ‘ওনার মতো বিখ্যাত শিল্পীর মডেল হওয়া আমার জন্য চরম সৌভাগ্যের  ব্যাপার। গত বছর আমার ছবি আঁকার আগে তিনি একটি এক্সপেরিমেন্টাল শুট করেছিলেন। তারই একটা ছবি আমি পেয়েছি । এর পরেই তিনি আমার একটি ছবি আঁকবেন বলে আগ্রহ প্রকাশ করেন। এটা আমার কাছে পৃথিবীর অষ্টম আশ্চর্যের মতো মনে হয়েছিলো। কেননা তার ঐ ছবির ক্যানভাসের মধ্যেই এই প্রিয়তি যুগে যুগে আয়ারল্যান্ডসহ পুরো পৃথিবীতে ইতিহাস হয়ে বেঁচে থাকবে । জিমের আঁকা ছবিটি খুব গণমাধ্যমে শেয়ার করা হবে।

চিত্রশিল্পী জিম সম্পর্কে প্রিয়তি বলেন, নারীর সৌন্দর্যকে উনি তার শৈল্পিক তুলিতে আঁকতে পছন্দ করেন এবং আমি মডেল তার বাইরে নই । তার রঙের তুলিতে নিজের সৌন্দর্য দেখার অনুভুতি ছিল স্পন্দনীয়। অবশ্যই গর্ব করার পাশাপাশি নিজেকে ও নিজের জন্মকে ধন্য মনে করি আমি এবং সাথে সৃষ্টিকর্তাকে ধন্যবাদও জানাই ।

ওনার কাছ থেকে অনুপ্রাণিত হই এই ভেবে যে,এতো বয়স হওয়ার পরও এবং ক্যান্সারের রোগী হওয়ার পরও উনি তার কাজ থামাননি । নিজেকে কাজের মধ্যে রেখে সুস্থ রেখেছেন, ফিট রেখেছেন এবং ক্যান্সারকে জয় করেছেন । চে গুয়েভারার ছবি আঁকার আগে ও পরে চিত্রশিল্পী জিম বিভিন্ন শৈল্পিক চিত্র এঁকে এখনও পর্যন্ত সুনাম এবং খ্যাতি কুঁড়িয়ে যাচ্ছেন ।

কতদিন সময় লেগেছে ছবিটি তৈরিতে?এমন প্রশ্নের জবাবে প্রিয়তি বলেন, ‘চার সপ্তাহ সময় লেগেছে। মোট আট সেশনে বসতে হয়েছে গতবছর। এই জুলাইতে ছবিটি রিলিজ করার কথা রয়েছে।’

চিত্রশিল্পী জিমের সঙ্গে প্রিয়তির পরিচয় পর্ব সম্পর্কে প্রিয়তি বলেন, মিজ আয়ারল্যান্ড হওয়ার পর ২০১৪ সালে  একটি ফ্যাশন শোতে আমাকে ও শিল্পী জিমকে স্পেশাল গেস্ট হিসেবে আমন্ত্রণ জানানো হয়। সেখানেই পরিচয়। এরপর ২০১৪ এর শেষের দিকে জিম তার মডেল হওয়ার কথা জানান আমাকে। প্রথমে একটি এক্সপেরিমেন্টাল ফটোশুট করেন, এরপরই জিম সিদ্ধান্ত নেন, যে তিনি আমার সঙ্গে কাজ করবেন।

কেমন লেগেছে যখন মডেল হিসেবে তার সামনে বসে ছিলেন? কি কথা হতো তার সঙ্গে? প্রিয়তি বলেন, ‘ জিম এর সাথে সময় কাটাতে ভালোই লাগে। তিনি একজন জলজ্যান্ত জ্ঞান এর বাক্স। বিভিন্ন বিষয় নিয়ে কথা বলতে থাকেন, যার কারণে কাজ করছি ভুলেই যাই আর সময় দ্রুত করে চলে যায়। অনেক অজানা জিনিস জানা হয়ে যায় উনার সাথে কথপোকথনে। জিম পবিত্র কোরআন বই পড়েছেন এবং সাথে অন্যান্য ধর্মের পবিত্র বই ও। মাঝে মাঝে এমন এমন রেফারেন্স এনে কথা বলেন যে আমি তাজ্জব হয়ে যাই । উনি বিশ্ব যুদ্ধ নিয়ে, মুসলমান-খ্রিষ্টান বিরোধ নিয়ে কথা বলতে বেশি পছন্দ করেন। উনার কাছে আরব দেশগুলোতে হয়ে যাওয়া যুদ্ধ ও অত্যাচারগুলো অমানবিক ও অস্বাভাবিক মনে হয়। তিনি ক্ষোভও প্রকাশ করেন এবং এই বিষয়াদি নিয়ে কথা বলতে থাকেন । উনি বলেন যে , ইসলাম ধর্মকে অনেকেই নিজের স্বার্থে ব্যাবহার করে ভুলভাবে উপস্থাপন করে।

(ঢাকাটাইমস/২০মার্চ/এজেড)

সংবাদটি শেয়ার করুন

বিনোদন বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন ফিচার বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত