সাংবাদিক আফতাব হত্যা মামলার রায় ২৮ মার্চ

আদালত প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
| আপডেট : ২০ মার্চ ২০১৭, ১৮:০৪ | প্রকাশিত : ২০ মার্চ ২০১৭, ১৭:৪২

একুশে পদকপ্রাপ্ত প্রবীণ ফটোসাংবাদিক আফতাব আহমেদ হত্যা মামলায় ট্রাইব্যুনাল আগামী ২৮ মার্চ রায় ঘোষণা করবে।

সোমবার ঢাকার চার নম্বর দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালের বিচারক আবদুর রহমান সরদার মামলাটির যুক্তিতর্কের শুনানি শেষে এ রায় ঘোষণার দিন ঠিক করেন।

মামলার আসামিরা হলেন, আফতাব আহমদের গাড়িচালক মো. হুমায়ুন কবির, মো. বিল্লাল হোসেন, হাবিব হাওলাদার, মো. রাজু মুন্সি, মো. সবুজ খান ও মো. রাসেল।

ডাকাতিপূর্বক হত্যার অভিযোগে দণ্ডবিধির ৩৯৬ ধারায় এই আসামিদের বিরুদ্ধে ২০১৪ সালের ২৪ জুলাই চার্জ গঠন করে আদালত। আসামিদের মধ্যে হাবিব, বিল্লাল ও হুমায়ুন আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি  দিয়েছেন।

২০১৩ সালের ২৪ ডিসেম্বর রাতে রাজধানীর পশ্চিম রামপুরা ওয়াপদা রোডে ৬৩ নম্বরের নিজ বাসায় খুন হন ফটোসাংবাদিক আফতাব আহমেদ। পরদিন সকালে তার হাত-পা বাঁধা লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। চার তলার ওই বাড়ির তৃতীয় তলায় আফতাব আহমেদ একাই থাকতেন। লাশ উদ্ধারের সময় তার বাসার আলমারিসহ প্রায় সবকটি আসবাবপত্র তছনছ অবস্থায় পাওয়া যায়। লুট করা হয় নগদ টাকা, দুটি বাক্সে ভরা তার কর্মজীবনে ব্যবহৃত সবকটি ক্যামেরা ও দুর্লভ ছবি।

মামলাটিতে ২০১৪ সালের ২৫ মার্চ আদালতে চার্জশিট দাখিল করে পুলিশ। ২০১৪ সালের ২৪ জুলাই চার্জগঠনের মাধ্যমে বিচার শুরু হয়।

আলোকচিত্র সাংবাদিকতায় অনন্য অবদানের জন্য ২০০৬ সালে একুশে পদকে ভূষিত হন আফতাব আহমেদ। ১৯৬৪ সালে দৈনিক ইত্তেফাক দিয়ে তার আলোকচিত্র সাংবাদিকতার শুরু। ২০০৬ সালে কর্মজীবন থেকে অবসর নেন তিনি।

আফতাব আহমেদ তার বর্ণাঢ্য কর্মজীবনে ১৯৬৯ সালের গণঅভ্যুত্থান, একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধ, চুয়াত্তরের দুর্ভিক্ষ, ৭৫ সালে সপরিবারে বঙ্গবন্ধু হত্যা, স্বৈরশাসনসহ সবকটি আন্দোলন-সংগ্রামে সাহসিকতার সঙ্গে ছবি তুলেছেন। কর্মজীবনে আফতাব আহমেদ সুনামের সঙ্গে বাংলাদেশ ফটোজার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্বও পালন করেন। তবে খ্যাতিমান এ আলোকচিত্রীর কর্মজীবন শুরু হয় স্কুলের শিক্ষকতা দিয়ে।

(ঢাকাটাইমস/২০মার্চ/আরজেড/জেবি)

সংবাদটি শেয়ার করুন

গণমাধ্যম বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন ফিচার বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত