শিক্ষার্থীকে বেত্রাঘাত: দুই শিক্ষক বহিষ্কার

পাকুন্দিয়া (কিশোরগঞ্জ) প্রতিনিধি, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ২৩ মার্চ ২০১৭, ১৮:০২

কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়ায় সহপাঠীদের সঙ্গে হাসাহাসির ঘটনায় আবু বক্কর সিদ্দিক নামে এক শিক্ষার্থীকে বেত্রাঘাতের ঘটনায় অভিযুক্ত দুই শিক্ষককে বহিষ্কার করেছে মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষ।

বহিষ্কৃত দুই শিক্ষক হলেন- আবদুল্লাহ আল মামুন ও হামিম। বুধবার সন্ধ্যায় তাদের বহিষ্কার করা হয়।

শিক্ষকের বেত্রাঘাতে আহত হয়ে আবু বক্কর সিদ্দিক উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন রয়েছে। সে উপজেলার জাঙালিয়া ইউনিয়নের কাজীহাটি গ্রামের সৌদিপ্রবাসী হাফেজ ওমর ফারুকের ছেলে এবং খানকাহ মুহিব্বিয়া জামিয়া ইসলামিয়া হাফেজিয়া মাদ্রাসার হেফজ বিভাগের শিক্ষার্থী।

মাদ্রাসা শিক্ষার্থীকে বেত্রাঘাতের খবর বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত হলে বৃহস্পতিবার বিকাল পৌরসদরের হাপানিয়া খানকাহ মুহ্বিবিয়া জামিয়া ইসলামিয়া হাফেজিয়া মাদ্রাসায় যান উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা অন্নপূর্ণা দেবনাথ। এসময় উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান মোছা. শামসুন্নাহার আপেলসহ স্থানীয় সংবাদকর্মীরা তার সঙ্গে ছিলেন। 

মাদ্রাসার শিক্ষকরা অভিযুক্ত দুই শিক্ষককে বহিষ্কারের বিষয়টি অবগত করলে এ ধরনের ঘটনার পুনরাবৃত্তি যেন না ঘটে সেজন্য শিক্ষকদের সতর্ক করেন ইউএনও।

গত ১৯মার্চ শ্রেণিকক্ষে শিক্ষক না থাকার সুযোগে হাসি ঠাট্টায় মেতে ওঠে শিক্ষার্থী আবু বক্কর সিদ্দিকসহ আরও দুইজন। এতে শিক্ষক আবদুল্লাহ আল মামুন তাকে বেত্রাঘাত করেন। এ ঘটনার পর আবু বক্কর সিদ্দিক বাড়িতে গেলে গোসল করানোর সময় তার মা পিঠসহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাতের চিহ্ন দেখতে পান। পরে তার মা মাদ্রাসায় গিয়ে এ ব্যাপারে জানতে চান। এসময় মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষ বেত্রাঘাতের ঘটনায় দুঃখ প্রকাশ করে অভিয্ক্তু শিক্ষকের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার আশ্বাস দেন।

এর তিন দিন আগে পড়া না পারায় একই শিক্ষার্থীকে বেত্রাঘাত করেন হামিম নামে অপর এক শিক্ষক। এসব ঘটনায় বুধবার সন্ধ্যায় অভিযুক্ত দুই শিক্ষককে মাদ্রাসা থেকে স্থায়ী বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

(ঢাকাটাইমস/২৩মার্চ/প্রতিনিধি/জেডএ)

সংবাদটি শেয়ার করুন

বাংলাদেশ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন ফিচার বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত