মহাসড়কে ‘স্পিড গান’ ব্যবহারে স্থবিরতা, বাড়ছে দুর্ঘটনা

মঞ্জুর রহমান, মানিকগঞ্জ থেকে
| আপডেট : ২৭ মার্চ ২০১৭, ০৯:৩২ | প্রকাশিত : ২৭ মার্চ ২০১৭, ০৮:০৮

ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের মানিকগঞ্জে স্পিড ডিটেক্টর ডিজিটাল মেশিন (স্পিড গান) কার্যক্রম কার্যত স্থবির হয়ে পড়েছে। রাজধানী ঢাকার সাথে দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ২১টি জেলার যোগাযোগের অন্যতম মাধ্যম ঢাকা-আরিচা মহাসড়কে আগের মতো স্পিড গানের ব্যবহার পরিচালিত না হওয়ায় বেড়ে গেছে সড়ক দুর্ঘটনা। আর এই দুর্ঘটনার অন্যতম কারণ হিসেবে মনে করা হচ্ছে যানবাহনের অতিরিক্ত গতি ও ওভারটেকিং।

গত এক সপ্তাহ ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের মানিকগঞ্জের বিভিন্ন স্পট থেকে অতিরিক্ত গতিতে যানবাহন চলাচলের সত্যতা পাওয়া গেছে। অথচ মহাসড়কের ওপর দিয়ে যানবাহনের অতিরিক্ত গতি কমাতে মানিকগঞ্জ হাইওয়ে পুলিশের ব্যবহার করার কথা ‘স্পিড ডিটেক্টর ডিজিটাল মেশিন।’ এক সময় হাইওয়ে পুলিশ এই ডিজিটাল মেশিন ব্যবহার করলেও এখন দেখা যায় না। এ কারণে গুরুত্বপূর্ণ মহাসড়কে দুর্ঘটনা আগের চেয়ে অনেকটা বেড়ে গেছে।

তবে হাইওয়ে পুলিশের দাবি তারা ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের দুর্ঘটনা রোধে নিয়মিত স্পিড ডিটেক্টর ডিজিটাল মেশিন দ্বারা অভিযান পরিচালনা করছেন। যে সব চালক নির্দিষ্ট গতির চেয়ে অতিরিক্ত গতিতে যানবাহন চালাচ্ছেন তাদের বিরুদ্ধে মামলা করা হচ্ছে।

হাইওয়ে পুলিশ এবং সড়ক ও জনপদ বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের মানিকগঞ্জের বিভিন্ন স্থানে ২০১০ থেকে ২০১৭ সালের মার্চ মাস পর্যন্ত মোট সড়ক দুর্ঘটনা ঘটে ৬২০টি। এসব দুর্ঘটনায় নিহত হয় ৩৩৪ জন। আহত হয় ১২৭৪ জন। এর মধ্যে ছিলেন বিশিষ্ট চলচ্চিত্র নির্মাতা তারেক মাসুদ ও চিত্র সাংবাদিক মিশুক মুনীর এবং মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব রাজিয়া বেগম ও বিসিকের চেয়ারম্যান সিদ্দিকুর রহমান।

গত এক সপ্তাহ ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের মানিকগঞ্জের জাগির, গোলড়া, বাগজান, বানিয়াজুরী, জোঁকা, বসুন্ধরা রিসোর্টসহ বাথুলী এলাকায় সরেজমিনে ঘুরে গোলড়া হাইওয়ে থানা ও বরংগাইল হাইওয়ে থানার কোনো পুলিশ সদস্যকে স্পিড ডিটেক্টর মেশিন দ্বারা যানবাহনের গতি নিয়ন্ত্রণ করতে দেখা যায়নি। তবে তাদেরকে মহাসড়কের বিভিন্ন স্থানে দাঁড়িয়ে টহল দিতে দেখা গেছে।

গত শনিবার ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের বেশ কয়েক স্থানে দাঁড়িয়ে থেকে দেখা যায়, ঢাকা-আরিচা মহাসড়ক দিয়ে দূরপাল্লার যাত্রীবাহী কোচ, লোকাল পরিবহন অতিরিক্ত গতিতে চলাচল করছে। এ মহাসড়কের ওপর দিয়ে ৪০ থেকে ৬০ কিলোমিটার গতিতে যানবাহন চলাচলের কথা থাকলেও সেখানে চলাচল করছে ৮০ থেকে ১০০ কিলোমিটার গতিতে। যেসব গাড়ি অতিরিক্ত গতিতে চলাচল করছে এর বিরুদ্ধে মোটরযান আইনে ১৪২ ধারায় মামলা দেয়ার বিধান থাকলেও অজ্ঞাত কারণে অনেক সময় মামলা দেয়া হচ্ছে না। 

এ বিষয়ে বাংলাদেশ সাংবাদিক সমিতি মানিকগঞ্জ জেলা শাখার সাবেক সভাপতি ও সিনিয়র সাংবাদিক সাব্বিরুল ইসলাম সাবু ঢাকাটাইমসকে বলেন, ‘ঢাকা-আরিচা মহাসড়কে সম্প্রতি দুর্ঘটনা বেড়ে গেছে। এসব দুর্ঘটনার অন্যতম কারণ যানবাহনের অভারটেকিং, অতিরিক্ত গতি এবং ছোট তিন ও দুই চাকার যানবাহন চলাচল করা।’ তিনি মনে করেন, এই মহাসড়কে হাইওয়ে পুলিশের টহল বাড়ানোসহ স্পিড ডেটেক্টর মেশিন দিয়ে নিয়মিত বিভিন্ন স্থানে অভিযান পরিচালনা করলে দুর্ঘটনা অনেকটা রোধ করা সম্ভব হবে।

এদিকে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক হাইওয়ে পুলিশের এক কর্মকর্তা ঢাকাটাইমসকে বলেন, স্পিড ডিটেক্টর মেশিন নিয়ে রাস্তার পাশে দাঁড়িয়ে থাকলেও মূলত সেগুলো দিয়ে অভিযান পরিচালনা করা হয় না। যে কারণে এ জেলায় অতিরিক্ত গতিতে যানবাহন চলাচল বন্ধ হয় না। তিনি মনে করেন, মানিকগঞ্জের গোলড়া ও শিবালয় উপজেলার বরংগাইল হাইওয়ে থানার পুলিশ প্রতিদিন এক জায়গায় দাঁড়িয়ে না থেকে গুরুত্বপূর্ণ এ মহাসড়কের বিভিন্ন স্থানে অভিযান পরিচালনা করলে এ মহাসড়ক দিয়ে স্বাভাবিক গতিতেই যানবাহন চলাচল করবে, রোধ করা সম্ভব হবে ওভারটেকিং।

মানিকগঞ্জের শিবালয় উপজেলার বরংগাইল হাইওয়ে ফাঁড়ির ইনচার্জ (সার্জেন্ট) ইয়ামিন-উদ-দৌলা ঢাকাটাইমসকে জানান, গত ছয় মাসে তাদের এরিয়ায় মামলা হয়েছে ৪১৬টি। এর মধ্যে অতিরিক্ত গতির মামলা ২০৮টি। আর অনান্যে মামলা ১১৮টি। এখানে গত ছয় মাসে দুর্ঘটনা হয়েছে ১২টি। এসব দুর্ঘটনায় মারা গেছে ১১ জন। আর পাঁচজন গুরুত্বর আহত হয়েছে।

মানিকগঞ্জের সাটুরিয়া উপজেলার গোলড়া হাইওয়ে থানার উপ-পরির্দশক (এসআই) নান্নু মন্ডল ঢাকাটাইমসকে জানান, গত ছয় মাসে তাদের এরিয়ায় মামলা হয়েছে ৮৫০টি। এর মধ্যে অতিরিক্ত গতির মামলা ৪৭০টি। আর অন্যান্য মামলা ৩৮০টি। এখানে গত ছয় মাসে দুর্ঘটনা হয়েছে ১২টি। এসব দুর্ঘটনায় মারা গেছে আটজন। আর আহত হয়েছে ৪৫ জন।

এ ব্যপারে হাইওয়ে পুলিশ সুপার (গাজীপুর রিজিওন্যাল) শফিকুল ইসলাম ঢাকাটাইমসকে বলেন, ‘বিভিন্ন স্থানে নির্বাচনের ডিউটিতে কর্মকর্তাদের পাঠানোর জন্য বেশ কয়েক দিন মহাসড়কে স্পিড ডিটেক্টর মেশিন দ্বারা অভিযান পরিচালনা করা সম্ভব হয়নি। এ কারণে দুর্ঘটনা বেড়ে গিয়েছিল।’ তিনি বলেন, ‘এখন আবার ঢাকা-আরিচা মহাসড়কসহ বাংলাদেশের বিভিন্ন হাইওয়ে সড়কে যানবাহনের অতিরিক্ত গতি ও ওভারটেকিং রোধ করতে স্পিড ডিটেক্টর ডিজিটাল মেশিন দ্বারা অভিযান শুরু হয়েছে।’

(ঢাকাটাইমস/২৭মার্চ/প্রতিনিধি/জেবি)

সংবাদটি শেয়ার করুন

বাংলাদেশ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন ফিচার বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত