কালকিনিতে নির্বাচন-পরবর্তী সহিংসতায় ২১ বাড়ি ভাঙচুর

কালকিনি (মাদারীপুর) প্রতিনিধি, ঢাকাটাইমস
| আপডেট : ১৮ এপ্রিল ২০১৭, ১৮:১৮ | প্রকাশিত : ১৮ এপ্রিল ২০১৭, ১৭:৩০

মাদারীপুরের কালকিনি উপজেলার এনায়েতনগর ও নবগঠিত পূর্ব এনায়েতনগর ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনের পর সহিংসতায় ২১টি বাড়ি ভাঙচুর ও ২৯ ব্যক্তি আহত হওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

নির্বাচনের পরদিন গতকাল সোমবার এসব হামলা হয় বলে আজ মঙ্গলবার দুপুরে একটি লিখিত অভিযোগ থেকে জানা গেছে। এসব ঘটনায় সাধারণ মানুষের মধ্যে আতঙ্ক বিরাজ করছে।

গত রবিবার (১৬ এপ্রিল) ওই দুটি ইউনিয়নে একযোগে ভোট নেয়া হয়।
অভিযোগ থেকে জানা যায়, পূর্ব এনায়েতনগর ইউনিয়নে হামলায় জড়িত চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের মনোনীত পরাজিত প্রার্থী বাদল তালুকদারের সমর্থকরা। তারা বিজয়ী স্বতন্ত্র প্রার্থী রেহেনা নেয়ামুল আকনের সমর্থকদের ১৪টি বাড়িতে হামলা চালিয়ে ভাঙচুর ও লুটপাট করে।

অন্যদিকে এনায়েতনগর ইউপি নির্বাচনে বিজয়ী সদস্য মেছের সরদারের সমর্থকরা পরাজিত সদস্য প্রার্থী শাহিনা বেগমের সমর্থকদের সাতটি বাড়িতে হামলা চালিয়ে লুটপাট করে বলে অভিযোগ।

ভুক্তভোগীরা বলছেন, এসব হামলা-লুটপাটের ঘটনায় নারীসহ কমপক্ষে ২৯ জন আহত হয়েছে। অনেক সাধারণ মানুষ ভয়ে ও আতঙ্কে এলাকা ছেড়ে অন্যত্র আশ্রয় নিচ্ছে।

এলাকাবাসী ও ভুক্তভোগী পরিবারের লিখিত অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, পূর্ব এনায়েতনগর ইউপি নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী বাদল তালুকদারকে হারিয়ে স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী রেহেনা নেয়ামুল আকন বিজয়ী হন। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে আওয়ামী লীগের প্রার্থীর সমর্থকরা একের পর এক হামলা চালান বিজয়ী স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থীর সমর্র্থকদের ওপর। এতে শহিদুল সরদার, আজগর আলী বিশ্বাস, মেহেদুল আকন, খলিল সরদার, জিন্নাত আলী মৃধা, এমদাদুল আকন, মিজানুর রহমান, মাসুম আলী, ফজলুল হক বেপারী, আবুল হোসেন বেপারী, খলিল সরদার ও আহসান হাবীবের বাড়িতে হামলা ও লুটপাট হয়। এ সময় আহত হন ঝর্না বেগম, হেনোরা বেগম ও স্বপন হোসেন। তাদের উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সসহ বিভিন্ন ক্লিনিকে ভর্তি করা হয়েছে।

অপর ঘটনায় এনায়েতনগর ইউপি নির্বাচনে বিজয়ী সদস্য প্রার্থী মেছের সরদারের সমর্থকরা পরাজিত সদস্য প্রার্থী শাহিনা বেগমের সমর্থক মজিদ শিকদার, শাহ আলম হাওলাদার, মোতাহার সরদার সেকেন্দার শিকদার, সাহাদাত খান, নাছির খান ও সাকু খানের বাড়িতে হামলা চালিয়ে লুটপাট করে। এ সময় আহত হন রেকসোন বেগম, মাফিয়া বেগম, পারভিন বেগম, সালমা বেগম, তাহমিনা, তাসলিম ও সোমেলাসহ কমপক্ষে ২৫ জন। তাদের উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সসহ বিভিন্ন ক্লিনিকে ভর্তি করা হয়েছে।

পূর্ব এনায়েতনগরের বিজয়ী স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী রেহেনা নেয়ামুল আকন অভিযোগ করে বলেন, ‘আমার লোকজনের বাড়িঘরে হামলা ও লুটপাট চালিয়ে আসছেন পরাজিত প্রার্থী বাদল তালুকদারের লোকজন।

অভিযোগ সম্পর্কে জানতে পরাজিত প্রার্থী বাদল তালুকদারের সঙ্গে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করেও তাকে পাওয়া যায়নি।

এনায়েতনগরের পরাজিত ইউপি সদস্য প্রার্থী শাহিনা বেগম বলেন, ‘আমার সমর্থকদের বাড়িঘরে হামলা চালিয়ে লুটপাটের ঘটনা ঘটিয়েছেন মেছের সরদারের লোকজন। আমরা মামলা করার প্রস্তুতি নিচ্ছি।’

হামলার ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে কালকিনি থানার এসআই ওয়াদুদ মিয়া জানান, এখন পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে।

(ঢাকাটাইমস/১৮এপ্রিল/মোআ)

 

সংবাদটি শেয়ার করুন

বাংলাদেশ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন ফিচার বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত