শাহাদুজ্জামানের গল্পে শর্ট ফিল্ম ‘একই পথে’

মাহমুদ উল্লাহ, ঢাকাটাইমস
| আপডেট : ২০ এপ্রিল ২০১৭, ১৭:০৭ | প্রকাশিত : ২০ এপ্রিল ২০১৭, ১৫:১৯

কথাসাহিত্যিক শাহাদুজ্জামান বাংলাদেশের বর্তমান বাংলা সাহিত্যের একজন গুরুত্বপূর্ণ লেখক। গল্প এবং উপন্যাস তার কাজের প্রধান ক্ষেত্র হলেও গবেষণা, অনুবাদ, ভ্রমণ এবং প্রবন্ধ সাহিত্যেও উল্লেখযোগ্য রচনা রয়েছে তার।  শাহাদুজ্জামানের গল্প নিয়ে আগেও অডিও ভিজ্যূয়াল স্টোরি তৈরি হয়েছে। এর আগে তার উপন্যাস ‘ক্রাচের কর্ণেল’ নিয়ে একজন পরিচালক একটি ডকু ফিকশন বানিয়েছিলেন। এবার তার ছোট গল্প ‘ঠাকুরের সঙ্গে গল্প’ নিয়ে তৈরি হলো শর্ট ফিল্ম ‘একই পথে’। আজ ২০ এপ্রিল রাত আটটায় প্রজন্ম টকিজের ফেসবুক ও ইউটিউবে শর্ট ফিল্মটি মুক্তি দেয়া হবে। এটি তৈরি করেছেন নাট্যনির্মাতা রবিউল আলম রবি। এখন সিনেমাটির ট্রেলার পাওয়া যাচ্ছে তাদের ফেসবুক পেজে।

শর্ট ফিল্মটির গল্প প্রসঙ্গে সাহিত্যিক শাহাদুজ্জামান ঢাকাটাইমসকে বলেন, ‘গল্পটি একটি বাস্তব ঘটনার উপর ভিত্তি করেই লেখা। আমার এক ঘনিষ্ঠ সনাতন ধর্মালম্বী বান্ধবী একদিন তার এক দুরসম্পর্কের আত্মীয়ের কথা বলছিলো যে এভাবেই কোলকাতা থেকে বাংলাদেশে এসে ময়মনসিংহে গিয়ে তার বাড়িটি খুঁজে পেয়েছিলো। ঘটনাটি আমাকে ভীষণভাবে তাড়িত করে এবং এটি নিয়ে একটা গল্প লেখার সিদ্ধান্ত নেই। গল্পের প্রয়োজনে পিনাকী এবং সোহবার চরিত্র দুটো তৈরি করি। পিনাকী চরিত্রটিও আমার খুব কাছের এক মানুষের ছায়া অবলম্বেনে তৈরি। চলচ্চিত্র নির্মাতা ছবিতে পিনাকীর গল্পটি অবশ্য বাদ দিয়েছেন। পুর্ণাঙ্গ গল্পটি চলচ্চিত্রায়িত হলে ভালো হতো। ছবির বাজেট, আয়োজন ইত্যাদির কথা ভেবে হয়তো সেটা করতে হয়েছে। তবে শুধুমাত্র নেত্ররঞ্জনের গল্পটিরও পৃথক শক্তি আছে। গল্পটি লেখার আগে আমি ময়মনসিং গিয়ে গল্পের সেই এলাকাগুলো ঘুরে এসেছি। নেত্রের এই বাড়ি ফেরার পদযাত্রাটা আমি নিজের মত করেছি। আমার বাবা ময়মনসিংহ জেলা স্কুলের ছাত্র ছিলেন এবং ঐ এলাকা, শানকি পাড়া, ষ্টেশন ইত্যাদি তার নখদর্পনে। বাবার কাছ থেকে ঐ এলাকার নানা তথ্য এবং ঐ সময়ের সেই প্রেক্ষাপটগুলো শুনে নিয়েছিলাম। কুস্তিগীর যশোদামাল, রাম বাবুর লন্ড্রি এসব বাবার কাছে শোনা। আজকের সাম্প্রদায়িক সম্পর্কের এই অসহিষ্ণুতার সময় রবিউল আলম রবি যে এই ছবিটা নির্মাণ করেছেন সেজন্য তাকে এবং ছবিটির কলাকুশলীদের অভিনন্দন জানাই।’  

সিনেমার গল্প সম্পর্কে প্রজন্ম টকিজের প্রযোজক সালেহ সোবহান অনীম ঢাকাটাইমসকে বলেন, ‘ষাটোর্ধ একজন ব্যক্তির স্বপ্ন ছিল মারা যাওয়ার আগে সে তার শৈশবের বাড়িটি দেখবে। তাই সে তার ভাইয়ের ছেলেকে নিয়ে বাড়িটি খুঁজতে বের হয়। তারা দেশভাগের পরে কলকাতার একজনের সাথে বাড়িটি বিনিময় করে সেখানে চলে গিয়েছিলো। খুঁজতে খুঁজতে সে বাড়িটি পেয়ে যায়। দেখে তারই শৈশবের বন্ধু বাড়িটি পরে একজনের কাছ থেকে কিনেছিল। এমনই একটি গল্প নিয়ে তৈরি হয়েছে শর্টফিল্মটি।’

প্রজন্ম টকিজ সম্পর্কে অনীম বলেন, ‘এটি পরিচালক রবিউল আলম রবি তৈরি করেছেন, তিনি সাধারণত নাটক তৈরি করে থাকেন। এবারই প্রথম তিনি শর্টফিল্ম তৈরি করলেন। আমরা বিভিন্ন সামাজিক ইস্যূ নিয়ে মোট ১০টি শর্ট ফিল্ম তৈরি করছি। আগামী ২৭ এপ্রিল আমরা দ্বিতীয় ছবিটি রিলিজ দিবো। ফিল্ম নইর এর ব্যানারে ছবিগুলো তৈরি হচ্ছে। দ্বিতীয় শর্ট ফিল্মটি তৈরি হয়েছে পাহাড়ি-বাঙালি বিভিন্ন সমস্যা নিয়ে। যদি এবার এই ১০টি গল্পের শর্টফিল্মগুলো নিয়ে ভালো সাড়া পাই তাহলে পরের বার আবার এরকম প্রকল্প নিয়ে কাজ করবো।’

ট্রেলারটির ফেসবুক লিংক: https://www.facebook.com/projonmotalkies/videos/1300086013440773/

(ঢাকাটাইমস/২০এপ্রিল/এমইউ/এজেড)

 

সংবাদটি শেয়ার করুন

বিনোদন বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন ফিচার বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত