সালথায় চেয়ারম্যানের বাড়িতে হত্যার ঘটনায় মামলা

ফরিদপুর প্রতিনিধি, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ০২ মে ২০১৭, ১৭:২৮

ফরিদপুরের সালথা উপজেলার আটঘর ইউনিয়নের গোয়ালপাড়া গ্রামে গত রবিবার সকালে প্রতিপক্ষের হামলায় নিহত জিয়া শেখ (২৫) হত্যার ঘটনায় ওই ইউনিয়নের সাবেক ইউপি চেয়ারম্যানসহ ৪৫৫ জনকে আসামি করে মামলা হয়েছে।

এদিকে সংঘর্ষের সময় গ্রেপ্তার হওয়া পাঁচজনকে ওই হত্যা মামলায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে পাঠানো হযেছে।

নিহত জিয়ার বাবা মো. সাহাজদ্দীন শেখ বাদী হয়ে গত সোমবার রাতে আটঘর ইউপির সাবেক ইউপি চেয়ারম্যানসহ ৫৫ জনের নাম উল্লেখ করে এবং অজ্ঞাতনামা আরও ৪০০ ব্যক্তিকে আসামি করে সালথা থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছেন।

এ মামলায় প্রধান আসামি করা হয়েছে পাশের পুটিয়া গ্রামের বাসিন্দা আওয়ামী লীগ কর্মী আবু সালেহ মো. খসবুকে। এজাহারভুক্ত অন্য আসামিদের মধ্যে রয়েছেন সালথা উপজেলা পরিষদের সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান ভাওয়াল গ্রামের বাসিন্দা মো. লেবু মোল্লা ও আটঘর ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান পুটিয়া গ্রামের বাসিন্দা এম. ফিরোজ খান।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে সালথা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এ কে এম আমিনুল হক মঙ্গলবার বলেন, গত রবিবার সংঘর্ষের সময় গ্রেপ্তার হওয়া ফরিদপুর সদরের কানাইপুর ইউনিয়নের রণকাইল গ্রামের শোয়েব শেখ, কাশিমাবাদ গ্রামের মজনু শেখ, রামখন্ড গ্রামের আকুবর মোল্লা, সালথার আটঘর ইউনিয়নের গোয়ালপাড়া গ্রামের সজিব মাতুব্বর ও পাশের বোয়ালমারী উপজেলার পরমেশ্বরদী ইউনিয়নের ময়েনদিয়া গ্রামের খায়ের মোল্লাকে গত সোমবার এ হত্যা মামলায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে জেলার মূখ্য বিচারিক হাকিমের আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে পাঠিয়ে দেয়া হয়েছে।

প্রসঙ্গত, গত রবিবার সকালে আওয়ামী লীগের দুই পক্ষের আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে সালথা উপজেলার আটঘর ইউনিযনের গোয়ালপাড়া গ্রামে ইউপি চেয়ারম্যান উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শহীদুল হাসান খান সোহাগের বাড়িতে হামলা চালায় প্রতিপক্ষরা। এসময় শহীদুল হাসানের সমর্থক জিয়াকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করে প্রতিপক্ষ।

(ঢাকাটাইমস/০২মে/প্রতিনিধি/জেবি)

সংবাদটি শেয়ার করুন

বাংলাদেশ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন ফিচার বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত