গ্রিস আ.লীগের প্রতিবাদ সভা

ইউরোপ ব্যুরো প্রধান, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ১৯ মে ২০১৭, ২২:৩০

ত্যাগী নেতাদের বাদ দিয়ে দুর্নীতিবাজ, দালাল, জামায়াত-বিএনপি নেতাদের সাথে সর্ব ইউরোপিয়ান আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এম এ গণি সম্মেলনের নামে গোপনে নাটক করার অভিযোগ এনে গ্রিস আওয়ামী লীগ সংবাদ সম্মেলন ও প্রতিবাদ সভার আয়োজন করে।

বুধবার এথেন্সের একটি রেস্টুরেন্টে গ্রিস আওয়ামী লীগের সভাপতি মান্নান মাতাব্বর লিখিত বক্তব্যে জানান, যারা আওয়ামী লীগের নাম ভাঙিয়ে আমাদের অর্জিত গৌরবকে কলঙ্কিত করছেন- তাদের ১০ মে’র সম্মেলন সম্পূর্ণ অবৈধ। সেদিনের সম্মেলনে কোন ঠিকানা উল্লেখ না করে গোপনে এমএ গণি তার পকেট সম্মেলন করে গেছেন।

গ্রিস প্রশাসন ইন্টারন্যাশনাল অপরাধী হিসেবে এখনো যাকে কারাবন্দী করে রেখেছে, সেই জামায়াত নেতাকে সাধারণ সম্পাদক এবং যার গ্রিস আওয়ামী লীগের কোন অবদান নাই তাকে সভাপতি করে এমএ গনি কমিটি করার পাঁয়তারা করছেন। আমরা তার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাই।

তিনি বলেন, যেখানে জননেত্রী শেখ হাসিনা দেশকে কলঙ্কমুক্ত করে উন্নত দেশে রূপান্তরিত করতে কাজ করে যাচ্ছেন, সেখানে সর্বইউরোপিয়ান আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক গ্রিস তথা ইউরোপে আওয়ামী লীগকে কলঙ্কিত করছেন।

এ ব্যাপারে গ্রিস আওয়ামী লীগের সভাপতি মান্নান মাতাব্বর দলীয় প্রধান শেখ হাসিনাসহ শীর্ষ নেতাদের হস্তক্ষেপ কামনা করেন।

গ্রিস আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বাবুল হাওলাদার তার বক্তব্যে বলেন, সর্বইউরোপিয়ান আওয়ামী লীগের সভাপতি শ্রী অনিল দাস গুপ্ত ও স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতাদের উপেক্ষা করে এমএ গনি অসাংগঠনিক কর্মকাণ্ড করে দলীয়ভাবে যে কোন্দল সৃষ্টি করেছেন- তা আমরা কখনো প্রত্যাশা করেনি। এসকল কোন্দলের কারণে আজ ইউরোপজুড়ে নিজেরাই নিজেদের প্রতিপক্ষ হয়ে দাঁড়াচ্ছি, এমনকি ইতিমধ্যে অনেক লাঞ্ছনার ঘটনাও ঘটছে এবং হয়তো আরো ঘটবে। এসময় বাবুল হাওলাদার, জননেত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে এবং শ্রী অনিল দাস গুপ্ত’র অনুমোদিত দ্রুত একটি কমিটি দেয়ার জন্য অনুরোধ করেন।

তিনি মনে করেন, এ কমিটিই হবে গ্রিস আওয়ামী লীগের গ্রহণযোগ্য কমিটি। অন্যথায় কোন বান্ডিল কমিটি কেউ মেনে নেবে না।

সর্বইউরোপিয়ান আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এম.এ গণি এ ব্যাপারে কোন মন্তব্য করতে অস্বীকার করেন।

তবে যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শামীম হক টেলিকনফারেন্সে বলেন, কোন অসংগাঠনিক কর্ম আওয়ামী লীগ করে না আর কেউ করতে চাইলেও তা কখনো সফল হবে না, তিনি সবাইকে কাজ করে যাওয়ার দিক নির্দেশনা দেন এবং জননেত্রী শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করার আহ্বান জানান।

প্রতিবাদ সভায় উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ কমিউনিটির সহ-সভাপতি ইলিয়াস হাওলাদার, সাধারণ সম্পাদক খালেক মাতাব্বর, সাবেক সভাপতি গোলাম মাওলা, গ্রিস আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি শেখ কামরুল ইসলাম এবং প্রবীন ও প্রভাবশালী আওয়ামী নেতা বাচ্চু বেপারী, জলিল হাওলাদার, জাকির হোসেন ভূইয়া, ইলিয়াস হাওলাদার, মিজানুর রহমান, রোকন উদ্দিন জুলহাস, আমিন মাস্টার, কামরুল ইসলাম, লোকমান উদ্দিন, নাসির উদ্দিন জমাদার, সোহেল হাওলাদার, বাদল মল্লিক, মো. রেজাউল করিম, রফিকুল ইসলাম, হেলাল শেখ, জামাল উল্লা, হেমায়েত হাওলাদার, লিপু বেপারী, রুবেল হাওলাদার, শহিদুল বেপারী, রেজাউল মোল্লা, সোবহান বেপারী, সোহেল হাওলাদার, লতিব বেপারী, মোকলেছ মুন্সি, আক্তার ভূইয়া, আমিন শরিফ, আজাহার কুস্তি, খান রহিম, আসু সরদার, সেলিম আকন, মিজান শেখ, মোশারফ হাওলাদার, হেলাল বেপারী।

এছাড়াও যুবলীগ, ছাত্রলীগ, সেচ্ছাসেবক লীগ ও বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশনের স্থানীয় নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

(ঢাকাটাইমস/১৯মে/সিকে/এলএ)

সংবাদটি শেয়ার করুন

প্রবাসের খবর বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন ফিচার বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত