না.গঞ্জে আদালতের স্টাফকে প্রকাশ্যে পেটালেন আ.লীগ নেতা

নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ২৫ মে ২০১৭, ২৩:২০

মোটরসাইকেলের হর্ন দেয়ায় নারায়ণগঞ্জ চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের স্টাফ সুমন সরকারকে প্রকাশ্যে পিটিয়েছেন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবু হাসনাত মোহাম্মদ শহীদ বাদল ও তার সহযোগীরা। এক পুলিশ সদস্য বাঁচাতে গেলে তাকেও লাঞ্ছিত করা হয়। 
বৃহস্পতিবার সকালে নারায়ণগঞ্জের আদালতপাড়ায় এ ঘটনা ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, বৃহস্পতিবার নারায়ণগঞ্জ চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হেফাজতে ইসলামের মামলায় সন্ত্রাসবিরোধী ত্বকী মঞ্চের আহ্বায়ক রফিউর রাব্বির সমনের দিন ধার্য্য ছিল। এ কারণে সকাল থেকে আদালতপাড়ায় প্রবেশপথসহ বিভিন্ন স্থানে অবস্থান নেন আওয়ামী লীগ ও হেফাজতে ইসলামের নেতাকর্মীরা। ধর্ম অবমাননার অভিযোগে রাব্বির বিরুদ্ধে মামলা করেন নারায়ণগঞ্জ হেফাজতের এক নেতা। আর তাতে সমর্থন জানান রাব্বির বিরোধীপক্ষ আওয়ামী লগি নেতা শামীম ওসমান। 

সকাল সাড়ে ১০টার দিকে চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের স্টাফ সুমন সরকার মোটরসাইকেলযোগে আদালতপাড়ায় তার কর্মস্থলে আসেন। এ সময় মানুষের জটলা দেখে তিনি মোটরসাইকেলের হর্ন বাজান। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা তাকে কিল-ঘুষি ও মারধর করেন। একপর্যায়ে মোটরসাইকেল আরোহী সুমন সরকারকে টেনেহিঁচড়ে নামিয়ে জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবু হাসনাত মোহাম্মদ বাদলের কাছে নিয়ে যাওয়া হয়। এ সময় তিনি সুমন সরকারকে এলোপাতাড়ি কিল-ঘুষি মারেন। আদালতপাড়ায় উপস্থিত পুলিশ সদস্য তাকে বাঁচাতে এগিয়ে গেলে তাকেও লাঞ্ছিত করেন আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা। 

নির্যাতনের শিকার সুমন সরকার বলেন, তিনি মোটরসাইকেল যোগে অফিসে যাচ্ছিলেন। আদালতে পাড়ায় মানুষের ভিড়ের কারণে দুর্ঘটনার আশঙ্কায় তিনি হর্ন বাজিয়ে আস্তে আস্তে যাচ্ছিলেন। আদালতপাড়ার রাস্তার ওপর দাঁড়িয়ে এক ব্যক্তি মোবাইল ফোনে কথা বলছিলেন। সাইড নেয়ার জন্য তিনি হর্ন বাজান। এতে মোবাইল ফোনে কথা বলতে থাকা ব্যক্তি উত্তেজিত হয়ে ওঠেন। এ সময় কিছু লোক তাকে টেনেহিঁচড়ে মোটরসাইকেল থেকে নামিয়ে ওই লোকটার সামনে নিয়ে গেলে তিনি তাকে এলোপাতাড়ি কিল-ঘুষি ও লাথি মারেন। 

এ ব্যাপারে জানতে নারায়ণগঞ্জ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের মোবাইল ফোনে একাধিকবার যোগাযোগ করা হলেও তিনি সাড়া দেননি। 
কোর্টে দায়িত্বরত একজন পুলিশ কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, মোটরসাইকেল আরোহীকে বাঁচাতে গিয়ে পুলিশ সদস্যও লাঞ্ছিত হয়েছেন। একজন সরকারি কর্মচারীকে এভাবে মারধর করা দুঃখজনক। 

(ঢাকাটাইমস/২৫মে/মোআ)

সংবাদটি শেয়ার করুন

বাংলাদেশ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত