পূর্ণাঙ্গ কমিটি না হওয়ায় চাঁদপুর আ.লীগে বাড়ছে বিশৃঙ্খলা

শওকত আলী, চাঁদপুর
 | প্রকাশিত : ০১ জুন ২০১৭, ১৩:৩৬

১৫ মাস আগে চাঁদপুর জেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলন হয়েছে। কিন্তু এখন পর্যন্ত নেতাকর্মীরা পূর্ণাঙ্গ কমিটির মুখ দেখতে পাননি। এ কারণে নেতাকর্মীদের মধ্যে বাড়ছে বিশৃঙ্খলা।

ওই সম্মেলনে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত করা হয়। শিগগিরই পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণার কথা বলা হলেও ১৫ মাসেও তা হয়নি। কবে নাগাদ ঘোষিত হতে পারে বলতে পারছে না কেউ। জেলার জ্যেষ্ঠ নেতারা বলছেন, পূর্ণাঙ্গ কমিটি না হওয়ায় নেতাকর্মীরা ঝিমিয়ে ও হতাশ হয়ে পড়ছেন, স্থবির হয়ে পড়ছে সাংগঠনিক কার্যক্রম।

এর চেয়েও করুণ অবস্থা দলের জেলা মহিলা আওয়ামী লীগসহ অন্যান্য সহযোগী ও ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠনে। জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সম্মেলন হয় না দেড় যুগ ধরে। আহ্বায়ক দিয়ে চলছে এটি। একইভাবে চাঁদপুর শহর, সদর উপজেলা, হাইমচর, মতলব উত্তর ও দক্ষিণ উপজেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলন হচ্ছে না দীর্ঘকাল ধরে। কোনোটির এক যুগ আবার কোনোটির দেড় যুগ হয়েছে কমিটির মেয়াদ।

দীর্ঘ ১১ বছর পর ২০১৬ সালের ২৭ জানুয়ারি চাঁদপুর স্টেডিয়ামে ব্যাপক আয়োজনে জেলা আওয়ামী লীগের ত্রিবার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। ওই সম্মেলনে চাঁদপুর পৌর মেয়র নাছির উদ্দিন আহম্মেদকে নতুন সভাপতি ও আবু নঈম দুলাল পাটওয়ারীকে ফের সাধারণ সম্পাদক ঘোষণা করা হয়। ওই অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি আওয়ামী লীগের তখনকার সাধারণ সম্পাদক বর্তমান জনপ্রশাসন মন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম সম্মেলনের প্রথম পর্বে দলের সভানেত্রী শেখ হাসিনার পক্ষে ওই দুটি নাম ঘোষণা করে চলে যান।

আগের কমিটিতে সভাপতি ছিলেন ড. শামসুল হক ভূঁইয়া এমপি। সে সময় জেলা কার্যালয় সংস্কারসহ পুরো জেলায় সাংগঠনিক ভিত তৈরিতে তৃণমূল পর্যন্ত বিভিন্ন ইউনিট কমিটি করা হয়।

জানা যায়, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি নাছির উদ্দিন আহম্মেদ ও সাধারণ সম্পাদক আবু নঈম পাটওয়ারী দুলাল স্বাক্ষরিত ৭৩ সদস্যবিশিষ্ট একটি কমিটি কেন্দ্রীয় কমিটিতে জমা দেয়া হয়েছে বেশ আগে। কিন্তু ১৫ মাসেও সেটি অনুমোদিত হয়নি। জেলার পূর্ণাঙ্গ কমিটি না হওয়ায় অন্যান্য মেয়াদোত্তীর্ণ উপজেলা আওয়ামী লীগের কমিটিও করা যাচ্ছে না বলে মনে করেন জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক তাফাজ্জল হোসেন এসডু পাটওয়ারী।

জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক যুগ্ম সম্পাদক অ্যাডভোকেট মো. জহিরুল ইসলাম বলেন, জেলা আওয়ামী লীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি না থাকায় এখানে দলের সাংগঠনিক তৎপরতা মূলত এখন আইসিউতে। এর ফলে একদিকে যেমন নেতৃত্বের বিকাশ ঘটছে না তেমনি দ্বন্দ্ব, গ্রুপিং, স্বেচ্ছাচারিতা, অগঠনতান্ত্রিক প্রক্রিয়া বাড়ছে।

তবে এ কথা মানতে নারাজ জেলা আওয়ামী লীগের পর পর দুবারের সাধারণ সম্পাদক আবু নঈম পাটওয়ারী দুলাল। তার দাবি, সাংগঠনিক সব কর্মসূচি আগের মতো এখানে সক্রিয়ভাবে পালন করা হচ্ছে।

কমিটি নিয়ে হতাশ হওয়ার কিছু নেই উল্লেখ করে দুলাল বলেন,  ‘জেলা কমিটির ঘোষণা দলীয় সভানেত্রী শেখ হাসিনার অনুমোদন হয়ে আসে। আমরা পূর্ণাঙ্গ কমিটি করে প্রস্তাব কেন্দ্রে অনেক আগেই দিয়েছি। এখন পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা কেন্দ্রের বিষয়। এ নিয়ে হতাশ হওয়ার কিছু নেই। যেকোনো সময় কমিটি চলে আসবে।’

জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি নাছির উদ্দিন আহম্মেদ বলেন, পূর্ণাঙ্গ কমিটি দলীয় সভানেত্রীর অনুমোদনের অপেক্ষায় রয়েছে। এ ব্যাপারে দলের সাধারণ সম্পাদককে মৌখিকভাবে তাগিদ দিয়েছেন তিনি।

(ঢাকাটাইমস/১জুন/মোআ)

সংবাদটি শেয়ার করুন

রাজনীতি বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন ফিচার বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত