শিক্ষিকাকে শ্লীলতাহানির চেষ্টা, অবরোধ-বিক্ষোভ

নিজস্ব প্রতিবেদক,টাঙ্গাইল
 | প্রকাশিত : ০৪ জুন ২০১৭, ১৮:১৭

টাঙ্গাইলের শাহীন স্কুলের বাসাইল শাখার পরিচালক আব্দুর রশিদের বিরুদ্ধে ওই স্কুলের এক শিক্ষিকাকে শ্লীলতহানির চেষ্টার অভিযোগ উঠায় রবিবার সকালে ওই স্কুলের মেইন গেইট অবরোধ করে বিক্ষোভ করে শিক্ষার্থী, অভিভাবক ও এলাকাবাসী। এ সময় বিক্ষোভকারীদের সাথে স্কুল পক্ষের লোকজনের হাতাহাতি শুরু হলে পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। বিষয়টি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে তোলপাড় সৃষ্টি এবং এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। 

নির্যাতিত শিক্ষিকা জানান, গত ২৬ এপ্রিল রাতে অভিযুক্ত আব্দুর রশিদকে পুলিশে তাড়া করেছে বলে কৌশলে শিক্ষিকার ঘরে ঢুকে। এ সময় তাকে একাধিকবার ধর্ষণেরচেষ্টা করে ব্যর্থ হয়ে আব্দুর রশিদ তাকে শারিরিক নির্যাতন করে। বিষয়টি স্কুল কর্তৃপক্ষকে জানালে তারা বিচার না করে উল্টো ওই শিক্ষিকাকে চাকরি ছেড়ে দিতে নানা কৌশল অবলম্বন করে। কর্তৃপক্ষের চাপে গত ১ জুন দুই সন্তানের জননী বিধবা শিক্ষিকা একমাত্র অবলম্বন স্কুল চাকরি ছাড়তে বাধ্য হন বলে জানান। শ্লীলতাহানির বিষয়টি জানাজানি হলে অভিভাবক ও এলাকার লোকজন ফুঁসে উঠে। এ ঘটনায় অভিভাবক ও স্থানীয়রা স্কুলের মেইন গেইট, সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করে পরিচালক আব্দুর রশিদকে অপসারণের দাবি করে। এ সময় বিক্ষোভকারীদের সাথে স্কুল পক্ষের লোকজনের হাতাহাতির ঘটলে পুলিশের উপস্থিতিতে ঘটনা নিয়ন্ত্রণে আসে।  এ ব্যাপারে অভিযুক্ত আব্দুর রশিদ বিষয়টি সাংবাদিকদের নিকট অস্বীকার করলেও টাঙ্গাইলের শাহীন শিক্ষা পরিবারের মুখপাত্র ইমারত হোসেন খান বলেন, আমরা ওই দুজন শিক্ষককে বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত নিয়েছি।

বাসাইল উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) নাফিসা আক্তার বলেন, ওই মহিলা আমার নিকট মৌখিকভাবে অভিযোগ নিয়ে এসেছিল, আমি তাকে লিখিত অভিযোগ করতে বলেছি।

বাসাইল থানার এসআই ওমর ফারুক বলেন, বিক্ষোভ, অবরোধ ও হাতাহাতির ঘটনায় পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

উল্লেখ্য, এক বছর পূর্বেও এ স্কুলের একজন পরিচালকের বিরুদ্ধে পরকীয়ার অভিযোগ উঠেছিল এবং শেষ পর্যন্ত তা থানায় গড়িয়েছিল।

(ঢাকাটাইমস/৪জুন/এলএ)

সংবাদটি শেয়ার করুন

বাংলাদেশ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন ফিচার বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত