প্রথম দিনের টিকিট পেতে ভিড় নেই কমলাপুরে

এম গোলাম মোস্তফা, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ১২ জুন ২০১৭, ১৫:৪০

ঈদযাত্রায় ঘরমুখো মানুষের প্রথম পছন্দ ট্রেন। এজন্য বৃষ্টি উপেক্ষা করেই লাইনে দাঁড়িয়ে টিকিট নিয়েছেন। সোমবার সকালে কমলাপুরে টিকিটপ্রত্যাশীদের কিছুটা ভিড় লক্ষ্য করা গেলেও বেলা বাড়ার সাথে সাথে তা কমে আসে। সাড়ে ১২টার পর টিকিট প্রত্যাশীদের লাইন ছিল প্রায় ফাঁকা। অনেকে এসে পাঁচ দশ মিনিটের মধ্যে পেয়েছেন কাঙ্ক্ষিত টিকিট।

তবে আগামীকাল থেকে কমলাপুর আসল ভিড় দেখবে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা। সরকারি ছুটি শুরু হবে ২২ জুন থেকে। সেদিনের টিকিট দেয়া হবে আগামীকাল। এজন্য ভিড় বেশি হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

সোমবার সকাল ৮টা থেকে ঈদের অগ্রিম টিকিট বিক্রি শুরু হয়। আজ দেয়া হয়েছে ২১ জুনের টিকিট। কোনো ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা ছাড়াই টিকিট পান প্রত্যাশীরা। বিচ্ছিন্নভাবে দুই একজন এসি টিকিট না পাওয়ার অভিযোগ করলেও অন্যান্য টিকিটে ছিল না তেমন কোনো অভিযোগ। প্রথম দিনে টিকিট প্রত্যাশী কম থাকায় রেল কর্মীদের কোনো ঝক্কিঝামেলা পোহাতে হয়নি।

টিকিটের জন্য রবিবার রাত থেকে স্টেশনে লোকজন ভিড় করলেও বৃষ্টি ও বৈরী আবহাওয়ার কারণে সোমবার সকালের পর টিকিটপ্রত্যাশীদের লাইন ছোট হতে থাকে। এক পর্যায়ে লাইন আর থাকেনি। ২১ জুন অফিস খোলা থাকবে, এজন্য টিকিটের চাহিদা কম বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।

ঈদে অগ্রিম টিকিট নিতে এসেছেন আরিফুর রহমান। তিনি একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা। মাত্র সাত মিনিট লাইনে দাঁড়িয়েই তিনি টিকিট পেয়ে যান। ঢাকাটাইমসের সঙ্গে আলাপকালে আরিফুর রহমান বলেন, ‘কোনো ধরনের ঝামেলা ছাড়াই টিকিট পেয়ে গেলাম। অন্যবার যেভাবে টিকিটের জন্য যুদ্ধ করা লাগে এবার তেমন কিছুই হয়নি। খুব সহজেই টিকিট পেয়ে গেলাম।’

ঢাকা কলেজের ছাত্রী তিশা জামালপুরের টিকিট নিতে এসেছেন। ঢাকাটাইমসকে তিনি বলেন, ‘অন্যবারের চেয়ে এবার অনেক সহজে টিকিট পেয়ে গেলাম। লাইনে দাঁড়িয়ে থাকতে হয়নি বেশিক্ষণ। ভালো লাগছে তেমন ঝামেলা ছাড়াই টিকিট পেয়ে গেলাম। এবার ঈদে অন্তত আরামে যেতে পারবো।’

কমলাপুর স্টেশনের সহকারী কাউন্টার অফিসার শফিকুল ঢাকাটাইমসকে বলেন, ‘আমাদের অনেক টিকিট এখনো রয়েছে, আজ চাপ তেমন একটা নেই। কারণ ২১ তারিখ সরকারি সব অফিস খোলা।’

কমলাপুর স্টেশন ম্যানেজার সিতাংশু চক্রবর্তী ঢাকাটাইমসকে বলেন, ‘আজ সকাল থেকে অনেক সুন্দরভাবে টিকিট বিক্রি শুরু হয়েছে। সাধারণ মানুষ স্বতস্ফূর্তভাবে লা্ইনে দাঁড়িয়ে টিকিট নিচ্ছে। আমাদের একযোগে ২৩টি কাউন্টারে টিকিট দেয়া হচ্ছে। সকালে টিকিটপ্রত্যাশীদের অনেক ভিড় ছিল, কিন্তু এখন লাইনে লোক নাই বললেই চলে।’

সিতাংশু বলেন, ‘ঈদের অগ্রিম টিকিট প্রতিদিন ২২ হাজার ১২২টি টিকিট দেয়া হচ্ছে। কোনো ব্যত্যয় ছাড়াই সকাল থেকে টিকিট দেয়া হচ্ছে। কোনো ধরনের ভোগান্তি ছাড়া্ই নির্ভেজালভাবে মানুষ টিকিট কাটছে।’

অন্যান্য টিকিটের ব্যাপারে মানুষের কোনো অভিযোগ না থাকলেও এসি টিকেট নিয়ে কেউ কেউ অভিযোগ করছে। এ ব্যাপারে স্টেশন ম্যানেজার সিতাংশু চক্রবর্তীর কাছে জানতে চাইলে তিনি ঢাকাটাইমসকে বলেন, ‘আমাদের এসি সিট কম, তাই বিভিন্ন স্টেশনে বরাদ্দও কম থাকে। দুই-একটা করে বিভিন্ন স্টেশনেই এসি সিট দেয়া হয়। সুতরাং এসি টিকিট কম থাকায় সবাই পাবে না।’

প্রথম দিন বিক্রি হচ্ছে ২১ জুনের টিকিট। আগামীকাল মঙ্গলবার বিক্রি হবে ২২ জুনের টিকিট, ১৪ জুন ২৩ জুনের, ১৫ জুন ২৪ জুনের, ১৬ জুন ২৫ জুনের টিকিট।

এর আগে সকালে কমলাপুর রেল স্টেশন পরিদর্শনে এসে রেলের মহাপরিচালক আমজাদ হোসেন সাংবাদিকদের বলেন, ‘ঈদে ২৫ ভাগ টিকিট অনলাইনে বিক্রি হচ্ছে, পাঁচ ভাগ যাচ্ছে ভিআইপিদের জন্য, পাঁচ ভাগ কর্মকর্তা-কর্মচারীদের কোটা। এ কারণে একটি ট্রেনের ৬৫ ভাগ টিকিট কাউন্টারের যাত্রীদের জন্য বরাদ্দ থাকে।’

চাঁদ দেখাসাপেক্ষে আগামী ২৬ জুন সোমবার বা ২৭ জুন মঙ্গলবার পালিত হবে ঈদুল ফিতর। ঈদের আগে শেষ কর্মদিবস ২২ জুন বৃহস্পতিবার। এর পরের দুই দিন সাপ্তাহিক ছুটি। তাই আগাম টিকিটের জন্য মঙ্গলবার ভিড় বেশি হবে বলে ধারণা করছেন রেলকর্মীরা।

(ঢাকাটাইমস/১২জুন/জিএম/জেবি)

সংবাদটি শেয়ার করুন

জাতীয় বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন ফিচার বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত