রাঙ্গামাটিতে পাহাড় ধস: মৃতের সংখ্যা বেড়ে ১৩

রাঙ্গামাটি প্রতিনিধি, ঢাকাটাইমস
| আপডেট : ১৩ জুন ২০১৭, ১১:৪১ | প্রকাশিত : ১৩ জুন ২০১৭, ১১:৩৩

রাঙ্গামাটি জেলার বিভিন্ন স্থানে পাহাড় ধসে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ১৩ জনে দাঁড়িয়েছে। ভারী বর্ষণে   শহর এবং আশেপাশের এলাকায় পাহাড় ধসে এ ঘটনা ঘটেছে। মৃতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

সোমবার রাত থেকে টানা বর্ষণে শহরের বেদবেদি এলাকায় দুই পরিবারের পাঁচজনসহ ছয়জন, রিজার্ভ বাজার এলাকায় দুই পরিবারের চারজন, জেলা শহরের পুলিশ লাইন হাসপাতাল এলাকায় একজন এবং কাপ্তাই উপজেলার নতুন বাজার এলাকায় দুজন মারা গেছে।

রাঙ্গামাটি সদর হাসপাতালের সিভিল সার্জন ডা. শহীদ তালুকদার ঢাকাটাইমসকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

নিহতরা হলেন- রুমা আক্তার, নুরি আক্তার, জোহরা বেগম, সোনালি চাকমা, অমিত চাকমা, আয়ুস মল্লিক, লিটন মল্লিক, চুমকি দাস, মাহিমা আক্তার, মো. বাবু।  অন্য তিনজনের পরিচয় এখনো জানা যায়নি।

ঘটনাস্থল থেকে আমাদের প্রতিনিধি জানিয়েছেন, সোমবার থেকে রাঙামাটিতে টানা বর্ষণ শুরু হয়। এতে পাহাড়ের মাটি নরম হয়ে ধসে পড়ে। ধসে পড়া মাটির নিচে এখনও অনেকে চাপা পড়ে আছেন। তাদের উদ্ধারে অভিযান চালাচ্ছে পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা। তবে বৃষ্টি কারণে উদ্ধার কাজ চালাতে তাদের বেগ পেতে হচ্ছে। এছাড়া জেলায় বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন রয়েছে। সড়ক যোগাযোগ বন্ধ রয়েছে। এছাড়া মোবাইলের নেটওয়ার্ক পাওয়া যাচ্ছে না।

বান্দরবানে চার জনের মৃত্যু

বান্দরবানে পাহাড় ধসে বিভিন্ন স্থানে শিশুসহ চারজন নিহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। এছাড়া দুজন নিখোঁজ রয়েছেন। ভারী বর্ষণে সোমবার দিবাগত রাতে জেলার কালাঘাটা, আগাপাড়া ও জাইল্লাপাড়ায় এ ঘটনা ঘটে।

বান্দরবান ফায়ার সার্ভিসের কর্মকর্তা স্বপন কুমার ঘোষ গণমাধ্যমকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

নিহতরা হলেন - শহরের আগাপাড়ার একই পরিবারের শুভ বড়ুয়া, মিঠু বড়ুয়া, লতা বড়ুয়া ও কালাঘাটা কবরস্থান এলাকার রেবি ত্রিপুরা।

সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা রফিক উল্লাহ জানান, সোমবার রাতের এসব দুর্ঘটনায় আরও অন্তত তিনজন আহত হয়েছেন। নিখোঁজ রয়েছেন - জাইল্লাপাড়ায় একই পরিবারের মা কামরুন্নাহার ও মেয়ে সুফিয়া ।

চট্টগ্রামে পাহাড় ধসে শিশুসহ নিহত

চট্টগ্রামের চন্দনাইশে পাহাড় ধসে শিশুসহ চারজন নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন দুজন। ভারী বর্ষণে সোমবার রাতে উপজেলার ধোপাছড়ি ইউনিয়নে এ ঘটনা ঘটে।

স্থানীয়রা জানান, পাহাড়ের নীচে আসগর আলীর কাঁচা ঘরের ওপর মাটি ধসে পড়ে। এ ঘটনায় আজগর আলীর শিশু মেয়ে মাহিয়া মাটির নিচে চাপা পড়ে মারা যায়।

ধোপাছড়ি ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান আবু ইউছুপ চৌধুরী বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

এ ছাড়া ছনবুনিয়া উপজাতিপাড়ায় একটি ঘরের ওপর পাহাড় ধসে একই পরিবারের দুই শিশু ও এক গৃহবধূর মৃত্যু হয়েছে। এরা হলো- কেউচা কেয়াং, মেমাউ কেয়াং এবং গৃহবধূ মোকাইং কেয়াং। এ ঘটনায় ওই পরিবারের সানুউ কেয়াং ও বেলাউ কেয়াং নামের আরো দুজন আহত হয়েছেন।

তাদের বান্দরবান হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে বলে জানিয়েছেন সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান আবু ইউছুপ চৌধুরী।

(ঢাকাটাইমস/১৩জুন/প্রতিনিধি/জেডএ)

সংবাদটি শেয়ার করুন

বাংলাদেশ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন ফিচার বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত