তারানার কল্যাণে প্রতিবন্ধী রাজিবের চাকরি

আফরোজ ইসলাম, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ১৫ জুন ২০১৭, ১৭:৫৯

ডাক ও টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী তারান হালিমের ফেসবুক পেইজে চাকরি চেয়ে আবেদন করেছিলেন রাজবাড়ীর দুই পায়ে শক্তি না থাকা তরুণ মসিউল আজম রাজিব। কাজও হয়েছে তাতে। পাংশা সরকারি কলেজ থেকে মাস্টার্স পাস করা তরুণের জন্য চাকরির ব্যবস্থাও করেছেন প্রতিমন্ত্রী।

তাই তারানা হালিমের প্রতি কৃতজ্ঞতার শেষ নেই রাজিবের। প্রতিমন্ত্রী ও তার এপিএসের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়ে পোস্ট দিয়েছেন নিজের ফেসবুকে পাতায়। আর তার পোস্ট কপি করে নিজের ফেসবুক পাতায় দিয়েছেন স্বয়ং তারানা হালিম নিজে।

তারানা হালিম তার এপিএস জয়দেভ নন্দীর সাহায্যে ডাক বিভাগে পোস্টাল অপারেটর পদে চাকরির ব্যবস্থা করেছেন রাজিবের। রাজিব কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে তার ফেসবুকে লিখেন, তার মা, ভাই ও তার জীবনের সবচেয়ে বড় ইচ্ছা পূরণ হয়েছে। তারানা হালিম ও তার এপিএস এর প্রতি সারাজীবন কৃতজ্ঞ থাকবেন উল্লেখ করে তাদের ধন্যবাদ জানান। স্ট্যাটাসের সাথে প্রতিমন্ত্রীর সাথে তোলা তার ছবি ও নিয়োগপত্রের ছবিও দিয়েছেন রাজিব।

তারানা হালিম তার ফেসবুক পেইজে লিখেছেন, ‘অদম্য ইচ্ছাশক্তির ওপর ভর করে স্কুল-কলেজের গণ্ডি পেরিয়ে মাস্টার্স পাস করা শারীরিক প্রতিবন্ধী রাজিব তার ফেসবুক পেজে চাকরি চেয়েছিলো। তার এই ছোট্ট ইচ্ছে পূরণ করতে পেরে তার খুব ভাল লাগছে। যাদের জন্য বলার কেউ নাই, তাদের সবার জন্য কিছু করতে পারার ইচ্ছাও ব্যক্ত করেন তার স্ট্যাটাসে।’

ঢাকাটাইমস পাঠকদের জন্য তারানা হালিমের সম্পূর্ণ স্ট্যাটাসটি তুলে দেওয়া হলো, ‘আমার ফেসবুক পেজে শারীরিক প্রতিবন্ধী এক ভাই চাকরি চেয়েছিলেন। ছেলেটির দুটি পা অচল। দারিদ্র্যের কারণে হুইল চেয়ার কেনা হয়নি কোনো দিন। পথ চলতে হয় হামাগুড়ি দিয়ে। তাই বলে শারীরিক প্রতিবন্ধকতা তাকে দমাতে পারেনি। অদম্য ইচ্ছাশক্তির ওপর ভর করে স্কুল-কলেজের গণ্ডি পেরিয়ে মাস্টার্স পাস করেছেন।

ছেলেটির বাবা নাই, তার পরিবার চালানোরও কেউ নাই। পদ্মার গর্ভে বিলীন হয়েছে তার বাড়ি। তার চাকরিটা দিতে পেরেছি। এই একটি চাকরি তাকে জীবনে বেঁচে থাকার নতুন অর্থ এনে দেবে বলে আমি বিশ্বাস করি।’

তারানা লেখেন, ‘নতুন স্বপ্ন দেখার মনোবল দেবে। তার এই ছোট্ট ইচ্ছে পূরণ করতে পেরে আমার খুব ভাল লাগছে। সেই সাথে মনের মাঝে কষ্টের কাঁটাও খচখচ করছে- যাদের জন্য বলার কেউ নাই, তাদের সবার জন্য যদি কিছু করতে পারতাম!।

‘সবাই আমার জন্য দোয়া করবেন; যাদের বলার কেউ নেই, তাদের জন্য কিছু করার তৌফিক যেন আল্লাহ আমাকে দেন’-লিখে শেষ করেন তারানা।

(ঢাকাটাইমস/১৫মে/এআই/এজেড)

সংবাদটি শেয়ার করুন

জাতীয় বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত