ভৈরবে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের বৃক্ষরোপন র্কমসূচি

রাজীবুল হাসান, ভৈরব (কিশোরগঞ্জ) প্রতিনিধি
 | প্রকাশিত : ১৬ জুলাই ২০১৭, ২০:৫১

“নির্মল বায়ু, শুদ্ধ প্রাণ-বেশি করে গাছ লাগান”- এই স্লোগানকে ধারণ করে মাসব্যাপী বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি শুরু করেছে ভৈরবের বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র সংসদ (বিছাস)। দেশের বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ুয়া ভৈরবের শিক্ষার্থীদের সামাজিক সংগঠন এটি।

রবিবার স্থানীয় সরকারি জিল্লুর রহমান মহিলা কলেজ,  রফিকুল ইসলাম মহিলা অনার্স ও হাজী আসমত কলেজ চত্বরে বৃক্ষরোপনের মাধ্যমে এই কর্মসূচি শুরু করা হয়। চলবে পুরো এক মাস। নানাজাতের ফলদ, বনজ ও ঔষধি গাছের চারা রোপণ করা হবে ভৈরবের সকল বিশ্ববিদ্যালয়, কলেজ ও মাধ্যমিক পর্যায়ের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে।

আপাতত এক হাজার গাছের তারা সংগ্রহ করেছেন জানিয়ে সংগঠনটির সভাপতি পাপিয়া ইসলাম রুপু ও সাধারণ সম্পাদক তরিকুল ইসলাম রাহিম জানান, সবগুলো শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ক্যাম্পাসকে তাদের বৃক্ষরোপন কর্মসূচির আওতায় আনতে গিয়ে যদি আরও চারার প্রয়োজন হয়, তবে তারা নতুন করে চারা সংগ্রহ করবেন।

কর্মসূচির আওতায় আজ গাছের চারা রোপন করা হয় সরকারি জিল্লুর রহমান মহিলা কলেজ ক্যাম্পাসে। এ সময় কলেজ অধ্যক্ষ অধ্যাপক জয়নাল আবেদীনসহ কলেজের বিভিন্ন বিভাগের বিভাগীয় প্রধানরা উপস্থিত ছিলেন।

এ সময় সংক্ষিপ্ত আলোচনায় অংশ নেন সংগঠনটির সহ-সভাপতি রাকিব হোসাইন, রায়হান রহমান দ্বীপ, রাজিব আহমেদ, সদস্য আবীর, স্নিগ্ধা, জায়েদুল, নাইম, সজীব ও জাহিদ হাসান প্রমুখ।

কলেজের অধ্যক্ষ তার প্রতিক্রিয়ায় বলেন, দেশের বর্তমান প্রেক্ষাপটে বনায়ন একটি গুরুত্বপূর্ণ কর্মসূচি। বিশ্বের তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণে বনায়নের বিকল্প নেই। তাই বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র সংসদের এই মহৎ কর্মসূচি সাধুবাদ পাওয়ার যোগ্য।

পরে রফিকুল ইসলাম মহিলা অনার্স কলেজে গাছের চারা রোপন করা হয়। কলেজের প্রতিষ্ঠাতা রফিকুল ইসলাম, অধ্যক্ষ শরীফ আহমেদ, সহকারি অধ্যাপক সত্যজিৎ দাস ধ্রুব, নিরাপদ সড়ক চাই, ভৈরব শাখার সাধারণ সম্পাদক আলাল উদ্দিনসহ শিক্ষক-কর্মচারীরা উপস্থিত ছিলেন।

এ সময় কলেজ চত্বরে অনুষ্ঠিত আলোচনায় অংশ নেন কর্মসূচির আহ্বায়ক ও সংগঠনের সহ-সাধারণ সম্পাদক মাহমুদুর রহমান উদয়, ছাত্রী বিষয়ক সম্পাদক সুমাইয়া বিনতে মোস্তফা, সদস্য রিদম, আশিক, পিয়াল, ইমরান, রনি, সৌরভ, সোহেল, সাথী ও কুমি প্রমুখ।

কলেজ প্রতিষ্ঠাতা রফিকুল ইসলাম জানান, বৃক্ষরোপন করেই থেমে থাকলে চলবে না। পরে খোঁজ রাখতে হবে, রোপন করা গাছের চারাটি বেড়ে ওঠছে নাকি রোদে শুকিয়ে মিশে গেছে মাটির সাথে। এ সময় তিনি উদ্যোক্তাদের অভিনন্দন জানান।

কলেজ অধ্যক্ষ শরীফ আহমেদ বলেন, তরুণদের বিপথগামীতার এই সময়ে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র সংসদের কর্মীরা সবুজ পৃথিবীর স্বপ্ন নিয়ে যে কর্মসূচী পালন করছে, তা সত্যিই প্রশংসনীয়। তরুণদের তারুণ্যই পারে নতুনের জন্ম দিতে। এমন আশা পোষণ করে তিনি বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র সংসদের কাছে ভৈরববাসীর প্রত্যাশা অনেক বেশি। তারা সেই প্রত্যাশা পূরণে কাজ করবে বলেও তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

একইদিন বিকেলে ভৈরবের ঐতিহ্যবাহী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান হাজী আসমত কলেজ ক্যাম্পাসেও গাছের চারা রোপন করে সংগঠনটি। কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ আ ক ম মোবারক আলীসহ কলেজের বেশ কয়েকজন শিক্ষক এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

উদ্যোক্তা সংগঠনের সভাপতি পাপিয়া ইসলাম রুপু বলেন, ‘বৃক্ষ আমাদের মমতাময়ী মায়ের মতো আগলে রাখে। প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবেলা থেকে শুরু করে শ্বাস-প্রশ্বাস গ্রহণে প্রয়োজনীয় অক্সিজেন আমরা পেয়ে থাকি এই বৃক্ষ থেকে। এ ছাড়াও পুষ্টি থেকে শুরু করে রোগ নিরাময়ের প্রয়োজনীয় ওষুধের কাঁচা মালের উৎস এই বৃক্ষ। গাছের ফুল, ফল আর শীতল ছায়া আমাদের জীবনের অবিচ্ছেদ্য অংশ। সেই গুরুত্বপূর্ণ উপাদানের প্রয়োজনীয়তা থেকেই আমরা এই কর্মসূচি হাতে নিয়েছি।’

জলবায়ু পরিবর্তনের কুফল থেকে আমাদের চারপাশকে রক্ষায় গাছের বিকল্প শুধুই গাছ-এ কথা জানিয়ে সংগঠনটির সাধারণ সম্পাদক তরিকুল ইসলাম রাহিম বলেন, ‘১৯৮২ সালে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র সংসদ স্থাপনের পর থেকে সংগঠনটি নানাবিধ সমাজ উন্নয়নমূলক কাজ করে যাচ্ছে। তবে বর্তমান পরিচালনা পরিষদ মনে করছে বৃক্ষরোপন এই মুহূর্তে একটি অগ্রাধিকার কাজ। তাই আমরা মাসব্যাপী এই কর্মসূচি হাতে নিয়েছি।’

ঢাকাটাইমস/১৭জুলাই/প্রতিনিধি/ডব্লিউবি

সংবাদটি শেয়ার করুন

বাংলাদেশ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন ফিচার বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত