চীনের গণমাধ্যমে ভারতের ‘সাত পাপ’

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, ঢাকাটাইমস
| আপডেট : ১৮ আগস্ট ২০১৭, ১৩:৪৫ | প্রকাশিত : ১৮ আগস্ট ২০১৭, ১৩:৪১

ভারত ও চীনের মধ্যে ডোকালাম ইস্যুতে যখন সীমান্ত বিরোধ চলছে তখন চীনা গণমাধ্যমে ভারতের বিরুদ্ধে ‘সাতটি পাপ’ করার অভিযোগ করা হয়েছে।    ‘সেভেন সিনস অব ইন্ডিয়া' বা 'ভারতের সাত পাপ' শীর্ষক এক ভিডিও চিত্রে টেলিভিশন তারকা ও অভিনেত্রী ডিয়ের ওয়াং ডোকালামকে কেন্দ্র করে ভারতের বিরুদ্ধে চীনের অভিযোগের কথা তুলে ধরেছেন।

চীনা সংবাদ সংস্থা শিনহুয়া কর্তৃক বুধবার প্রকাশিত ওই ভিডিও চিত্রে ডোকালাম ইস্যুকে কেন্দ্র করে একটি চ্যাট শো অনুষ্ঠানে পরিবেশন করা হয়েছে।

ডিয়ের ওয়াংয়ের অভিযোগ, ভারত আন্তর্জাতিক সমস্ত আইন লঙ্ঘন করছে এবং নিজেদের বেআইনি পদক্ষেপকে আড়াল করতে নানা ধরনের অজুহাত তৈরি করছে।

ওই ভিডিওতে ভারতের বিরুদ্ধে সাতটি পাপ করার অভিযোগ করে বলা হয়েছে-

  •  ১৮ জুন ভারতীয় সেনারা অবৈধভাবে হাতিয়ার এবং বুলডোজার নিয়ে চীনের সীমান্তে অনুপ্রবেশ করেছে।
  •  ভারতীয় সেনারা দরজায় কড়া নাড়া না দিয়ে গোপনে চীনের এলাকায় ঢুকেছে।
  •   ভারত আন্তর্জাতিক নিয়ম লঙ্ঘন করেছে।
  •  ওই বিষয়ে ভারত নিজেকে সঠিক বলছে এবং চীন সড়ক তৈরি করছিল সেজন্য তারা এরকম করেছে বলে দাবি করেছে।
  •  ভারত ওই বিষয়ে সম্পূর্ণ মিথ্যা কথা বলছে।
  •   ভুটানের নিরাপত্তার নামে ভারত চীনের এলাকায় অনুপ্রবেশ করেছে।
  •  ভারত ভুটানকে ঢাল হিসেবে ব্যবহার করছে।

 

এদিকে, চীনা সরকারি গণমাধ্যম শিনহুয়ায় ভুয়া ভিডিও দেখিয়ে ভারত ও ভারতীয় সেনাদের উপহাস করা হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

শিনহুয়া তাদের ইংরেজি ভাষার টুইটার হ্যান্ডেলে ৩ মিনিটের ভিডিও বার্তায় ভারতীয় সেনাবাহিনী নিয়ে কার্যত উপহাস করা হয়েছে। এতে ভারতের বিরুদ্ধে সরাসরি অনুপ্রবেশ, প্রতিবেশী রাষ্ট্রের ভূখণ্ডে ঢুকে ভাঙচুর ও আন্তর্জাতিক আইন ভঙ্গের অভিযোগ করা হয়েছে।

ভারতীয় কর্মকর্তারা ওই ভিডিওকে বিশেষ গুরুত্ব না দিলেও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভারতীয় নেটিজেনরা ওই ভিডিও’র বিরুদ্ধে ক্ষোভে ফেটে পড়েছেন। 

অন্যদিকে, ডোকালাম ইস্যুতে কূটনৈতিক পথে ভারত-চীন সীমান্ত সমস্যার সমাধান না হলে সেখানে অক্টোবর পর্যন্ত দু’দেশের সেনাবাহিনী একইভাবে দাঁড়িয়ে থাকতে পারে বলে শোনা যাচ্ছে। প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় সূত্রে প্রকাশ, ওই সময় পর্যাপ্ত রসদ, গোলা-বারুদ এবং বাড়তি সেনা মজুত রাখা হবে।

পশ্চিমা গণমাধ্যমের একাংশের মতে, ভারত ও চীনের মধ্যে যে কোনো মুহূর্তে যুদ্ধ  বাধতে পারে।

এদিকে, বুধবার চীনের সামরিক বিশেষজ্ঞ ও চীনা নৌবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত অ্যাডমিরাল শু গুয়াংয়ুকে উদ্ধৃত করে চীনা গণমাধ্যম গ্লোবাল টাইমসে প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ভারত যদি চীনা ভূখণ্ডে বাহিনী রেখে দেয়, তাহলে চীনের পররাষ্ট্র ও প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় ভারতকে সম্ভবত সেপ্টেম্বরের আগেই চূড়ান্ত বার্তা দেবে।

ওই বার্তায় ভারত ও বাকি বিশ্বকে স্পষ্ট বলা হবে, বাহিনী প্রত্যাহার করার জন্য ভারতকে সময়সীমা বেধে দিয়ে আল্টিমেটাম দেয়া হচ্ছে।

গুয়াংয়ুর হুঁশিয়ারি, ভারত যদি নির্ধারিত সময়সীমার মধ্যে বাহিনী প্রত্যাহার না করে চীনা ভূখণ্ডে অবস্থান করে তাহলে পরবর্তী প্রতিক্রিয়ার জন্য ভারতই দায়ী থাকবে। এ প্রসঙ্গে, সামরিক বিচারে চীন ভারতের চেয়ে অনেক বেশি শক্তিশালী এবং ভারতের কয়েক ডজন জওয়ান ও একটি বুলডোজার চীনের পিপলস লিবারেশন আর্মির কাছে কিছুই নয় বলে মন্তব্য করা হয়েছে।

সূত্র: পার্স টুডে

(ঢাকাটাইমস/১৮আগস্ট/এসআই)

সংবাদটি শেয়ার করুন

আন্তর্জাতিক বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন ফিচার বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত