নির্বাচন কমিশনের সংলাপ ‘আইওয়াশ’: মওদুদ

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ১৯ আগস্ট ২০১৭, ১৯:১৯

আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে নির্বাচন কমিশন যে সংলাপের আয়োজন করেছে তাকে আইওয়াশ বা লোক দেখানো বলে মনে করেন বিএনপি নেতা মওদুদ আহমদ। এই কমিশন আওয়ামী লীগ দ্বারা নির্ধারিত দাবি করে তিনি বলেন, তারা সুষ্ঠু নির্বাচন করতে পারবে না।

শনিবার জাতীয় প্রেসক্লাবের ভিআইপি লাউঞ্জে এক আলোচনা সভায় বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ও সাবেক আইনমন্ত্রী মওদুদ এসব কথা বলেন।

একাদশ সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে গত ৩১ জুলাই সংলাপ শুরু করেছে নির্বাচন কমিশন। সেদিন নাগরিক সমাজের সদস্যদের সঙ্গে কথা বলে ইসি। এরপর ১৬ এবং ১৭ আগস্ট ইসি সংলাপ করে গণমাধ্যম কর্মীদের সঙ্গে। আগামী ২৪ আগস্ট থেকে সংলাপ শুরু হবে রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে, যেখানে বিএনপিও অংশ নেবে বলে আশা করছে ইসি।

নির্বাচন কমিশন সংলাপকে ‘আইওয়াশ’ দাবি করে মওদুদ বলেন, ‘আমরা বারবার বলছি এই নির্বাচন কমিশন নিরপেক্ষ নয়। প্রধান নির্বাচন কমিশনারের (সিইসি) দলীয় পরিচয় রয়েছে। আওয়ামী লীগের দ্বারা নির্ধারিত কমিশন দিয়ে নির্বাচন সুষ্ঠু হবে না।’

তিনটি শর্ত পূরণ করলেই একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ হবে বলে মনে করেন মওদুদ। শর্তগুলো হলো- এক. নির্বাচনের সময় একটি নিরপেক্ষ সহায়ক সরকার থাকতে হবে, যাদের কোনো স্বার্থ থাকবে না এবং যাদের অধীনে সব দল সমান সুযোগ পাবে। দুই. এই সহায়ক সরকারকে সহায়তা দেওয়ার জন্য একটি শক্তিশালী নির্বাচন কমিশন থাকতে হবে। এবং তিন. জনগণের ভোট দেওয়ার নিশ্চয়তায় সেনাবাহিনীকে প্রতিটি ভোটকেন্দ্রর নিরাপত্তার দায়িত্ব দিতে হবে।

‘লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড এবং নির্বাচন কমিশনের ভূমিকা’ শীর্ষক এই আলোচনা সভার আয়োজন করে বাংলাদেশ ডেমোক্রেটিক কাউন্সিল (বিডিসি)।

মওদুদ বলেন, এই শর্তগুলো মানলেই লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড (সকল দলের সমান সুযোগ) নিশ্চিত হবে। সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ নির্বাচন করতে হলে এখন থেকেই লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড তৈরি করতে হবে।

বিএনপি নেতা বলেন, ‘কেবল নির্বাচনের দুই মাস আগে থেকে লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড তৈরি করলে নির্বাচন সুষ্ঠু হবে না। কারণ নির্বাচনের পরিবেশ তৈরি করতে অনেক সময় লাগে। আমরাও সভা-সমাবেশ করতে চাই, ধানের শীষে ভোট চাওয়ার অধিকার চাই।’

মওদুদ বলেন, ‘২০১৪ সালে কোনো নির্বাচন হয়নি, সেখানে ১৫৪টি আসনে নির্বাচন ছাড়াই এমপি নির্বাচিত হয়েছে। স্বয়ং প্রধানমন্ত্রীও নিজের ভোট দেননি।’

বিএনপির এই সিনিয়র নেতা বলেন, ‘আজকের এই সংসদ প্রকৃত অর্থে অকার্যকর, যাদের জনগণের কাছে কোনো জবাবদিহিতা নেই। এই সরকার ক্ষমতায় থাকতে চায়, তারা কোনো বিরোধী দল চায় না। সত্যিকার অর্থে দেশে গণতন্ত্র ফিরে আসুক তারা চায় না। কাজেই যে লেভেল প্লেয়িং ফিল্ডের কথা বলা হচ্ছে তা কখনো তারা মানবে না।’

সাবেক এই আইনমন্ত্রী আরও বলেন, দেশে প্রতিদিন গড়ে তিনজন নারী ধর্ষিত হচ্ছেন। প্রতিদিন ১২-১৫ জন খুন হচ্ছেন। দেশে সুষ্ঠু রাজনৈতিক পরিবেশ বিরাজ করলে আজকে দেশ এতো অন্যায়, অপরাধ থাকতো না। নৈরাজ্যকর অবস্থা তৈরি হতো না।’

সংগঠনের সভাপতি এমএ হালিমের সভাপতিত্বে এতে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বিএনপি চেয়াপারসনের উপদেষ্টা সুকমল বড়ুয়া, কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান সৈয়দ মুহাম্মদ ইব্রাহিম প্রমুখ।

(ঢাকাটাইমস/১৯আগস্ট/বিইউ/ডব্লিউবি)

সংবাদটি শেয়ার করুন

রাজনীতি বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন ফিচার বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত