ঢাকা-৭

আ.লীগের মনোনয়ন দৌড়ে এগিয়ে আছেন কমিশনার হুমায়ুন

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
| আপডেট : ০৫ অক্টোবর ২০১৭, ২০:৪৪ | প্রকাশিত : ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৭, ০৮:০৮

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের বাকি আর দেড় বছর। সারাদেশে ইতোমধ্যে শুরু হয়ে গেছে জাতীয় নির্বাচনের ঢামাঢোল। পদপ্রত্যাশীরা দৌঁড়ঝাপ শুরু করেছেন বিভিন্ন মহলে। নিজ নিজ দলের মনোনয়ন পেতে শুরু করেছেন লবিং-তদবির। প্রার্থীরা বিভিন্নভাবে শুরু করেছেন প্রচার-প্রচারণা।

রাজধানী ঢাকাতে বেশ জমজমাট হয়ে উঠেছে নির্বাচনি প্রচারণা। ঢাকা-৭ আসনেও বিভিন্ন প্রার্থীরা তাদের নির্বাচনি প্রচারণা শুরু করেছেন। এদের মধ্যে অন্যতম আওয়ামী লীগের ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সহ-সভাপতি মো. হুমায়ুন কবির। ঢাকা-৭ আসন থেকে আ.লীগের মনোনয়ন চাইবেন তিনি। তিনি ইতোমধ্যে নির্বাচনি এলাকায় ব্যাপক গণসংযোগ শুরু করেছেন। মানুষের কাছে নিজের প্রার্থী হওয়ার বিষয়টি তুলে ধরছেন। ঢাকা-৭ আসনের লালবাগ-চকবাজার এলাকায় পোস্টার, ব্যানার সাঁটিয়ে নির্বাচনি মাঠে নিজের অবস্থানের জানান দিচ্ছেন।

আওয়ামী লীগের ঢাকা মহানগর দক্ষিণের এই সহ-সভাপতি দীর্ঘ ২৩ বছর ধরে লালবাগের কাউন্সিলরের দায়িত্ব পালন করছেন। দীর্ঘদিনের এই কাউন্সিলর ২৪ বছর বৃহত্তর লালবাগ-চকবাজার-কামরাঙ্গীরচর-হাজারীবাগ থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্বে ছিলেন।

এলাকায় জনপ্রিয় এই কাউন্সিলর বিএনপির নেতৃত্বাধীন চারদলীয়্ ঐক্যজোট ক্ষমতায় থাকাকালেও বিপুল ভোটে কমিশনার নির্বাচিত হন। এলাকায় নির্বাচনে তিনি অপ্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী হিসেবে বেশ পরিচিত। দীর্ঘদিন আওয়ামী লীগের রাজনীতি করা হুমায়ুন কবির বর্তমানে জাতীয় নির্বাচনের জন্য নিজেকে তৈরি করছেন।

পুরান ঢাকার বাসিন্দাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, তারা আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ‘আদি ঢাকাইয়া’ প্রার্থী চান। সেক্ষেত্রে হুমায়ুন কবিরই তাদের পছন্দের তালিকায় শীর্ষে রয়েছেন। কারণ তিনি আদি ঢাকাইয়া। শুধু ঢাকাইয়াই নন তিনি, শিক্ষিত ও সর্বজনগ্রহণযোগ্য প্রার্থী হিসেবে তার বেশ কদর রয়েছে পুরান ঢাকার বাসিন্দাদের কাছে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ফাইন্যান্স বিভাগ থেকে অনার্স এবং মাস্টার্স ডিগ্রিধারী হুমায়ুন কবিরের পুরো পরিবারই উচ্চশিক্ষিত। তার একমাত্র ছেলে রেজাউল কবির ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যবসা প্রশাসন ইনস্টিটিউটের সহকারী অধ্যাপক। তার দুই মেয়ে মেডিকেল কলেজের ছাত্রী। পুরান ঢাকার মানুষের কাছে তার পরিবার নিয়ে বেশ ইতিবাচক ভাবমূর্তি রয়েছে।   

বঙ্গবন্ধুর পুত্র শেখ কামালের হাত ধরেই ছাত্রলীগের রাজনীতি শুরু করেন হুমায়ুন কবির। মনোনয়ন পাওয়ার বিষয়ে বেশ আত্মবিশ্বাসী হুমায়ুন কবির বলেন, ‘ছাত্রজীবনে ছাত্রলীগ দিয়ে আমার রাজনৈতিক জীবনের শুরু। আমাকে ছাত্রলীগের রাজনীতির হাতে খড়ি দিয়েছেন শেখ কামাল। ১৯৬৮ সালে ঢাকা কলেজে পড়াকালীন ছাত্রলীগের সক্রিয় কর্মী ছিলাম। সেই থেকে শুরু। আজও আছি। বঙ্গবন্ধু-কন্যা আমার দীর্ঘ রাজনৈতিক ক্যারিয়ার ও কর্মজীবন দেখলে আমাকে বিমুখ করবেন বলে মনে হয় না।’

অপর এক প্রশ্নের জবাবে হুমায়ুন কবির বলেন, নির্বাচনী মাঠে আমি আছি। তবে আগামী নির্বাচনে দল যাকেই মনোনয়ন দেবে, তার জন্য নিরলসভাবে কাজ করে যাব।

হুমায়ুন কবির জানান, সম্প্রতি পুরান ঢাকার রাস্তা প্রশস্তকরণ নিয়ে ঢাকা দক্ষিণের মেয়র সাঈদ খোকন, ঢাকা-১০ আসনের সাংসদ ফজলে নূর তাপস ও বিজিবির মহাপরিচালক মেজর জেনারেল আবুল হোসেনের সঙ্গে ফলপ্রসু আলোচনা হয়েছে।

এক প্রশ্নের জবাবে এই কাউন্সিলর জানান, পুরান ঢাকার সবচেয়ে বড় সমস্যা সরু রাস্তা ও যানজট। এসব নিয়ে কাজ করতে হলে নীতিনির্ধারণী পর্যায়ে থাকা জরুরি। আমাকে যদি এই আসনের মনোনয়ন দেয়া হয়, আমি নির্বাচিত হয়ে পুরান ঢাকার এই ‍সমস্যা সমাধানে কার্যকর ভূমিকা পালন করব। এ ছাড়া বেড়িবাঁধের রাস্তাটি চার লেনে রূপান্তর করার উদ্যোগ নেব। সর্বোপরি ঢাকা-৭ আসনকে যানজটমুক্ত বাসযোগ্য এলাকা হিসেবে গড়ে তুলব।

(ঢাকাটাইমস/১৮সেপ্টেম্বর/এমএম/মোআ)

সংবাদটি শেয়ার করুন

রাজনীতি বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন ফিচার বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত