সু চির বক্তব্য গ্রহণযোগ্য নয়: ইনু

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
| আপডেট : ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৭, ১৮:২৩ | প্রকাশিত : ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৭, ১৭:১৩
ফাইল ছবি

সরকার রোহিঙ্গা সমস্যার সাময়িক সমাধান চায় না বলে জানিয়েছেন তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু। তিনি বলেছেন, মিয়ানমারের নেত্রী অং সান সু চির বক্তব্য বাংলাদেশ সরকারের কাছে গ্রহণযোগ্য নয়।

আজ বুধবার দুপুরে জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (জাসদ) আয়োজিত 'রোহিঙ্গা শরণার্থী সমস্যা সমাধানে বাংলাদেশের করণীয়' শীর্ষক এক আলোচনা সভায় এ কথা বলেন মন্ত্রী।

এর আগে মঙ্গলবার মিয়ানমারের ক্ষমতাসীন দলের প্রধান ও সরকারের স্টেট কাউন্সেলর অং সান সু চি জাতির উদ্দেশে দেয়া ভাষণে বলেন, রাখাইন থেকে মুসলমানদের পালিয়ে বাংলাদেশে যাওয়ার খবরে তারা (সরকার) উদ্বিগ্ন। তবে, বেশির ভাগ মুসলিমই রাখাইন রাজ্য ছেড়ে পালায়নি। সেখানে সহিংসতা প্রশমিত হয়েছে। বাংলাদেশসহ বিশ্বের প্রচারমাধ্যম রোহিঙ্গাদের নিয়ে অতিরঞ্জিত খবর প্রকাশ করছে দাবি করে সু চি বলেন, বাংলাদেশের সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় আলোচনার মাধ্যমে এ সমস্যার সমাধান করা যায়।

অং সান সু চির এই প্রস্তাব গ্রহণযোগ্য নয় উল্লেখ করে তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘দ্বিপক্ষীয়ভাবে রোহিঙ্গা সংকট সমাধান করা সম্ভব নয়। সমাধান করতে হলে জাতিসংঘের সাবেক মহাসচিব কফি আনানের প্রস্তাবকে মেনে নিয়ে ত্রিপক্ষীয়ভাবে সমাধান করতে হবে।’

তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘রোহিঙ্গারা মিয়ানমারের নাগরিক, তারা সেখানেই বসবাস করবে। এ ক্ষেত্রে অং সান সু চি কোনো অজুহাত দেখাতে পারেন না।  বাংলাদেশ সরকার মানবিক দৃষ্টি থেকে রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিয়েছে।’

পরে বিকেলের দিকে তথ্যমন্ত্রী সচিবালয়ে টেলিভিশন ওনার্স অ্যাসোসিয়েশনের সঙ্গে আলোচনায় রোহিঙ্গা ইস্যুতে গণমাধমের ভুমিকার প্রশংসা করেন। তিনি বলেন, ধারাবাহিকভাবে এই প্রচার চালিয়ে যেতে হবে। নির্যাতিত রোহিঙ্গাদের মিয়ানমারে ফিরিয়ে নিতে অব্যাহত চাপ দিয়ে যেতে হবে। 

মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে পুলিশ ফাঁড়িতে কথিত হামলার অভিযোগে গত ২৫ আগস্ট থেকে রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে নির্মূল অভিযান চালায় সে দেশের সেনাবাহিনী। প্রাণ বাঁচাতে লাখ লাখ রোহিঙ্গা বন-জঙ্গল, পাহাড়-নদী পেরিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়। জাতি সংঘের হিসাবে এ পর‌্যন্ত চার লাখের বেশি রোহিঙ্গা বাংলাদেশের কক্সবাজারের উখিয়া ও টেকনাফে আশ্রয় নিয়েয়েছে। তাদের ৬০ শতাংশ শিশু। গণমাধ্যমের খবর রোহিঙ্গায় সেনা অভিযানে অন্তত চার হাজার হাজার রোহিঙ্গাকে হত্যা করা হয়েছে। ধর্ষণ করা হয়েছে অসংখ্য রোহিঙ্গা নারীকে। পুড়িয়ে দেয়া হয়েছে বহু বাড়িঘর। প্রায় ৩০০ রোহিঙ্গা গ্রাম জনশূন্য হয়ে গেছে বলে জানায় মিয়ানমার কর্তৃপক্ষ।

জাসদের আলোচনা সভায় আরও বক্তব্য দেন শিরিন আক্তার, অধ্যাপক আনোয়ার হোসেন,জাতীয় প্রেসক্লাবের সভাপতি শোফিক আহমেদ, নিরাপত্তা বিশ্লেষক মেজর (অব.) হারুনুর রশিদ প্রমুখ।

(ঢাকাটাইমস/২০সেপ্টেম্বর/মোআ)

সংবাদটি শেয়ার করুন

রাজনীতি বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন ফিচার বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত