গরিবের ওএমএসের চাল নিচ্ছে বড়লোকরা

নজরুল ইসলাম, ঢাকাটাইমস
| আপডেট : ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৭, ২২:০৪ | প্রকাশিত : ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৭, ২০:০৩

যাদের জন্য সরকার খোলা বাজারে (ওএমএস) চাল বিক্রি শুরু করেছেন, তিন দিন পেরিয়ে গেলেও তা নিয়ে তাদের মধ্যে কোনো আগ্রহ দেখা যাচ্ছে না। অথচ বাজারে মোটা চালের চেয়ে প্রায় অর্ধেক দামে বিক্রি হচ্ছে ওএমএস চাল।

তবে সাধারণ ক্রেতারা কোনো আগ্রহ না দেখালেও ওই চাল যেটুকু বিক্রি হচ্ছে তা কিনছেন বড়লোকরা, চালের মূল্যবৃদ্ধি যাদের জীবনে খুব একটা প্রভাব ফেলে না।

এই উল্টো চিত্রের কারণ কী? বিক্রেতারা বলছেন, ওএমএসে বিক্রি হচ্ছে আতপ চাল। বড়লোকরা পিঠা বানিয়ে খেতে এই চাল কিনে নিচ্ছেন কেউ কেউ।

গত সপ্তাহ দুয়েক লাফিয়ে লাফিয়ে বেড়ে মোটা চালের দামই ৫০ টাকা ছাড়িয়ে যায়। পরিস্থিতি সামাল দিতে সরকার গত রবিবার খোলা বাজারে চাল বিক্রি শুরু করে।

সরকারের ওএমএস কর্মসূচির আওতায় বিক্রি করা হচ্ছে আতপ চাল। সিদ্ধ চালে অভ্যস্ত নগরবাসী আতপ চালের ভাতে অনাগ্রহ। বেশির ভাগ মানুষ কিনতে এসে আতপ চাল দেখে ফিরে যাচ্ছেন।

বিক্রেতারা জানান, চাল কিনতে আসা অনেকে আতপ চাল দেখে ক্ষোভ প্রকাশ করছেন। অনেকে বিরূপ মন্তব্য করেন।

বাজারে সব ধরনের চালের দাম বাড়ায় চোরাকারবারির আশঙ্কায় ওএমএস চালের দামও দ্বিগুণ বাড়িয়েছে সরকার। ১৫ টাকা কেজির ওএমএস চাল এখন ৩০ টাকা। তবে আটার দাম বাড়ানো হয়নি। আটা বিক্রি করা হচ্ছে ১৭ টাকায়।

একজন ক্রেতা একসঙ্গে পাঁচ কেজি নিতে পারেন। আর প্রত্যেক ডিলার প্রতিদিন চাল ও আটা পাচ্ছেন এক টন করে।  

রাজধানীতে খোলা বাজারে চাল নিয়ে এখন পর্যন্ত ক্রেতাদের মধ্যে তেমন আগ্রহ দেখা না গেলেও আটার চাহিদা রয়েছে বেশ।

ওমএসের চাল বিক্রির তৃতীয় দিন বুধবার সকাল থেকে ঢাকার পান্থপথ, বাংলামোটর, আজিমপুর, ফার্মগেটসহ বেশ কয়েকটি এলাকায় খোলা বাজারে চাল বিক্রির পরিস্থিতি ঘুরে দেখেন এই প্রতিবেদক। সব জায়গাতেই চিত্র একই রকম।

পান্থপথের বউবাজার এলাকায় খোলা বাজারে চাল বিক্রির (ওএমএস) ‘ট্রাক সেলের’ কর্মী আফজাল ঢাকাটাইমসকে বলেন, ‘পাবলিক আসে, চাউল দেখার পর চলে যায়। হাতে নিয়ে দেখার পর মুখ ফিরিয়ে নেয়। আতপ চাউল বলে কেউ কিনতে চায় না।’

এ ট্রাক সেলের কর্মী আরও বলেন, ‘এখন পর্যন্ত যে কয় বস্তা বিক্রি করছি তার বেশির ভাগই ধনী ব্যক্তিরা নিছে। তারা পিঠা আর খিচুড়ি খাবার জন্য নিয়ে যাচ্ছে।’

পূর্ব রাজাবাজার বস্তি থেকে এসেছেন মঞ্জু বেগম। ট্রাকের বস্তা থেকে এক মুঠো চাল হাতে নিয়ে আবার রেখে দেন তিনি। এরপর ফিরে যাওয়ার জন্য খানিকটা পথ মাড়িয়ে আবার আসেন ট্রাকের সামনে। ট্রাক সেলের কর্মী আফজাল মিদ্রাকে তিন কেজি আটা দিতে বলেন।

মোটা চালের বাজারদরের চেয়ে ওএমএস চালের দাম কেজিতে ২০-২২ টাকা কম। তারপরও কেন নিচ্ছেন না- জানতে চাইলে মঞ্জু বেগম বলেন, ‘এটা খাওয়া যায় না। বাসায় নিলে বাচ্চারা খাবে না। এই চাউল পিঠা বানানোর চাউল, ভাত খাওয়ার না। আমরা সিদ্ধ চাউলের ভাত খাই।’

ট্রাক সেলের কর্মীদের ভাষ্যমতে, সরকারের ওএমএসের খোলা বাজারে আতপ চালের ক্রেতাদের মধ্যে বেশির ভাগই হচ্ছেন উচ্চমধ্যবিত্ত ও উচ্চবিত্ত। এই শ্রেণীর ক্রেতারা আতপ চাল নিচ্ছেন ভাত হিসেবে রান্নার জন্য নয়। মূলত পিঠা আর খিচুড়ি রান্নার জন্য কেউ কেউ এই চাল নিচ্ছেন।

সরেজমিনে বাংলামোটর খোলাবাজারে চাল বিক্রির (ওএমএস)  ট্রাকের সামনে গিয়ে দেখা গেল, একজন ক্রেতা তিন কেজি আটা নিচ্ছেন। এই ট্রাকের বিক্রেতাদের সঙ্গে কথা বললে তারা জানান, ‘চালের ক্রেতা পাওয়া যাচ্ছে না, তবে আটা বিক্রি হচ্ছে। চাল নিয়ে ক্রেতাদের মধ্যে অসন্তোষ আছে। অনেকেই এসে চাল না নিয়েই ফিরে যাচ্ছেন।’

দুপুরে আজিমপুর এলাকায় গিয়ে দেখা যায়, ওএমএসের ট্রাকে অলস বসে আছেন বিক্রেতারা। সকাল থেকে ট্রাক নিয়ে বসে আছেন। কিন্তু ক্রেতাদের তেমন সাড়া নেই। ক্ষণে ক্ষণে বৃষ্টি আসায় ক্রেতাশূন্য যাচ্ছে বলে মন্তব্য করেন এক বিক্রেতা। তবে তারাও স্বীকার করেন আতপ চালে সাধারণ ক্রেতাদের অনীহার কথা। 

জানা গেছে, খাদ্য অধিদপ্তর স্বল্প দামে খোলা বাজারে বিক্রি শুরু করলেও আতপ চাল ক্রেতারা নিচ্ছে না বলে ডিলাররাও আগ্রহ হারাচ্ছেন। লোকসানের আশঙ্কায় অনেক ডিলার আতপ চাল তুলতে চাইছেন না।

ঢাকা মহানগরীতে ১২০টি ট্রাকে ওমএসের চাল বিক্রি হচ্ছে। সারা দেশে ৬২৭টি ট্রাকে করে ওমএসের চাল বিক্রি শুরু হয় রোববার।

চালের অস্বাভাবিক মূল্যবৃদ্ধির পরিস্থিতিতে ওএমএসে আতপ চাল বিক্রির সিদ্ধান্ত ব্যাপক সমালোচনার মুখে পড়েছে। তবে খাদ্যমন্ত্রী বলছেন, সপ্তাহ খানেক পর এই আতপ চাল কেনার জন্য মানুষ হুমড়ি খেয়ে পড়বে।

বাজারে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, মোটা চাল এখন বিক্রি হচ্ছে সর্বনিম্ন ৫০ টাকায়, যা সপ্তাহ দুয়েক আগে ছিল ৩৫ টাকা। প্রকারভেদে অন্যান্য চাল বিক্রি হচ্ছে ৫৮ থেকে ৭০ টাকায়। আগে এসব চাল ১২ থেকে ১৫ টাকা কমে বিক্রি হতো।  

(ঢাকাটাইমস/২০সেপ্টেম্বর/মোআ)

সংবাদটি শেয়ার করুন

জাতীয় বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন ফিচার বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত