‘পা ধরে বলেছি বাংলাদেশে চলে যাব’

ঢাকাটাইমস ডেস্ক
 | প্রকাশিত : ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৭, ২২:৫০

গত ২৫ আগস্ট মিয়ানমারে সহিংসতা শুরুর পর থেকে এখনো পালিয়ে বাংলাদেশে ঢুকছে রোহিঙ্গারা। বনে জঙ্গলে লুকিয়ে যারা বাঁচতে পেরেছে, তারাই এখন আসছে বলে জানাচ্ছে আশ্রয়প্রার্থী নারী-পুরুষেরা। তাদের কাছে বিবিসির প্রতিবেদক শারমিন রমা শুনেছেন মিয়ানমার সেনাবাহিনী ও অমুসলিম অস্ত্রধারীদের বীভৎসতার কথা। তাদের বয়ান নিয়ে রচিত প্রতিবেদনটি থেকে জানা যায়, তাদের বেশির ভাগই হারিয়েছেন পরিবারের কোনো না কোনো সদস্য। নিজেরাও কেউ কেউ বর্বর নির্যাতনের শিকার হয়েছেন।

টেকনাফে বাংলাদেশ ও মিয়ানমার সীমান্ত এলাকা শাহপরীর দ্বীপে কথা হয় মংডুর ২০ বছর বয়সী আসমার সঙ্গে। গত মঙ্গলবার পনের জনের একটি দলের সঙ্গে বাংলাদেশে ঢুকেছেন আসমা। ব্যক্তিগত গোপনীয়তার স্বার্থে তার ছদ্মনাম ব্যবহার করছি।

আসমা জানান, মিয়ানমারে সেনা সদস্যরা তার স্বামী ও ভাইকে হত্যা করে আর তার ওপর চালায় পাশবিক নির্যাতন।

তার বক্তব্য: "১০/১২ জন সৈন্য মিলে আমাকে ধর্ষণ করে, কি যে কষ্ট সহ্য করতে পারছিলাম না, ওদের অত্যাচারে অনেক মেয়ে মরে গেছে। আমাকেও যখন মেরে ফেলতে চাইল, তখন বাচ্চা দু'টোকে দেখিয়ে ওদের পা জড়িয়ে ধরে প্রাণ ভিক্ষা চাইলাম। বললাম, কাউকে বলবো না বার্মায় কী হয়েছে, বাংলাদেশে চলে যাব এখুনি।"

কাকুতি মিনতি আর ছোট্ট দু'টি বাচ্চা দেখিয়ে ছাড়া পেয়ে ১৫ দিন জঙ্গলে কাটান আসমা। সঙ্গে ১২ বছর বয়সী ছোট ভাই আর দুই সন্তান।

কিন্তু বাংলাদেশে প্রবেশের চার দিন আগে অসুস্থ হয়ে পথেই মারা গেছে তার চার বছর বয়সী বড় ছেলেটি। এক সন্তান আর ভাইকে নিয়ে বহু কষ্টে বাংলাদেশে পৌঁছেছেন বলে জানান তিনি।

"হাঁটতে হাঁটতে পা ফুলে গেছে। এদেশে এসে যে সাহায্য পেয়েছি, নিজের দেশে তা পাইনি। বার্মার অন্য সম্প্রদায়ের লোকেরা আমাদের বলে, সেদেশ শুধু তাদের, মুসলমানের নয়।"

মংডুর আরেক অধিবাসী রফেকা বলছিলেন, তার স্বামীর গলা কেটে ফেলেছে সেখানকার অমুসলিম সম্প্রদায়ের অস্ত্রধারীরা। আর তার ভাইয়ের স্ত্রীকে ধর্ষণের পর অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ কেটে গুলি করে হত্যা করা হয়েছে।

তিনি দুই সন্তান নিয়ে পালিয়ে এসেছেন। রাখাইন থেকে তরুণী মেয়েরা অনেকেই আসতে পারেনি বলেও জানায় রফেকা।

"প্রতিদিনই ধরপাকড় চলে, সুন্দরী মেয়েদের তুলে নিয়ে জুলুম করে মিলিটারিরা। তারপর হাত-পা, বুক কেটে ফেলে দেয়।"

অত্যাচারের কারণে বছর খানেক আগে অন্য গ্রামে আশ্রয় নিয়েছিল রফেকার পরিবার। রফেকা জানান, আসার আগে কয়েকদিন তারা দিনের বেলায় জঙ্গলে লুকিয়ে থাকতেন আর রাতে বাড়িতে যেতেন।

রফেকার বিবরণে অত্যাচার ও সহিংসতার মাত্রা এতটাই ভয়াবহ পর্যায়ে গিয়েছিল যে গ্রামের সবাই যে যেদিকে পেরেছে পালিয়েছে। "মগরা আমাদের প্রতিনিয়ত জ্বালায়। বাড়িতে হানা দেয়। পুরুষদের ধরে নিয়ে যায়। মেয়েদের ধরে নিয়ে যায় অত্যাচার, জুলুম করে। আমার ভাবীকে গুলি করে মেরে ফেলেছে। মেরে ফেলার আগে তাকে জুলুম করে (ধর্ষণ) মগ মিলিটারিরা। হাত-পা কেটে ফেলে।" স্বামী হারানোর পর দুই সন্তান নিয়ে আট দিন হেঁটে বাংলাদেশে ঢুকেছেন রফেকা।

বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া নারীরা অত্যাচার ও নির্যাতনের যে বিবরণ দিচ্ছে, তা স্বাধীনভাবে যাচাই করা সম্ভব হচ্ছে না। তবে বেশিরভাগ রোহিঙ্গার বক্তব্যে নির্যাতনের চিত্র একই রকম।

এদিকে সম্প্রতি মিয়ানমারের নেত্রী অং সাং সুচি এবং বুধবার জাতিসংঘে দেশটির ভাইস প্রেসিডেন্ট যে বক্তব্য দিয়েছেন সেখানে এসব নির্যাতনের প্রসঙ্গে কিছুই বলা হয়নি।

তবে রোহিঙ্গা শব্দটি ব্যবহার না সরকারের পক্ষে বলা হচ্ছে, মুসলমানরা কেন বাংলাদেশে পালিয়ে যাচ্ছে সেটি নিয়ে তারা উদ্বিগ্ন। মিয়ানমার সরকারের বক্তব্য রাখাইনের পরিস্থিতি এখন অনেকটাই শান্ত। কিন্তু সরকারের শীর্ষ পর্যায়ের এরকম বক্তব্যে বিস্ময় প্রকাশ করছেন অনেকেই।

এদিকে, জাতিসংঘের হিসেবে গত কয়েক সপ্তাহে চার লাখের বেশি রোহিঙ্গা বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে। এদের মধ্যে প্রায় ৮০ ভাগই নারী ও শিশু।

এই বিপুল সংখ্যক শরণার্থীদের খাদ্য ও স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করা বাংলাদেশ ও আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলোর জন্য বিরাট চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছে।

জাতিসংঘের মানবাধিকার কমিশনের মিয়ানমার বিষয়ক তথ্যানুসন্ধান কমিটিও রাখাইনে রোহিঙ্গাদের সঙ্গে কী ঘটেছে এবং ঘটছে সেটি নিয়ে গভীর উদ্বেগ জানিয়েছে।

বিবিসি বাংলা থেকে।

(ঢাকাটাইমস/২১সেপ্টেম্বর/মোআ)

সংবাদটি শেয়ার করুন

আন্তর্জাতিক বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন ফিচার বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত