দিনাজপুরে বজ্রপাতে নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৮

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
| আপডেট : ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৭, ২৩:০০ | প্রকাশিত : ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৭, ১৭:০২

দিনাজপুরের পৃথক তিনটি স্থানে বজ্রপাতের ঘটনায় আরও তিনজনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে বজ্রপাতের এসব ঘটনায় নিহতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে আটজনে। নিহতদের মধ্যে এক শিশু ও দুই নারী রয়েছে। আহত হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন আরও পাঁচজন।

এর মধ্যে শনিবার দুপুর দেড়টার দিকে বিরল উপজেলার পূর্ব রাজরামপুর এলাকায় বজ্রপাতে চারজন নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন অন্তত সাতজন। পরে দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার পর মারা যায় আরও দুইজন।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন বিরল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুল মজিদ সরকার। তিনি জানান, দুপুরে বৃষ্টি শুরু হলে কয়েকজন স্যালো মেশিনের একটি ঘরে আশ্রয় নেয়। এ সময় বজ্রপাত হলে ঘটনাস্থলেই চারজন নিহত হয়। আহত হয় অন্তত সাতজন। আহতদের উদ্ধার করে দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হলে সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আরও দুইজন মারা যায়।

নিহতদের মধ্যে চারজনের নামপরিচয় জানা গেছে। তারা হলেন, বিরল উপজেলার রাজারামপুর গ্রামের হরিপদ রায়ের ছেলে কুশো রায় (১৯), একই গ্রামের প্রদীপ চন্দ্র রায়ের স্ত্রী বনিতা রানী রায় (৩০), সদর উপজেলার মহাদেবপুর গ্রামের আব্দুল লতিফের ছেলে মেছের আলী (৩৬) এবং একই গ্রামের মোস্তাক আলীর ছেলে শুকুর উদ্দিন মিয়া (৪০)। নিহত অন্য দুজনের নামপরিচয় জানা যায়নি।

এছাড়া দুপুরে বিরল উপজেলার মখলেসপুর গ্রামে বজ্রপাতে হৃদয় নামে ১২ বছর বয়সী এক শিশু আহত হয়। দ্রুত উদ্ধার করে দিনাজপুর মেডিকেলে নেয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

অন্যদিকে ভোরে চিরিরবন্দর উপজেলার সাতনালা চকরামপুর গ্রামে হালিমা খাতুন নামে এক গৃহবধূ বজ্রপাতে নিহত হয়েছেন। তিনি ওই গ্রামের শহিদুল ইসলামের স্ত্রী।

চিরিরবন্দর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা হারেসুল জানায়, ভোরে বৃষ্টির সময় বাড়ির আঙিনায় চুলা ঢাকার জন্য ঘর থেকে বের হন হালিমা। এ সময় বজ্রপাত হলে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়।

ঢাকাটাইমস/২৩সেপ্টেম্বর/এমআর

সংবাদটি শেয়ার করুন

বাংলাদেশ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন ফিচার বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত