ফুটপাতজুড়ে অবৈধ বাজার, চলাচলে ভোগান্তি

সৈয়দ অদিত, ঢাকাটাইমস
| আপডেট : ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৭, ১৩:৩৩ | প্রকাশিত : ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৭, ০৮:১৯

রাজধানীর হাতিরপুল পরিবাগ সড়কে অবৈধভাবে ফুটপাত দখল করে বসানো হয়েছে বাজার। অথচ সড়কের পাশেই রয়েছে হাতিরপুল কাঁচাবাজার। ফুটপাত দখল করে বাজার বসানোর ফলে চলতে সমস্যা হচ্ছে সাধারণ মানুষের। ফুটপাত বাদ দিয়ে সড়কে চলাচলের ফলে হরহামেশাই ঘটছে দুর্ঘটনা।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, ফুটপাতটি প্রস্থে মাত্র চার ফুট। আর সেই চার ফুটের মধ্যে প্রায় তিন ফুট জায়গা দখল করে বসানো হয়েছে অবৈধ বাজার। বাজার ছাড়াও কী নেই সেখানে! সবজি থেকে শুরু করে ডাব, মুরগিসহ প্রায় সব ধরনের জিনিসপত্র বিক্রি করছে এখানে।

স্থানীয় লোকজন জানান, সকাল থেকে রাত সাড়ে দশটা পর্যন্ত ফুটপাত দখল করে বাজার চলে। ফুটপাতে বাজার বসানোর কারণে সাধারণ মানুষকে হাঁটতে হচ্ছে মূল সড়ক দিয়ে। এতে দুর্ঘটনারও ঝুঁকি থাকে। ফলে যানজটের কারণে বসে থাকতে হচ্ছে অনেক সময়। 

হাতিরপুল এলাকার বাসিন্দা এম এ বারিক ঢাকাটাইমসকে বলেন, ‘পরিবাগ হাতিরপুল সড়কের পরিধি এমনিতেই ছোট। সেই সাথে ফুটপাত দখল করে বসানো হয়েছে বাজার। এখান দিয়ে সন্তানদের নিয়ে যেতে অনেক ভয় হয়। কখন পেছন দিক দিয়ে একটি গাড়ি ধাক্কা দিয়ে যায়।’

ফুটপাতে সবজি দোকান নিয়ে বসা আবদুল কাদির ঢাকাটাইমসকে বলেন, ‘আমাগো এইহানে এই এলাকার কমিশনারের পোলাপান বইতে দিসে। হেগোরে ডেইলি দিনশেষে ২০০ কইরা দেওন লাগে। টেহা পরপর তিনদিন না দিলে দোকান উডাইয়া দেয়।’

ফুটপাত দখল করে দোকান বসার কথা জানতে চাইলে অন্য একজন ব্যবসায়ী ওবায়েদ মিয়া ঢাকাটাইমসকে বলেন, ‘মাইনসের হাঁটতে কষ্ট অয় হেইডা আমরাও জানি। অহন আমরা কী করাম? পেড তো চালানির লাগবো। তবে যতদূর পারি বাজার সরাইয়া মাইনসেরে জাওনের জায়গা কইরা দেই।’

এই ব্যাপারে হাতিরপুল মোড় এলাকার ট্রাফিক কর্মকর্তা এহসানুল হক ঢাকাটাইমসকে বলেন, ‘এদেরকে প্রতিদিন সরিয়ে দিই। তারপরও তারা সেখানে বসে পড়ে। কিন্তু তাদেরকেও তো চলতে হবে। এভাবে তো আমরা তাদের পেটে লাথি মারতে পারি না। কিছুদিনের মধ্যে বাজার কমিটির সাথে বসে তাদের ব্যবসা অন্যত্র নেয়ার জন্য আমরা আলোচনায় বসবো।’

এই ব্যাপারে হাতিরপুল এলাকার কমিশনার এম এ হামিদ খান ঢাকাটাইমসকে বলেন, ‘আমি এ কাজের ১০০% বিরোধী। আমি কখনোই চাই না সড়ক কিংবা ফুটপাতের উপর বাজার বসুক। আমি একাধিকবার বাজার মালিক সমিতির সাথে কথা বলেছি অবৈধ বাজার তুলে নেয়ার জন্য। কিন্তু তারা বিভিন্ন কারণে বাজার তুলে দিতে আগ্রহী হচ্ছে না।’

কমিশনার আরও বলেন, ‘কালকে আমি আবার যাব। প্রয়োজনে পুলিশের সাথে কথা বলে অবৈধ বাজার উচ্ছেদ করব। আমার এলাকায় কোনো অবৈধ কাজ-কারবার চলবে না।’

(ঢাকাটাইমস/২৪সেপ্টেম্বর/এসও/জেবি)

সংবাদটি শেয়ার করুন

রাজধানী বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন ফিচার বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত