রোহিঙ্গাদের স্বাধীনতায় পাশে দাঁড়ান, প্রধানমন্ত্রীকে দুদু

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৭, ১৮:৩২

মিয়ানমারের নির্যাতিত রোহিঙ্গাদের স্বাধীনতার জন্য তাদের পাশে দাঁড়াতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদু। বলেছেন, আরাকান আগে স্বাধীন ছিল, তাই প্রধানমন্ত্রীকে বলব মানবতার পাশে দাঁড়ান, স্বাধীনতার পাশে দাঁড়ান।

সোমবার জাতীয় প্রেসক্লাবের ভিআইপি লাউঞ্জে এক গোলটেবিল বৈঠকে এসব কথা বলেন তিনি। ‘রোহিঙ্গা সংকট: সমাধানের সন্ধানে’ শীর্ষক এ গোলটেবিল বৈঠকের আয়োজন করে বাংলাদেশ খেলাফত আন্দোলন।

মুক্তিযুদ্ধের কথা স্মরণ করে রোহিঙ্গাদের স্বাধীনতায় তাদের পাশে আমাদের দাঁড়ানো উচিত মন্তব্য করে শামসুজ্জামান দুদু বলেন, ‘আমাদের জন্ম হয়েছে যুদ্ধের মাধ্যমে। এই অঞ্চলে একমাত্র সমাধান হয়েছে আমাদের, তাই আমরা যুদ্ধে ভয় পাই না। রোহিঙ্গাদের স্বাধীনতার প্রশ্নে তাদের পাশে আমাদের দাঁড়ানো উচিত। ভারতে আমরা যেভাবে ট্রেনিং নিয়েছিলাম, সেভাবে তাদের মুক্তির জন্য তাদের ট্রেনিং দেয়া উচিত।’

রোহিঙ্গারা অনেক আগে থেকে আরাকানের বাসিন্দা উল্লেখ করে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান বলেন, ‘রোহিঙ্গারা কখনোই বাঙালি ছিল না, চেহারা মিল থাকলেও, তাদের কথা কোনো মিল নেই। একাত্তরের কথা মনে করে তাদের স্বাধীনতায় তাদের পাশে বাংলাদেশের দাঁড়ানো উচিত।’

দুদু বলেন, ‘রোহিঙ্গা ইস্যুতে কূটনৈতিক মাধ্যমকে আগে ব্যবহার করেন, কূটনৈতিকভাবে সমাধান না হলে যুদ্ধের মাধ্যমে এই রোহিঙ্গা ইস্যুর সমাধান করতে হবে। ভারতকে আমরা কী দিইনি, সড়ক নৌ সবইতো দিয়েছি। তাদের সঙ্গে বসি না কেন?’

রোহিঙ্গা ইস্যুতে সরকারের দুই রকম অবস্থান উল্লেখ করে বিএনপি নেতা দুদু বলেন, ‘সরকারের ত্রাণ সচিব বলছেন রোহিঙ্গারা যারা বাংলাদেশে ঢুকেছে তারা শরণার্থী না, তারা অনুপ্রবেশকারী। তাহলে তাদের খাবার ‍দিচ্ছেন কেন?’

শামসুজ্জামান দুদু বলেন, ‘সরকার আসলে কী করতে চাচ্ছে, আওয়ামী লীগ বলছে রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশে আশ্রয় দিয়ে প্রধানমন্ত্রীর নোবেল প্রাইজ প্রাপ্য, অন্যদিকে সরকারের সচিব তাদের অনুপ্রবেশকারী বলছে। আবার রোহিঙ্গারা যখন ঢুকেছে ঢুকতে দেয়া হয়নি, অনেক পরে প্রধানমন্ত্রীর বোধোদয় হলো।’

রোহিঙ্গাদের নিয়ে সরকার কি বিভ্রান্ত্র এমন কথা উল্লেখ করে দুদু বলেন, ‘রোঙ্গিদের ঢুকতে দিয়ে আবার পরে বলছেন যৌথ মহড়া দেবেন। এটা ভয়ংকর সিদ্ধান্ত, না বিভ্রান্ত। ভারত চীন, রাশিয়া মিয়ানমারের পক্ষে আছে এজন্যই সরকার বিভ্রান্ত হয়ে গেছে।’

প্রধানন্ত্রীর হত্যাচেষ্টার খবরের সত্যতা জাতির সামনে তুলে ধরার দাবি জানিয়ে শামসুজ্জামান দুদু বলেন, ‘একটা উদ্যোগের বিষয় হচ্ছে আমাদের প্রধানমন্ত্রীকে হত্যার চেষ্টা করা হয়েছে খবর বেরিয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে নিশ্চিত করা হয়েছে এ খবর সত্য নয়, আবার দুই মন্ত্রী দুই ধরনের কথা বলছে। এই সংবাদটিও কিন্তু প্রকাশ হয়েছে ভারতীয় গণমাধ্যমে। সরকারকে বলব এই বিষয়টি পরিষ্কার করুন কোনটি সঠিক। বঙ্গবন্ধুর পরিবারে মাত্র দুইজন সদস্য জীবিত আছে, তাদের কিছু হলে আমরা খুবই কষ্ট পাবো।’

গোলটেবিল আলোচনায় কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল সৈয়দ মুহাম্মদ ইব্রাহীম বলেন, ‘মিয়ানমারের সঙ্গে এখনো প্রায় ৫০টির ক্ষুদ্র জাতির সঙ্গে যুদ্ধ চলে, এরা এরকমই ক্ষুদ্র গোষ্ঠীকে নির্যাতন চালায়। অতীতে অনেকবার চুক্তি হয়েছে কিন্তু সেই চুক্তি ভেঙে ফলে।’

আরাকান ভূরাজনৈতিকভাবে গুরুত্বপূর্ণ জানিয়ে ইব্রাহীম বলেন, ‘রাখাইন খনিজসম্পদে ভরপুর, ভূরাজনৈতিকভাবে এটা গুরুত্বপূর্ণ। তাই এটা মুসলমানদের হাতে রাখবে না মিয়ানমার। রোহিঙ্গাদের তাড়িয়ে দিতে ইতিহাসের সব নৃশংসতাকে হার মানিয়েছে। মিয়ানমার মুসলমানদের রক্তে সিক্ত হয়েছে, এটা মানবতার ওপর নৃশংসতা, মুসলমানদের ওপর নৃশংসতা।’

(ঢাকাটাইমস/২৫সেপ্টেম্বর/জিএম/জেবি)

সংবাদটি শেয়ার করুন

রাজনীতি বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন ফিচার বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত