অশুভ শক্তি এখনো তৎপর: হানিফ

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৭, ২০:৩১
ফাইল ছবি

বিএনপি-জামায়াতকে ইঙ্গিত করে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ বলেছেন, ‘আমাদের দেশে একটি দল আছে, যারা অশুভ শক্তির জোট করেছে।’ একাত্তরে যারা আমাদের মা-বোনের ওপর নির্যাতন চালিয়েছে এরা সেই যুদ্ধাপরাধী দলের সাথে জোট করে বারবার বাংলাদেশের সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতিকে নষ্ট করার ষড়যন্ত্র করেছে। তারা এখনো তৎপর। এরা বাংলাদেশকে এগিয়ে নিতে দিতে চায় না।’

সোমবার বিকালে রাজধানীর ঢাকেশ্বরী মন্দিরে মহানগর পূজা উদযাপন পরিষদের শারদীয় দুর্গোৎসব উপলক্ষ্যে বস্ত্র বিতরণের অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।

হানিফ বলেন, ‘এদের প্রভু মৌলবাদী ও জঙ্গিগোষ্ঠীর হোতা পাকিস্তান। এরা পাকিস্তানের নির্দেশেই সব সময় বাংলাদেশের বিরুদ্ধে চক্রান্ত করে অগ্রযাত্রাকে ব্যাহত করতে চায়।’

আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু আমাদের স্বপ্ন দেখিয়েছিলেন এই বাংলাদেশ হবে, সব ধর্ম-বর্ণের মানুষের জন্য সুখী সমৃদ্ধ একটি দেশ। যেখানে ধর্ম-বর্ণ নিয়ে হানাহানি থাকবে না। সেটাই ছিল আমাদের লক্ষ্য। কিন্তু মাঝখানে বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর বাংলাদেশে একটি অশুভ শক্তির আবির্ভাব ঘটে। এরপর এদের বিরুদ্ধে আমাদের অনেক লড়াই সংগ্রাম করতে হয়েছে।’ 

বাংলাদেশে আসা মিয়ানমারের রোহিঙ্গা শরণার্থীদের দুঃখ-দুর্দশার চিত্র তুলে ধরে হানিফ বলেন, ‘ওখানে শুধু মুসলমাদের ওপর নয়, হিন্দু সম্প্রদায়ের ওপরও অমানবিক নির্যাতন হয়েছে। আমাদের প্রধানমন্ত্রী বিশ্ব মায়ের মতো বুক আগলিয়ে দিয়েছেন। আমাদের দেশ নিম্ন মধ্যম আয়ের দেশ। এই ছোট্ট দেশে ১৬ কোটি মানুষের খাওয়া-পরানো অনেক কঠিন কাজ। তারপরও প্রধানমন্ত্রী এই সব মানুষের ওপর হত্যা-নির্যাতনের কারণে তাদেরকে আশ্রয় দিয়েছেন। তাদেরকে বুক পেতে আগলিয়ে নিয়েছেন।’

হানিফ বলেন, ‘আমাদের প্রধানমন্ত্রী এই সমস্ত নির্যাতিত-নিপীড়িত মানুষকে আশ্রয় দিয়ে গোটা বিশ্বে প্রশংসিত হয়েছেন। সারা বিশ্বের মানুষ প্রধানমন্ত্রীর প্রশংসা করেছেন। তিনি এই মানুষকে আশ্রয় দিয়ে মানবতার পরিচয় দিয়েছেন। সেই কারণে তিনি মানবতার জননী বা মানবতার মাতা হিসেবে ব্রিটিশ মিডিয়ায় অভিহিত হয়েছেন।’ 

আওয়ামী লীগের এই নেতা বলেন, ‘আর আমাদের সেই অশুভ শক্তির দল বিএনপি-জামায়াত, এরা এখনো সরকারের বিরুদ্ধে মিথ্যাচার করে যাচ্ছে। আমাদের অবাক হতে হয়। এই রোহিঙ্গা সমস্যা নিয়ে প্রধানমন্ত্রী জাতিসংঘের অধিবেশনে সুনির্দিষ্টভাবে পাঁচ দফা প্রস্তাব দিয়ে গোটা বিশ্ববাসীকে জাগিয়ে তোলার চেষ্টা করেছেন। বিশ্ববাসীকে এই রোহিঙ্গাদের পাশে দাঁড়ানো এবং সমস্যার সমাধানের জন্য আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে আহ্বান জানিয়েছেন। এ কারণে বিশ্বের শক্তিধর দেশগুলোকে প্রধানমন্ত্রীর আহ্বানে সাড়া দিয়ে জাতীয় নিরাপত্তা পরিষদের বৈঠক ডেকেছেন এবং নিরাপত্তা পরিষদের মাধ্যমেই মিয়ানমারের সরকারের ওপর চাপ সৃষ্টি করে রোহিঙ্গা সমস্যার দ্রুত সমাধানের ব্যাপারে বৈঠক ডেকেছেন।’

হানিফ বলেন, ‘বিশ্বের সবাই প্রধানমন্ত্রীর এই পদক্ষেপের প্রশংসা করেছেন। আর তখন আমাদের দেশের এই অশুভ শক্তিরা প্রধানমন্ত্রীর সফলতায় ঈর্ষান্বিত হয়ে মিথ্যাচারে লিপ্ত আছে।’

দেশবাসীর প্রতি আহ্বান জানিয়ে হানিফ বলেন, ‘আজকে জাতির সামনে পরিষ্কার হয়েছে, গত নয়টি বছর প্রধানমন্ত্রী নিরলস পরিশ্রম করে তার দক্ষতা বিচক্ষণতা, প্রাজ্ঞতা এবং মেধা দিয়ে বাংলাদেশকে একটি উচ্চতর পর্যায়ে নিয়ে এসেছেন। বাংলাদেশকে নিয়ে এখন বিশ্ববাসী আশা প্রকাশ করছেন। বাংলাদেশ উন্নয়নের রোল মডেল হিসেবে বিবেচিত হবে বলে তারা আশা প্রকাশ করছেন। তাই শেখ হাসিনা যতদিন এই বাংলাদেশের ক্ষমতায় থাকবেন ততদিন বাংলাদেশের মানুষ এগিয়ে যাবে অর্থনৈতিক মুক্তির পথে এবং ততদিন দেশ এগিয়ে যাবে।’

বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি মনিন্দ্র কুমার নাথের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম, পূজা উদযাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক তাপস কুমার পাল প্রমুখ।

(ঢাকাটাইমস/২৫সেপ্টেম্বর/টিএ/জেবি)

সংবাদটি শেয়ার করুন

রাজনীতি বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন ফিচার বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত