রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধানে সরকার আন্তরিক নয়: ফখরুল

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
| আপডেট : ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৭, ১৯:৩৬ | প্রকাশিত : ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৭, ১৮:০৮

নির্যাতনের মুখে মিয়ানমার থেকে পালিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গাদের সমস্যা সমাধানে সরকার আন্তরিক নয় বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

মঙ্গলবার বিকালে কক্সবাজারের হোটেল লং বীচের লবিতে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে এই মন্তব্য করেন তিনি। রোহিঙ্গা শরণার্থীদের মাঝে ত্রাণসামগ্রী বিতরণ করতে বিকালে ঢাকা থেকে বিমানযোগে কক্সবাজার পৌঁছান ফখরুল।

বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘আমরা বরাবরই বলে এসেছি যে, রোহিঙ্গা ইস্যুতে আমরা দেশের মধ্যে কোনো রাজনীতি করতে চাই না। আমরা মানবতার পাশে দাঁড়ানো জন্য আমরা সমগ্র জাতিকে ঐক্যবদ্ধ করার কথা বলেছি।’

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘আমরা বিশ্বাস করি সরকার যদি আজকে সব বিরোধী দল ও জনগণকে নিয়ে একটা ঐক্যবদ্ধ প্রয়াস সৃষ্টি করতে পারতো তাহলে সরকারের হাতই শক্তিশালী হতো, রাষ্ট্রের হাত শক্তিশালী হতো। কিন্তু তারা সেটা করেননি, তারা সেটা নাকচ করে দিচ্ছেন। এই থেকে প্রমাণিত হয় যে, আসলে সরকার রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধানে আন্তরিক নয়।’

বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘ইতোমধ্যে প্রমাণিত হয়েছে যে, সরকার এখন পর্যন্ত মিয়ানমারে রোহিঙ্গাদের ওপর নিমর্মতাকে গণহত্যা বলেননি। তারা এখন পর্যন্ত বিদেশের কাছে বিভিন্ন দেশগুলোর কাছে বিশেষ করে যেসব দেশ মিয়ারমানকে সমর্থন দিচ্ছে তাদের কাছে টিম বা প্রতিনিধিদল পাঠায়নি।’

ফখরুল বলেন, ‘রোহিঙ্গাদের যে স্বার্থ, সেই স্বার্থ পুরোপুরিভাবে বিঘ্নিত হচ্ছে। রোহিঙ্গাদের স্বসম্মানে তাদের নাগরিকত্ব দিয়ে নিজ দেশে ফিরিয়ে দেয়া এবং তাদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করাই আজকে আমাদের মূল্য লক্ষ্য। আমরা জাতীয় ঐক্যবদ্ধভাবে সেই প্রচেষ্টা চালাতে হবে।’

রোহিঙ্গা শরণার্থীদের জন্য দলের পক্ষ থেকে নেয়া বিভিন্ন কার্যক্রমের কথা তু্লে ধরে বিএনপি মহাসচিব। বলেন, ‘বিএনপির পক্ষ থেকে ইতোমধ্যে দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাসের নেতৃত্বে ২২ ট্রাক ত্রাণসামগ্রী আনা হয়েছে এবং বিতরণ করা হয়েছে। প্রতিদিনই আমাদের টিম এখানে আসছে এবং উখিয়া ও টেকনাফের প্রত্যন্ত অঞ্চলে ত্রাণ বিতরণ করছে। বিভিন্ন জায়গায় আমাদের মেডিকেল টিম কাজ করছে। অসুস্থদের সেবা প্রদান করছে।’

আপনি এক মাস পর কক্সবাজারে এসেছেন, ক্ষমতাসীন দলের পক্ষ থেকে করা এমন অভিযোগের ব্যাপারে ফখরুল বলেন, ‘এটা কোনো কথা না। আমাদের দল ও দলের নেতৃবৃন্দ ঘটনার প্রথম দিন থেকে অর্থাৎ ২৫ আগস্টের পর থেকে এখানে আছেন, পালিয়ে আসা অসহায় রোহিঙ্গাদের পাশে দাঁড়িয়েছে, তাদের জন্য কাজ করে যাচ্ছেন।’

তিনি বলেন, ‘ক্ষমতাসীন দলের নেতারা একদিন এখানে অবস্থান করে, লোক দেখানো ত্রাণের কাজ করেছে। তারা সরকারি ত্রাণ ব্যবহার করছে। আমরা বিরোধী দল থেকে এই সংকটে যতটুকু সম্ভব ত্রাণ দিয়ে রোহিঙ্গাদের পাশে থাকার যথাসাধ্য চেষ্টা করছি। আমি বিশ্বাস করি, এখন পর্যন্ত যে ত্রাণ দেয়া হচ্ছে তার বেশিরভাগ বিএনপি দিয়েছে।’

এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা কাউন্সিলের সদস্য আবদুস সালাম, যুগ্ম মহাসচিব মজিবুর রহমান সারোয়ার, কেন্দ্রীয় নেতা শহীদউদ্দিন চৌধুরী এ্যানি, মাহবুবুর রহমান শামীম, লুৎফর রহমান কাজল, কামরুজ্জামান রতন, শহীদুল ইসলাম বাবুল, আমিরুজ্জামান খান শিমুল, চট্টগ্রাম মহানগর সভাপতি ডা. শাহাদাত হোসেন, চেয়ারপারসনের প্রেস উইংয়ের সদস্য শায়রুল কবির খান, কক্সবাজার জেলা ছাত্রদলের সভাপতি রাশেদুল হক রাসেল প্রমুখ।

শায়রুল কবির খান ঢাকাটাইমসকে জানান, সন্ধ্যায় বিএনপি মহাসচিব কক্সবাজারে স্বরস্বতী মন্দিরের পূজামণ্ডপ পরিদর্শন করবেন এবং বুধবার সকালে টেকনাফ ও উখিয়ায় রোহিঙ্গা শিবিরে যাবেন এবং সেখান ত্রাণসামগ্রী বিতরণ করবেন।

(ঢাকাটাইমস/২৬সেপ্টেম্বর/বিইউ/এমআর)

সংবাদটি শেয়ার করুন

রাজনীতি বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন ফিচার বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত