মির্জাপুরে ছাত্রলীগের বর্ধিত সভা, অপর অংশের বিক্ষোভ

মির্জাপুর (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধি, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ০২ অক্টোবর ২০১৭, ২৩:৪৯

টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে উপজেলা ছাত্রলীগের বর্ধিত সভা হয়েছে। সোমবার সকালে মির্জাপুর প্রেসক্লাব মিলনায়তনে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়।

এদিকে উপজেলা ছাত্রলীগের কমিটি অবৈধ ও তা বাতিলের দাবিতে একই সময়ে বিক্ষোভ সমাবেশ করেছে ছাত্রলীগের একাংশ।

অপরদিকে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের এই কর্মসূচিকে কেন্দ্র করে শহরে উত্তেজনা সৃষ্টির আশঙ্কায় কলেজ রোডে পুলিশ মোতায়েন করা হয়।

সকালে মির্জাপুর প্রেসক্লাব মিলনায়তনে উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি মীর আসিফ অনিকের সভাপতিত্বে বর্ধিত সভায় বক্তৃতা করেন- টাঙ্গাইল জেলা ছাত্রলীগের আহবায়ক মোস্তাফিজুর রহমান সোহেল, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মো. সিরাজুল ইসলাম ও সৈয়দ ওয়াহিদ ইকবাল, যুগ্ম আহবায়ক রনি আহমেদ, রাশেদুল হাসান জনি, মির্জাপুর উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক আমিনুর রহমান আকন্দ, উপজেলা যুবলীগের সাবেক আহবায়ক সেলিম শিকদার, উপজেলা কৃষকলীগের সাধারণ সম্পাদক সাবেক ভিপি আবু সাঈদ মিয়া, উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মো. শরিফুল ইসলাম প্রমুখ।

অন্যদিকে ছাত্রলীগের কমিটি গঠনতন্ত্র বিরোধী আখ্যা দিয়ে তা বাতিলের দাবিতে মির্জাপুর কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের সামনে বিক্ষোভ করে ছাত্রলীগের একাংশের আন্দোলনরত নেতাকর্মীরা। পরে মির্জাপুর ক্লাব মিলনায়তনে উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সহ সভাপতি সাদ্দাম হোসেন খানের সভাপতিত্বে সমাবেশে বক্তৃতা করেন মির্জাপুর উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি সাইফুল ইসলাম সায়েম, মির্জাপুর পৌর ছাত্রলীগের সভাপতি আবু বক্কর সিকদার, সাধারণ সম্পাদক ওয়াকিল আহমেদ, মির্জাপুর বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি মোবারক হোসেন, সম্পাদক মারুফ হোসেন প্রমুখ। 

প্রসঙ্গত, সম্মেলন ছাড়াই গত ১২ জুন মীর আসিফ অনিককে সভাপতি ও শরিফুল ইসলামকে সাধারণ সম্পাদক করে মির্জাপুর উপজেলা ছাত্রলীগের কমিটি ঘোষণা করে টাঙ্গাইল জেলা ছাত্রলীগ।

কমিটি ঘোষণার পর থেকে ঘোষিত কমিটিকে অবৈধ ঘোষণা করে তা বাতিলের দাবিতে আন্দোলন করে আসছেন উপজেলা ছাত্রলীগের একাংশের নেতাকর্মীরা।

উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক শরিফুল ইসলাম বলেন, আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নৌকার বিজয় নিশ্চিত করতে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের সংগঠিত করতে বর্ধিত সভাসহ সভা সমাবেশ করা হচ্ছে।

অপরদিকে কমিটি বাতিলের দাবিতে আন্দোলনরত ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের পক্ষে উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সহ সভাপতি সাদ্দাম হোসেন খান বলেন, ছাত্রলীগের গঠনতন্ত্রবিরোধী অবৈধ কমিটি ঘোষণা করে মির্জাপুরে আওয়ামী রাজনীতি সংকট সৃষ্টি করা হয়েছে। আমরা এই অবৈধ কমিটি বাতিলের দাবিতে আন্দোলন করে যাচ্ছি।

এ ব্যাপারে মির্জাপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এ কে এম মিজানুল হক বলেন, উত্তেজনা সৃষ্টির আশঙ্কায় নয়, যে কোন মিছিল মিটিংয়ে হলে পুলিশ তথ্য সংগ্রহে কাজ করে থাকে।

(ঢাকাটাইমস/২অক্টোবর/প্রতিনিধি/এলএ)

সংবাদটি শেয়ার করুন

বাংলাদেশ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন ফিচার বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত