সুনামগঞ্জে জব্দকৃত ৬২ টন চুনাপাথর গোপনে বিক্রির অভিযোগ

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ১৭ অক্টোবর ২০১৭, ২২:৫৬

সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলার বীরেন্দ্রনগর সীমান্ত থেকে বিজিবির জব্দ করা ৭২ মেট্রিকটন চুনাপাথরের মধ্যে ৬২ মেট্রিকটন চুনাপাথর গোপনে বিক্রি করে ফেলার অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনাটি প্রকাশ হওয়ার পর ব্যবসায়ী মহলসহ সীমান্ত এলাকাবাসীর মাঝে তোলপাড় শুরু হয়েছে।

ঘটনাটি ঘটেছে মঙ্গলবার ভোরে। গোপনে বিক্রি করা ৬২ টন চুনাপাথরের বর্তমান বাজার মূল্য (দুই হাজার ৫০০ টাকা দরে) এক লাখ ৫৫ হাজার টাকা। তবে বিক্রি করা হয়েছে এক লাখ ৩৬ হাজার টাকায়।

এ ব্যাপারে বাগলী শুল্ক স্টেশনের ব্যবসায়ীরা জানান, উপজেলার বাগলী শুল্কস্টেশন দিয়ে পাঁচ মাস ধরে কয়লা ও চুনাপাথর আমদানি বন্ধ থাকার সুযোগকে কাজে লাগিয়ে এলাকার চিহ্নিত চোরাচালানিরা বীরেন্দনগর ক্যাম্পের দায়িত্বে থাকা বিজিবি সদস্যদের সহযোগিতায় এই সীমান্তকে চোরাচালানের ওপেন রুট হিসেবে ব্যবহার করছে। মাঝে মধ্যে বিজিবি উপর মহলের কর্মকর্তাদের চাপের মুখে পড়ে লোক দেখানো নামমাত্র মালামাল আটক করলেও চিহ্নিত চোরাচালানিদের গ্রেপ্তার করে না।

সস্প্রতি বীরেন্দ্রনগর বিজিবি ক্যাম্পের লামাকাটা এলাকার চোরাই পয়েন্ট থেকে চুনাপাথর বোঝাই পাঁচটি ও সুন্দরবন এলাকা থেকে একটি ইঞ্জিনের নৌকা বিজিবি আটক করে ক্যাম্পে নিয়ে যায়। পাঁচটি নৌকায় আটককৃত অবৈধ চুনাপাথরের পরিমাণ মোট ৭২ টন। আর এই চুনাপাথর প্রকাশ্যে এলাকাবাসীর সামনে নিলামে বিক্রি করে সরকারি কোষাগারে নগদ টাকা জমা দেয়ার নিয়ম থাকলেও মঙ্গলবার ভোর ৪টার দিকে বীরেন্দ্রনগর বিজিবি ক্যাম্পের দায়িত্বে থাকা কোম্পানি কমান্ডাররা মিলে গোপনে বীরেন্দ্রনগর বিজিবি ক্যাম্প সংলগ্ন রংগাছড়া গ্রামের মৃত আব্দুল মান্নানের ছেলে চোরাচালানি আলী হোসেনের কাছে ৬২ মেট্রিকটন চুনাপাথর বিক্রি করে দেন বলে অভিযোগ ওঠে।

এর আগে গত শুক্রবার ভোর ৪টা থেকে বেলা ১১টা পর্যন্ত বাগলী এলসি পয়েন্টের পশ্চিম দিকে অবস্থিত বাগলী নদী দিয়ে ভারত থেকে ২৪ হাজার বস্তার (৮০০ মে.টন) পাচার করে। এসময় কোম্পানি কমান্ডার হাবিব ও হাবিলদার দুলাল অভিযান চালিয়ে ২৪ হাজার বস্তার (৮০০ মে.টন) মধ্যে ২৪০০ বস্তা (৮০ মে.টন) কয়লা আটক করেন। এরপর আটককৃত ২৪০০ বস্তা কয়লার মধ্যে ১১০০ বস্তা কয়লা চোরাচালানিদের গডফাদারদের অনুরোধে ঘটনাস্থলে ছেড়ে দেন বলে অভিযোগ ওঠে।

এ ব্যাপারে জানতে বীরেন্দ্র নগর বিজিবি ক্যাম্পের কোম্পানি কমান্ডার সুবেদার হাবিবের সরকারি মোবাইল নাম্বারে বারবার কল করার পরও তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

সুনামগঞ্জ ২৮ ব্যাটালিয়নের বিজিবি অধিনায়ক নাসির উদ্দিন ঢাকাটাইমসকে বলেন, এ ব্যাপারে তদন্ত করে দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

(ঢাকাটাইমস/১৭অক্টোবর/প্রতিনিধি/জেবি)

সংবাদটি শেয়ার করুন

বাংলাদেশ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন ফিচার বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত