সিইসির মুখে জিয়ার প্রশংসার ‘ব্যাখ্যা’ পেয়েছেন কাদের

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ১৮ অক্টোবর ২০১৭, ১৩:৫৯

বিএনপির সঙ্গে সংলাপে দলটির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমান সম্পর্কে প্রধান নির্বাচন কমিশনার কেএম নুরুল হুদা যেসব প্রশংসামূলক বক্তব্য দিয়েছেন এর ব্যাখ্যা পেয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। তবে তিনি সেই ব্যাখ্যা সাংবাদিকদের বলবেন না। এ ব্যাপারে কোনো কিছু জানার থাকলে নির্বাচন কমিশনের কাছে জানতে পরামর্শ দিয়েছেন তিনি।

বুধবার নির্বাচন কমিশনের সঙ্গে সংলাপ শেষে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে ওবায়দুল কাদের এসব কথা বলেন। বেলা ১১টায় শুরু হয়ে সংলাপ চলে প্রায় আড়াই ঘণ্টা। ২১ সদস্যের প্রতিনিধি দলের নেতৃত্ব দেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী। 

গত রবিবার নির্বাচন কমিশনের সঙ্গে সংলাপে অংশ নেয় বিএনপি। সংলাপের সূচনা বক্তব্যে সিইসি কেএম নুরুল হুদা বলেন, ‘জিয়াউর রহমানের নেতৃত্বে বিএনপি প্রতিষ্ঠিত হয়। তাতে অনেক রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব যুক্ত হন। এর মধ্য দিয়ে দেশে বহুদলীয় গণতন্ত্র পুনঃপ্রতিষ্ঠা লাভ করে।’

জিয়া ও বিএনপির প্রশংসা করে সিইসি বলেন, ‘প্রেসিডেন্ট ও দলনেতা হিসেবে জিয়াউর রহমান ছয় বছর রাষ্ট্র পরিচালনা করেছেন। ১৯৮১ সালের ৩০ মে জিয়ার মৃত্যুর পর বিএনপি প্রায় নয় বছর আন্দোলন সংগ্রাম চালিয়েছে। পরে ১৯৯১ সালে সংসদ নির্বাচনে বিএনপি জয়লাভ করে সরকার গঠন করে। বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া দেশের প্রথম নারী প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। ২০০১ সালের সংসদ নির্বাচনে ২১০ আসনে জয়ী হয়ে খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে বিএনপি দ্বিতীয়বারের মতো সরকার গঠন করে।’

সিইসির এই বক্তব্যে ক্ষুব্ধ হন আওয়ামী লীগের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতারা। সাবেক আওয়ামী লীগ নেতা ও কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের সভাপতি এই বক্তব্যের কারণে সিইসির সঙ্গে তার দলের সংলাপ বর্জন করেন।

তবে ওবায়দুল কাদের শুরু থেকেই সিইসির এই বক্তব্যকে কৌশল হিসেবে দেখে আসছেন। বিএনপিকে নির্বাচনে আনতে সিইসির এটা কৌশল হতে পারে বলে মন্তব্য করেন কাদের। তিনি জানিয়েছিলেন, সংলাপে অংশ নিয়ে সিইসির কাছে এ ব্যাপারে ব্যাখ্যা চাইবেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘ব্যাখ্যা যা পেয়েছি সেটা বলতে চাই না। এ বিষয়ে কিছু বলার থাকলে প্রধান নির্বাচন কমিশনার ও কমিশনাররা বলবেন।’

আওয়ামী লীগের ১১ দফা প্রস্তাব সম্পর্কে প্রধান নির্বাচন কমিশনার ও কমিশনাররা ইতিবাচক বলে জানান কাদের। বলেন, আমাদের দলের পক্ষ থেকে যে ১১ দফা প্রস্তাব দেয়া হয়েছে এ সম্পর্কে প্রত্যেক নির্বাচন কমিশনার বলেছেন, এটা কোনো রাজনৈতিক দলের প্রস্তাব বলে মনে করি না। এই প্রস্তাবগুলো নিরপেক্ষ।

(ঢাকাটাইমস/১৮অক্টোবর/টিএ/জেআর/জেবি)

সংবাদটি শেয়ার করুন

রাজনীতি বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন ফিচার বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত