নারায়ণগঞ্জে কারখানায় সাত ম্যাজিস্ট্রেটের অভিযান

নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ২১ অক্টোবর ২০১৭, ১৯:৪২

নারায়ণগঞ্জ শহরের বরফকল মাঠ এলাকায় অবস্থিত প্রাইম ওয়াশিং প্ল্যান্ট নামে একটি কারখানার কেমিক্যাল গোডাউন সিলগালা করেছে ভ্রাম্যমাণ আদালত। কারখানাটি অনুমোদন ছাড়া এসিড ব্যবহার করছিল বলে জানায় ভ্রাম্যমাণ আদালত।

শনিবার দুপুর থেকে বিকেল পর্যন্ত এ অভিযান চলে। এতে নারায়ণগঞ্জের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট (এডিএম) মো. আব্দুল হামিদ মিয়ার নেতৃত্বে সর্বমোট সাতজন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট উপস্থিত ছিলেন।

এসময় কারখানাটির প্রোডাকশন ম্যানেজার মিলনকে আটক করে ভ্রাম্যমাণ আদালত। এছাড়া পার্শ্ববর্তী প্রাইম জিনস কালচার নামের গার্মেন্টেও অভিযান চালানো হয়।


এছাড়াও বিকেলে রুপগঞ্জের মাহবুব স্পিনিং মিলের ভেতরে অবস্থিত জনলিং, সিআই ইন ও মিয়াংওয়ে নামের তিনটি চায়না ব্যাটারি প্রস্তুতকারক কোম্পানিকে ভাড়া দেয়া প্রতিষ্ঠানে অভিযান চালায় ভ্রাম্যমাণ আদালত। চায়না এই তিনটি প্রতিষ্ঠান কোন প্রকার পরিবেশ অধিদফতরের ছাড়পত্র ছাড়া এবং এসিড লাইসেন্স বিহীন অবৈধ ইজিবাইকের ব্যাটারি উৎপাদন করছিল। পরে চায়না এই তিনটি কোম্পনিকে সরকারি বিধিনিষেধ মেনে উৎপাদন করার জন্য সর্তক করেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।

এ সময় তিন কোম্পানির কর্মকর্তাও ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান দেখে সঙ্গে সঙ্গে কারখানার উৎপাদন বন্ধ করে দেন।

মাহবুব স্পিনিং মিলের কর্মকর্তারা ভ্রাম্যমাণ আদালতের কাছে তিন শ টাকার নন জুডিশিয়াল স্ট্যাম্পে লিখিত দেন আগামী তিন দিনের সকল প্রয়োজনীয় কাগজপত্র জেলা প্রশাসনের কাছে উপস্থাপন করবেন এবং ব্যাটারি ফ্যাক্টরির জন্য যেসব কাগজপত্র প্রয়োজন তা দেখাবেন।

অভিযানে উপস্থিত অন্যরা হলেন, এনডিসি জ্যোতি বিকাশ চন্দ্র, নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট রুবাইয়াত ফেরদৌস, সারাওয়াত মেহজাবিন, সদর এসিল্যান্ড প্রত্যয় হাসান, রিফাত ফেরদৌস ও জাহাঙ্গীর আলম।


আদালত সূত্র জানায়, প্রাইম ওয়াশিং প্ল্যান্ট প্রতিষ্ঠানটির ইটিপি শীতলক্ষ্যা নদীর তীরবর্তী স্থানে হওয়ায় ইটিপি সঠিকভাবে ব্যবহার করা হচ্ছে কিনা সেটাও পর্যবেক্ষণ করেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।

এছাড়া প্রতিষ্ঠানটিতে ফায়ার এক্সটিংগুইসার যথাযথ স্থানে স্থাপনেরও নির্দেশ দেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। প্রতিষ্ঠানটি শীতলক্ষ্যা নদীর তীরবর্তী হওয়ায় এর জমির মালিকানার কাগজপত্রসহ অন্যান্য প্রয়োজনীয় কাগজপত্র প্রদানেরও নির্দেশ দেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।

পরে পার্শ্ববর্তী একই মালিকের প্রাইম জিনস কালচারেও ঘুরে দেখেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। এসময় প্রতিষ্ঠানটির ভবনের নকশাও পর্যবেক্ষণ করে দেখে আদালত। এরপর শহরের খানপুরে অবস্থিত ৩০০ শয্যাবিশিষ্ট হাসপাতালে ৩ জন স্কুল পড়–য়া শিক্ষার্থীকে স্কুল ফাঁকি দিয়ে ঘোরাফেরার কারণে আটক করা হয়। পরে অভিভাবকের জিম্মায় তাদেরকে ছেড়ে দেয়া হয়।
 
নারায়ণগঞ্জের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট (এডিএম) মো. আব্দুল হামিদ মিয়া জানান, মাদক, যানজট, আবাসিক হোটেল, রিসোর্ট, বিভিন্ন শিল্পপ্রতিষ্ঠানে ইটিপি, পরিবেশগত ছাড়পত্র এবং এসিড লাইসেন্সসহ বিভিন্ন বিষয়ে জেলা ম্যাজিস্ট্রেটের নেতৃত্বে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান চলমান রয়েছে।

(ঢাকাটাইমস/২১অক্টোবর/প্রতিনিধি/ ইএস)

সংবাদটি শেয়ার করুন

বাংলাদেশ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন ফিচার বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত