রাজনৈতিক অঙ্গনে নারীদের অবস্থান উজ্জ্বল: সিইসি

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
| আপডেট : ২৩ অক্টোবর ২০১৭, ১৫:২৮ | প্রকাশিত : ২৩ অক্টোবর ২০১৭, ১৩:৪৪

 বাংলাদেশের রাজনৈতিক অঙ্গনে নারীদের অবস্থান উজ্জ্বল। সমাজের প্রতিটি ক্ষেত্রে সফলতার সঙ্গে তারা কাজ করছেন। নারীর অধিকার ও ক্ষমতায়নে দৃষ্টি আকর্ষণে তারা সক্ষম হয়েছেন। সরকার পরিচালনা, নীতি নির্ধারণ, ব্যবসা, বিচার কার্যক্রম, আইনশৃঙ্খলা বাহিনী, সামরিক বাহিনী, আন্তর্জাতিক শান্তি রক্ষা, শ্রমবাজার এমনকি নির্বাচন কমিশনে তাদের অবস্থান সুসংগঠিত হয়েছে।

বুধবার নারী নেত্রীদের সঙ্গে সংলাপের সূচনা বক্তব্যে সিইসি কে এম নুরুল হুদা এসব কথা বলেন। 

বেলা দুপুর সাড়ে এগারোটা আগারগাঁওয়ে নির্বাচন কমিশন ভবনে এই সংলাপ শুরু হয়। প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে এম নুরুল হুদা সংলাপের সভাপতিত্ব করছেন। আজকের সংলাপ ২২ জন নারী নেত্রীকে আমন্ত্রণ জানানো হলেও অংশগ্রহণ করেছেন মাত্র ১৩ জন।

এরা হলেন- নারী প্রগতি সংঘের এক্সিকিউটিভ ডিরেক্টর রোকেয়া কবির, নারী সাংবাদিক কেন্দ্রের জেলারেল সেক্রেটারি পারভীন সুলতানা ঝুমা, ফর ইউ ফর এভারের (ফাইফে) প্রেসিডেন্ট রেহানা সিদ্দিকী, বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব উইমেন ফর সেলফ এমপাওয়ারমেন্টের (বাউশী) এক্সিকিউটিভ ডিরেক্টর মাহবুবা বেগম নিরু, নারী উদ্যোগ কেন্দ্রের নির্বাহী পরিচালক মাসহুদা খাতুন শেফালী, ডিজ্যাবল্ড রিহ্যাবিলিটেশন অ্যান্ড রিসার্স অ্যাসোসিয়েশনের (ডিআরআরএ) নির্বাহী পরিচালক ফরিদা ইয়াসমিন, বাংলাদেশ মহিলা পরিষদের সাধারণ সম্পাদক ড. মালেকা বানু, নারী নেত্রী রেখা চৌধুরী, রিনা সেন গুপ্তা, মনসুরা আকতার।

সিইসি বলেন, আপনাদের সঙ্গে সংলাপ বিশেষ তাৎপর্যপূর্ণ বলে আমরা মনে করি। ১৬ কোটি জনসংখ্যার প্রায় আট কোটি নারী। পুরুষ দেশের জন্য যেভাবে কাজ করছে নারীরাও সেভাবে কাজ করছে। আপনাদের অবদানকে হেয় করে দেখার সুযোগ নেই। আপনারা নারী সমাজের প্রতিনিধি হয়ে সংলাপে এসেছেন। আপনাদের সবার কথা শুনব। পরামর্শগুলো আমলে নেব।

নারী অধিকার প্রতিষ্ঠায় বিশ্বব্যাপী অনেক আন্দোলন হয়েছে জানিয়ে নুরুল হুদা বেলন, কেউ দয়া করে নারীদের অধিকার প্রতিষ্ঠা করে দেয়নি। নারীরা নিজেরাই তাদের অধিকার প্রতিষ্ঠা করেছে। এমন দিন ছিল নারীদের রাজনীতিতে প্রতিনিধিত্ব করা তো দূরের কথা তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগের সুযোগ ছিল না। কানাডা পার্লামেন্ট ভবনের এক পাশে কয়েকজন সংগ্রামী নারীর ইস্পাত মূর্তি আছে। তারা শতবছর আগে সামাজিক ও রাষ্ট্রীয় অধিকার প্রতিষ্ঠায় আন্দোলন করে সফল হয়েছেন।

সিইসি বলেন, রাজনৈতিক অঙ্গনে নারীদের অবস্থান উজ্জ্বল তা আমরা সবাই জানি। বেগম রোকেয়া, সুফিয়া কামাল, প্রীতিলতা পথ দেখিয়ে গেছেন নারী অধিকার আন্দোলনের। যে পথ ধরে এ দেশে নারীদের পথচলা সুবিধা হয়েছে।

নুরুল হুদা বলেন, দেশ গঠন ও দেশ পরিচালনায় নারী সমাজের ভূমিকা গুরুত্বপূর্ণ। নারী-পুরুষের সবার সমান অংশগ্রহণে দেশ মধ্যম আয়ের দেশের দ্বারপ্রান্তে উন্নীত হয়েছে। ধীরে ধীরে উন্নত দেশের পথে এগিয়ে যাচ্ছে।

সিইসি আরও বলেন, নির্বাচন কীভাবে সুষ্ঠু করতে পারি সে ব্যাপারে আপনাদের পরামর্শ চাই। আপনাদের কথা বলুন, নারী সমাজের কথা বলুন, দেশের কথা বলুন। সুষ্ঠু, অবাধ ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচন কীভাকে করা যায় সে কথা বলুন। আমরা বিশ্বাস করি, আপনাদের কাছ থেকে যে পরামর্শ আসবে নির্বাচন পরিচালনায় তা আমাদের সহায়ক হবে।

একাদশ সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে আইন সংস্কার, সীমানা পুনঃনির্ধারণসহ ঘোষিত রোডম্যাপ নিয়ে কেএম নূরুল হুদা নেতৃত্বাধীন নির্বাচন কমিশন রাজনৈতিক দলসহ বিভিন্ন অংশীজনদের সঙ্গে সংলাপ করছে।

গত ৩১ জুলাই নাগরিক সমাজের প্রতিনিধিদের সঙ্গে আলোচনার মধ্যে দিয়ে ইসির এবারের সংলাপ শুরু করে। ১৬ ও ১৭ আগস্ট গণমাধ্যম প্রতিনিধিদের সঙ্গে মতবিনিময় করে ইসি। এরপর ২৪ আগস্ট থেকে নিবন্ধিত ৪০টি রাজনৈতিক দলের সঙ্গে সংলাপ শুরু করে নির্বাচন কমিশন যা শেষ হয় গত বৃহস্পতিবার। আগামী ২৪ অক্টোবর নির্বাচন বিশেষজ্ঞদের সঙ্গে সংলাপসূচি নির্ধারণ করেছে ইসি।

 (ঢাকাটাইমস/২৩অক্টোবর/জেআর/জেডএ)

সংবাদটি শেয়ার করুন

জাতীয় বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন ফিচার বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত