তাবলিগের সংকট নিয়ে বৈঠক, পাঁচ সিদ্ধান্ত

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ১৬ নভেম্বর ২০১৭, ১৪:১০

তাবলিগ জামাতে বেশ কিছু দিন ধরে চলা অস্থিরতা কাটাতে দেশের শীর্ষ আলেমদের সঙ্গে বৈঠক করেছেন কাকরাইল মারকাজের শীর্ষস্থানীয় ব্যক্তিরা। আগামী দিনে তাবলিগের কাজ সুষ্ঠুভাবে চলার ক্ষেত্রে পাঁচটি গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত হয়েছে এই বৈঠকে।

বৃহস্পতিবার সকাল ৭টায় রাজধানীর জামিয়া ইসলামিয়া দারুল উলূম মাদানিয়া যাত্রাবাড়ি মাদ্রাসায় তাবলিগ কাকরাইলের শূরার ১০ সদস্য এবং আলেমদের পাঁচজন প্রতিনিধির জরুরি পরামর্শ সভা অনুষ্ঠিত হয়।

বৈঠকে দীর্ঘ আলোচনা-পর্যালোচনার পর তাবলিগের চলমান সংকট নিরসনে উপস্থিত সবার সম্মতিক্রমে পাঁচটি গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত হয়। সিদ্ধান্তগুলো হচ্ছে:

এক. রাজধানী কাকরাইল মারকাজের সব বিষয়ে যথারীতি আগের মতোই শূরার বৈঠকে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।

দুই. দৈনন্দিন সাধারণ ব্যবস্থাপনাসংক্রান্ত বিষয়ে আগের মতোই মুকিমরাও (কাকরাইলে স্থায়ীভাবে অবস্থানরত) শূরার বৈঠকে উপস্থিত থাকতে পারবেন।

তিন. কোনো ব্যক্তি সম্পর্কে পরামর্শ; অর্থনৈতিক বিষয়ক পরামর্শ; সরকারের সঙ্গে যোগাযোগ ও আলোচনাসংক্রান্ত পরামর্শ অথবা এ ধরনের কোনো গুরুত্বপূর্ণ ও সংবেদনশীল সাময়িক বিষয়ে পরামর্শের সময় শূরার সদস্যরা ছাড়া মুকিম বা অন্য কেউ উপস্থিত থাকতে পারবেন না।

চার. কাকরাইলের শীর্ষ ব্যক্তিরা পাঁচজন আলেমকে নিজেদের পৃষ্ঠপোষক ও উপদেষ্টা হিসেবে গ্রহণ করেছেন। যখনই প্রয়োজন অনুভূত হবে অথবা আলেমরা প্রয়োজন মনে করবেন, তখন জটিল ও গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলো এই উলামা কমিটির সামনে পেশ করবেন এবং তাদের ফয়সালাও মেনে নেবেন। পাঁচজন আলেম হলেন, কওমি মাদ্রাসাসমূহের সর্বোচ্চ নিয়ন্ত্রকারী সংস্থা আল হাইয়াতুল উলইয়া লিল জামিয়াতিল কওমিয়া বাংলাদেশের কো-চেয়ারম্যান আল্লামা আশরাফ আলী, জামিয়া ইসলামিয়া দারুল উলূম মাদানিয়া, যাত্রাবাড়ির মুহতামিম, গুলশান সেন্ট্রাল (আজাদ) মসজিদের খতিব, আল্লামা মাহমূদুল হাসান, কওমি মাদ্রাসা শিক্ষাবোর্ড বেফাকের ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব আল্লামা আব্দুল কুদ্দুছ, শোলাকিয়া ঈদগাহের খতিব আল্লামা ফরীদ উদ্দিন মাসউদ, মারকাজুদ দাওয়াহ বাংলাদেশের আমিনুত তালিম (শিক্ষাসচিব) মাওলানা মুহাম্মাদ আব্দুল মালেক।

পাঁচ. আলেম-ওলামা ও কাকরাইলের শীর্ষ মুরব্বিদের মধ্যে আন্তরিকতাপূর্ণ সম্পর্ক অব্যাহত থাকবে। তাদের মধ্যে আসা-যাওয়া থাকবে। ভালোবাসা ও সৌহার্দ্য বজায় এবং মতবিনিময়ের ধারাও অব্যাহত থাকবে।

বৈঠকে আলেমদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন আল্লামা আশরাফ আলী,  আল্লামা মাহমূদুল হাসান, আল্লামা আব্দুল কুদ্দুছ, আল্লামা ফরীদ উদ্দিন মাসউদের প্রতিনিধি মুফতি মুহাম্মদ আলী, মাওলানা মুহাম্মাদ আব্দুল মালেক। আর কাকরাইলের শূরা সদস্যদের মধ্যে ছিলেন মাওলানা জুবায়ের আহমদ, মাওলানা রবিউল হক, মাওলানা মোহাম্মদ হোছাইন, মাওলানা ফারুক, ওয়াসিফুল ইসলাম, খান শাহাবউদ্দীন নাসিম, মাওলানা ওমর ফারুক, মাওলানা মোশাররফ হোসেন, মুহাম্মাদ ইউনুছ শিকদার, শেখ নূর মুহাম্মদ।

প্রসঙ্গত, গত ২৯ নভেম্বর স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর ধানমন্ডির বাসায় অনুষ্ঠিত সিদ্ধান্তক্রমে আজকের এই বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।

বৈঠক শেষে উপস্থিত আলেম, সংবাদকর্মী ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনী এবং সরকারের বিভিন্ন সংস্থার ব্যক্তিদের কাছে সিদ্ধান্তসমূহ পাঠ করে শুনিয়েছেন আল্লামা মাহমূদুল হাসান।

(ঢাকাটাইমস/১৬নভেম্বর/জেবি)

 

সংবাদটি শেয়ার করুন

ইসলাম বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন ফিচার বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত