যশোর-৫: মাঠে নেমেছেন টিপুর স্ত্রীসহ সাতজন

আব্দুর রহমান, যশোর
 | প্রকাশিত : ১৮ নভেম্বর ২০১৭, ০৮:২২

একানব্বই পরবর্তী সব কটি জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পান খান টিপু সুলতান।  সাম্প্রতিক সময়ে  তার মৃত্যুর পর এবার তার স্ত্রী ডা. জেসমিন আরা বেগম স্বামীর স্থানে আসীন হতে মাঠে নেমেছেন। বর্তমান সংসদ সদস্য স্বপন ভট্টাচার্য চান নিজের অবস্থান ধরে রাখতে।

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে যশোর-৫ (মনিরামপুর) আসনে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ থেকে কার কপালে জুটবে মনোনয়ন। নাকি তাদের বাইরে কেউ পাবেন মনোনয়ন। এ নিয়ে নেতাকর্মীদের মধ্যে যেমন চলছে জল্পনা-কল্পনা।

ওই দুজনের পাশাপাশি আরও ছয়জন সম্ভাব্য প্রার্থী রীতিমতো মনোনয়ন যুদ্ধে নেমেছেন। এলাকায় গণসংযোগে ব্যস্ত সবাই।

এই সাত মমনোনয়ন-প্রত্যাশীর মধ্যে শেষ পর্যন্ত নৌকার মাঝি কে হবেন তা নিয়ে দলীয় নেতাকর্মী সমর্থকদের মধ্যে চলছে বিচার-বিশ্লেষণ।

জানা যায়, ১৯৯১ থেকে ২০১৪ সাল পর‌্যন্ত সব কটি সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী হিসেবে লড়ে খান টিপু সুলতান বিজয় হন ১৯৯১, ১৯৯৬ ও  ২০০৮ সালে।

২০১৪ সালের নির্বাচনে খান টিপু সুলতান মনোনয়ন পেলেও বাধ সাধেন অপর আওয়ামী লীগ নেতা স্বপন ভট্টাচার্য চাঁদ। তিনি টিপু সুলতানের বিরুদ্ধে বিদ্রোহী প্রার্থী হন। ৫ জানুয়ারি ওই নির্বাচনে বিজয়ী হন স্বপন ভট্টাচার্য।

নৌকার বিরুদ্ধে বিদ্রোহী প্রার্থী হওয়ায় স্বপন ভট্টাচার্যকে দল থেকে বহিষ্কার করা হয়।  তবে গত বছর আওয়ামী লীগের সর্বোচ্চ নীতিনির্ধারণী থেকে তাকে আবার দলে ফিরিয়ে আনা হয়। স্বীকৃতি দেওয়া হয় দলীয় সংসদ সদস্য হিসেবে। এর পর থেকে স্বপন ভট্ট্রাচার্য চেষ্টায় আছেন দলীয় নেতাকর্মী সমর্থকদের মন জয় করতে।

আওয়ামী লীগের তৃণমূল থেকে শুরু করে নেতাকর্মী-সমর্থকদের একটি বৃহৎ অংশ ছিল সাবেক সংসদ সদস্য খান টিপু সুলতানের পক্ষে। এর মধ্যে হঠাৎ করেই ব্রেনস্ট্রোকে আক্রান্ত হয়ে গত ১৯ আগস্ট মারা যান তিনি।

অবশ্য আগেভাগেই নির্বাচনের মাঠে রয়েছেন বর্তমান সংসদ সদস্য স্বপন ভট্টাচার্য। এর বিপরীতে সম্ভাব্য প্রার্থী হিসেবে এলাকায় প্রচারণায় রয়েছে স্বপন ভট্টাচার্যের বড় ভাই আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য সাবেক সাংসদ অ্যাডভোকেট পীযূষ কান্তি ভট্টাচার্য, উপজেলা আওয়া লীগের সভাপতি পৌর মেয়র কাজী মাহমুদুল হাসান, কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগ নেতা আবদুল মজিদ, কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাবেক নেতা কামরুল হাসান বারি এবং সদ্য অবসরপ্রাপ্ত কাস্টমস কর্মকর্তা আওয়ামী লীগ নেতা মুক্তিযোদ্ধা ইউনুচ আকবর।

সাবেক সংসদ সদস্য খান টিপু সুলতানের মৃত্যুর পর আওয়ামী রাজনীতির দৃশ্যপট পাল্টে যেতে শুরু করেছে। শুরু হয়েছে নতুন মেরুকরণের। প্রয়াত খান টিপু সুলতানের জনপ্রিয়তাকে কাজে লাগিয়ে তার ভক্তরা একাট্টা হয়ে টিপু সুলতান স্মরণসভার নামে উপজেলার বিভিন্ন প্রান্তে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের ঐক্যবদ্ধ করে সভাসমাবেশ অব্যাহত রেখেছে। আর এসব সমাবেশে প্রধান অতিথির আসন অলংকৃত করছেন টিপু সুলতানের স্ত্রী ডা. জেসমিন আরা বেগম।

নেতাকর্মীদের সঙ্গে আলাপ করে জানা গেছে, আসন্ন সংসদ নির্বাচনে টিপু সুলতানের স্থানে তার স্ত্রীকে নৌকার মাঝি করতে এসব কর্মসূচির আয়োজন চলছে। গত ২৭ অক্টোবর উপজেলার ঢাকুরিয়ায় অনুরূপ স্মরণসভার নামে বিশাল জনসভার আয়োজন করা হয়।

অবশ্য এ আহ্বানে সাড়াও দিয়েছেন জেসমিন আরা বেগম। টিপু সুলতানের ভক্তরা তার স্ত্রীকে নিয়ে সভা-সমাবেশ অব্যাহত রেখেছেন। চলতি মাসেই উপজেলার রোহিতা, রাজগঞ্জ, নেহালপুরেও ঢাকুরিয়ার আদলে জনসভার আয়োজন চলছে।

এদিকে সম্প্রতি বিভিন্ন গণমাধ্যমে আওয়ামী লীগের সম্ভাব্য চূড়ান্ত প্রার্থীদের তালিকা প্রকাশ পেয়েছে। সেখানে মনিরামপুরে প্রার্থীর তালিকায় রয়েছে বর্তমান সংসদ সদস্য স্বপন ভট্টাচার্যের নাম। অবশ্য দলের অনেকেই মন্তব্য করছেন এ তালিকা চূড়ান্ত নয়।

আওয়ামী লীগের তৃণমূল থেকে শুরু করে বিভিন্ন স্তরের নেতাদের সাথে কথা বলে আভাস পাওয়া গেছে,  বর্তমান সম্ভাব্য সাতজন প্রার্থী থাকলেও শেষ পর্যন্ত নৌকার মাঝি হতে পারেন বর্তমান সংসদ সদস্য স্বপন ভট্টাচার্য অথবা টিপু সুলতানের স্ত্রী ডা. জেসমিন আরা বেগম।

আবার এ সাতজনের বাইরে থেকে কাউকে প্রার্থী করা হলেও আশ্চর্যের কোনো কারণ থাকবে না বলেও জানিয়েছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের এক প্রভাবশালী নেতা।

(ঢাকাটাইমস/১৮নভেম্বর/মোআ)

সংবাদটি শেয়ার করুন

রাজনীতি বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন ফিচার বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত