আরামদায়ক প্রস্থানের পথ খুঁজছে আ.লীগ: গয়েশ্বর

ব্যুরো প্রধান, খুলনা
 | প্রকাশিত : ২২ নভেম্বর ২০১৭, ১৯:৫৪

ক্ষমতা ছাড়লে পর ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের বিদেশ যাওয়ার পথও খোলা থাকবে না দাবি করে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেছেন, ক্ষমতা ছাড়তে আরামদায়ক পথ খুঁজছে আওয়ামী লীগ।

বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের ৫৩তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে খুলনা মহানগর বিএনপি আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন তিনি। বুধবার নগরীর ইউনাইটেড ক্লাব মিলনায়তনে আলোচনা সভাটি অনুষ্ঠিত হয়।

নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচনে পরাজিত হলেও তাদের দেশত্যাগ করতে হবে না- এমন নিশ্চয়তা দিয়ে আওয়ামী লীগের নেতাদের উদ্দেশে গয়েশ্বর সতর্ক করেন, ‘তবে শাসনকালে যত লুটপাট করেছেন, দুর্নীতি করেছেন, অনিয়ম করেছেন, অপরাধ করেছেন তার জন্য আপনাদের আদালতে যেতে হতে পারে।’

বিএনপির স্থায়ী কমিটির এই সদস্য দাবি করেন, ক্ষমতা থেকে সরে যেতে আওয়ামী লীগ ‘আরামদায়ক প্রস্থানের’ পথ খুঁজছে। তিনি বলেন, ‘এত অপকর্ম করেছেন, এত অপরাধ করেছেন যে ক্ষমতায় না থাকলে তারা (আ.লীগ) রেহাই পাবেন না।’

গয়েশ্বর চন্দ্র রায় আগামী নির্বাচনে বিএনপি অংশ নেবে কি না এ নিয়ে চিন্তা-ভাবনা করা থেকে বিরত থাকতে পরামর্শ দেন ‘কথিত’ বোদ্ধা মহলকে। তাদের উদ্দেশে তিনি বলেন, ‘বরং নির্দলীয় সরকারের অধীনে নিরপেক্ষ নির্বাচন হলে সেই নির্বাচনে আওয়ামী লীগ অংশ নেবে কি না তা নিয়ে চিন্তা করুন।’
এ সময় তিনি গত ১২ নভেম্বর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে বিএনপির সমাবেশের লোকসমাগমের কথা উল্লেখ করে বলেন, ‘স্মরণকালের বৃহত্তম সমাবেশ করেছে বিএনপি। অন্যদিকে ৭ মার্চের ভাষণ আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি পাওয়ায় ১৮ নভেম্বর আওয়ামী লীগের পাল্টা সমাবেশে পাঁচ ভাগের এক ভাগ লোকও হয়নি।’

বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার বিভিন্ন মামলায় আদালতে হাজিরা দেয়াকে লজ্জার হিসেবে উল্লেখ করে গয়েশ্বর চন্দ্র আশঙ্কা প্রকাশ করেন, ‘সাজানো বিচারব্যবস্থায় খালেদা জিয়াকে সাজা দেয়া হবে, নির্বাচনে অযোগ্য করা হবে। কিন্তু তা এ দেশে হতে দেয়া হবে না।’ তিনি হুঁশিয়ারি করেন,  ‘আগামীতে দেশে খালেদা জিয়া ও তারেক রহমান ছাড়া কোনো নির্বাচন হবে না। শেখ হাসিনার অধীনে কোনো নির্বাচন হবে না।’

গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানকে নিয়ে আশঙ্কা প্রকাশ করেন। তিনি বলেন, ‘তারেক রহমানকে নিয়ে আমাদের মাঝে যেমন উৎসাহ রয়েছে, প্রতিপক্ষরাও তাকে নিয়ে আতঙ্কিত। জাতীয়তাবাদের রাজনীতিকে সুদৃঢ় করতে তারকে রহমানের কোনো বিকল্প নেই। এ জন্য তাকে বিতর্কিত করতে তাদের যত প্রয়াস।’

বিএনপির কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক ও খুলনা মহানগর সভাপতি সাবেক এমপি নজরুল ইসলাম মঞ্জুর সভাপতিত্বে সভায় সম্মানিত অতিথি ছিলেন চেয়ারপারসনের উপদেষ্টাম-লীর সদস্য এম নুরুল ইসলাম দাদু ভাই। বিশেষ অতিথি ছিলেন কেন্দ্রীয় সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট আব্দুস সালাম আজাদ ও অনিন্দ্য ইসলাম অমিত।

আসাদুজ্জামান মুরাদের পরিচালনায় সভায় আরও বক্তব্য দেন খুলনা সিটি করপোরেশনের মেয়র মনিরুজ্জামান মনি, সাহারুজ্জামান মোর্ত্তজা, কাজী সেকেন্দার আলী ডালিম, রবিউল ইসলাম রবি, মীর কায়সেদ আলী, জাফরউল্লাহ খান সাচ্চু, স ম আব্দুর রহমান, ফখরুল আলম, অধ্যক্ষ তারিকুল ইসলাম, অধ্যাপক আরিফুজ্জামান অপু প্রমুখ।

(ঢাকাটাইমস/২২নভেম্বর/মোআ)

সংবাদটি শেয়ার করুন

রাজনীতি বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন ফিচার বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত