নিত্যপণ্যের মূল্য নিয়ে ক্ষমতাসীন জোটে উদ্বেগ

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
| আপডেট : ১১ ডিসেম্বর ২০১৭, ১৫:৪৪ | প্রকাশিত : ১১ ডিসেম্বর ২০১৭, ১৫:১৭

বেশ কিছু নিত্যপণ্যের মূল্যবৃদ্ধি নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে ক্ষমতাসীন জোট ১৪ দলের বৈঠকে। পণ্য সরবরাহ স্বাভাবিক থাকার পরও এই মূল্যবৃদ্ধির পেছনে কোনো কারসাজি আছে কি না, তা খতিয়ে দেখার তাগাদা দিয়েছেন নেতারা।

সোমবার ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে জোট নেতাদের এই বৈঠক হয়। সাম্যবাদী দলের সাধারণ সম্পাদক দীলিপ বড়ুয়ার নেতৃত্বে ওই বৈঠকে সাম্প্রতিক রাজনৈতিক পরিস্থিতি, বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার তোলা অর্থপাচারের অভিযোগ ছাড়াও নিত্যপণ্যের মূল্যবৃদ্ধি নিয়ে আলোচনা হয়।

চলতি বছর মার্চ-এপ্রিলে হাওরে আগাম বন্যায় চালের দাম বেড়ে যায় হঠাৎ করে। পরে মধ্যাঞ্চল এবং উত্তরাঞ্চলে বন্যার পর পরিস্থিতির আরও অবনতি হয়। এক পর্যায়ে মোটা চাল ৫০ টাকা এবং চিকন চালের দাম গিয়ে ৭০ টাকায় ঠেকে। আর সরকার আমদানি শূল্ক তুলে দিয়ে এবং নিজে আমদানি করে সরবরাহ বাড়ানোর পর দাম কমে কিছুটা। তবে এখনও দাম গত বছরের একই সময়ের তুলনায় ২৪ থেকে ৩০ শতাংশ বেশি।

বন্যার পর পরই বেড়ে যায় সবজির দামও। গত বছরের একই সময়ের তুলনায় ৫০ শতাংশ বা তার চেয়ে বেশি দামে সবজি কিনতে হয়েছে মানুষকে। শীতের সবজির সরবরাহ বাড়ার পর এসব পণ্যের দাম কমে আসার পথে থাকলেও এখন আবার উত্তাপ ছড়াচ্ছে পেঁয়াজের দাম।

গত কোরবানির ঈদের আগে থেকেই বাড়ছিল পেঁয়াজের দাম। ভারত রপ্তানিমূল্য বাড়িয়েছে, এই খবর পাওয়ার পর থেকেই গত এক মাসে দাম বাড়তে বাড়তে গিয়ে ঠেকেছে কেজিপ্রতি ১২০ থেকে ১৩০ টাকায়। পেঁয়াজ ও মুরগির দাম সমান হয়ে যাওয়ায় এ নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ব্যাপক ক্ষোভ ও কৌতুক ছড়াচ্ছে।   

১৪ দলের শরিক আনোয়ার হোসেন মঞ্জুর নেতৃত্বাধীন জাতীয় পার্টির (জেপি)মহাসচিব শেখ শহীদুল ইসলাম বলেন, ‘১৪ দলের বৈঠকে আজকে দেশের বিরাজমান অর্থনৈতিক পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা হয়েছে। দ্রব্যমূল্যের উর্ধ্বগতি, কিছু কিছু দ্রব্যের অতি মূল্য নিয়ে আলোচনা হয়েছে।’

শহীদুল বলেন, ‘সভায় সিদ্ধান্ত হয়েছে, আমাদেরকে দেখতে হবে কেন এই সময়ে দ্রব্যের সরবরাহ পযাপ্ত থাকার পরও দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধি পেল।’

বাজারে যেন কোনো কারজাসি না থাকে, সে জন্য সরকারি সংস্থার তদারকি বাড়ানোর তাগিদও দেন ১৪ দল নেতারা।

শেখ শহীদুল ইসলাম বলেন, ‘সামগ্রিকভাবে বাজার মনিটরিং জোরদার করা এবং দ্রব্যমূল সাধারণ মানুষের ক্রয়ক্ষমতার মধ্যে রাখার জন্য সরকারকে আহ্বান জানাচ্ছি।’

পৌর এলাকায় কর বৃদ্ধি নিয়েও উদ্বেগ জানানো হয় বৈঠকে। শহীদুল বলেন, ‘বিভিন্ন পৌরসভায় অস্বাভাবিক হোল্ডিং ট্যাক্স বৃদ্ধি কারো কাম্য নয়। এটা পুনর্বিবেচনা চাই।’

সভায় জেরুজালেমকে ইসরায়েলের রাজধানী হিসেবে যুক্তরাষ্ট্রের স্বীকৃতিরও নিন্দা জানানো হয়। তরিকত ফেডারেশনের চেয়ারম্যান সৈয়দ নজিবুল বশর মাইজভাণ্ডারি বলেন, ‘আমরা প্যালেস্টাইনের পক্ষে আমরা আমাদের অবস্থান পুনর্ব্যক্ত করছি। বিশ্ব জনমতের ভিত্তিতে এই সমস্যা সমাধানের আহ্বান জানাই।’

সাম্যবাদী দলের সাধারণ সম্পাদক দীলিপ বড়ুয়ার সভাপতিত্বে জোটের বৈঠকে জোটের সমন্বয়ক ও আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য মোহাম্মদ নাসিম, জাসদ (একাংশ) সভাপতি হাসানুল হক ইনু, জাসদের অপর অংশের নেতা শরীফ নুরুল আম্বিয়া, গণতন্ত্রী পার্টির সাধারণ সম্পাদক শাহাদাৎ হোসেন, আওয়ামী লীগের সম্পাদকমণ্ডলীর সদস্য আহমদ হোসেন, খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, আবদুস সোবহান গোলাপ, অসীম কুমার উকিল প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

ঢাকাটাইমস/১১ডিসেম্বর/টিএ/ডব্লিউবি

সংবাদটি শেয়ার করুন

রাজনীতি বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত