বাগেরহাটে নারী সাংসদের মেয়ে ছুরিকাঘাতে আহত

বাগেরহাট প্রতিনিধি, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ১৬ ডিসেম্বর ২০১৭, ২১:৫২

বিজয় দিবসের অনুষ্ঠান দেখে বাড়ি ফেরার পথে দুর্বৃত্তের ছুরিকাঘাতে বাগেরহাটের সংরক্ষিত নারী সংসদ সদস্য হেপী বড়ালের মেয়ে ব্যারিস্টার অদিতি বড়াল (২৭) জখম হয়েছেন।

শনিবার সন্ধ্যায় বাগেরহাট শহরের কে আলী রোডের আমলাপাড়া বিদ্যালয়ের সামনে এই ঘটনা ঘটে। তাকে উদ্ধার করে বাগেরহাট সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

নারী সংসদ সদস্যের মেয়ের ওপর হামলার খবর ছড়িয়ে পড়লে বাগেরহাট-২ আসনের সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট মীর শওকাত আলী বাদশা, বাগেরহাটের জেলা প্রশাসক তপন কুমার বিশ্বাস, পুলিশ সুপার পংকজ চন্দ্র রায়সহ আওয়ামী লীগ দলীয় নেতাকর্মীরা হাসপাতালে দেখতে যান। তবে পুলিশ এখনো ওই হামলাকারীকে ধরতে পারেনি।

অদিতি বড়াল ঢাকায় অবস্থিত লন্ডন কলেজ অব স্ট্যাডিজ এলএলবি সম্পন্ন করে মাস্টার্সে অধ্যয়নরত।

হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অদিতি বড়াল সাংবাদিকদের বলেন, বিজয় দিবস উপলক্ষে শহরের আমলাপাড়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে নারীদের সমাবেশ ছিল। সেই অনুষ্ঠানে আমি আমার মা হেপী বড়ালের সাথে যাই। অনুষ্ঠান শেষ হওয়ার আগে আমি মাকে বলে শালতলার বাড়ির উদ্দেশ্যে রওনা হই। বিদ্যালয় থেকে বেরিয়ে রাস্তায় এসে দাঁড়ালে অপরিচিত এক ব্যক্তি আমার সামনে এসে দাঁড়ায়। আমি নারী সংসদ সদস্য হেপী বড়ালের মেয়ে কি না তা জানতে চায়। আমি হ্যাঁ সূচক জবাব দিতেই তিনি ছুরি বের করে আমার পেটে আঘাত করে দ্রুত ঘটনাস্থল ত্যাগ করেন।

কেন তার ওপর হামলা হলো তা জানতে চাইলে তিনি বলেন, ২০০০ সালের ২০ আগস্ট আমার বাবা হিন্দু বৌদ্ধ, খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদ, আওয়ামী লীগ নেতা ও সাবেক উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট কালিদাস বড়ালকে প্রকাশ্য বিদালোকে শহরের সাধনার মোড়ে সন্ত্রাসীরা গুলি করে হত্যা করে। ২০১৩ সালে সেই হত্যাকারীদের আদালত সাজা দিয়েছে। ওই দণ্ডপ্রাপ্ত আসামিরা বর্তমানে কারাগারে রয়েছেন। প্রায় আট মাস আগে আমার বাড়িতে দুর্বৃত্তরা আমার উপর হামলা চালিয়েছিল। ওই সময়ে পুলিশের কাছে অভিযোগ দেয়া হয়। পুলিশ ওই সময়ে অপরাধীদের চিহ্নিত করে গ্রেপ্তার করেনি বলে তারা আবারও তার ওপর হামলা চালিয়েছে বলে অভিযোগ করেন তিনি।

অদিতি বলেন, আগে আমি পিতৃহারা হয়েছি। মা আমাদের তিন বোনকে আগলে রেখেছেন। তাই এখন আর মা-হারা হতে চাই না। তাই আমি আমার পরিবারকে নিরাপত্তা দিতে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করছি।

নারী সংসদ সদস্য হেপী বড়াল সাংবাদিকদের বলেন, আমার স্বামী কালিদাস বড়ালের হত্যাকারীদের বিচার হওয়ায় আসামিরা ক্ষুব্ধ। তারা আমাদের সব সময় হত্যার পরিকল্পনা করে আসছে। আমার স্বামীর জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আমাকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত করেছেন। আমি সাংসদ হওয়ায় দলের অনেকেই তা ভালোভাবে নিতে পারেনি। একারণেও আমার মেয়ের ওপর হামলা হয়ে থাকতে পারে। আমি ও আমার পরিবার এখন নিরাপত্তাহীন।

বাগেরহাট সদর হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ও সিভিল সার্জন ডা. অরুণ চন্দ্র মন্ডল সাংবাদিকদের বলেন, অদিতির পেটে ধারালো অস্ত্রের আঘাত রয়েছে। তার চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। তিনি এখন আশংকামুক্ত।

বাগেরহাট-২ আসনের সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট মীর শওকাত আলী বাদশা ঢাকাটাইমসকে বলেন, যারা আওয়ামী লীগ দলীয় এমপি হেপী বড়ালের মেয়ে অদিতি বড়ালের ওপর প্রকাশ্য দিবালোকে হামলা চালিয়েছে তাদের চিহ্নিত করে অবিলম্বে গ্রেপ্তার করে বিচারের কাঠগড়ায় দাঁড় করাতে পুলিশকে নির্দেশ দেন।

বাগেরহাটের পুলিশ সুপার পংকজ চন্দ্র রায় সাংবাদিকদের বলেন, নারী সংসদ সদস্য হেপী বড়ালের মেয়ে ব্যারিস্টার অদিতি বড়ালের হামলাকারীকে চিহ্নিত করতে পুলিশের একাধিক দল কাজ করছে। কারা কেন এই হামলা চালিয়েছে তা উদঘাটন করতে পুলিশ তদন্ত শুরু করেছে। খুব শিগগির তা বের করতে পারব বলে মন্তব্য করেন পুলিশের এই কর্মকর্তা। হামলার পর নারী সাংসদ হেপী বড়ালের পরিবারের নিরাপত্তা দিতে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

(ঢাকাটাইমস/১৬ডিসেম্বর/প্রতিনিধি/জেবি)

সংবাদটি শেয়ার করুন

অপরাধ ও দুর্নীতি বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত