‘যারা দ্বীনের পথে চলবে, আল্লাহ তাদের সফল করবেন’

ইফতেখার রায়হান, ইজতেমা ময়দান থেকে
 | প্রকাশিত : ১২ জানুয়ারি ২০১৮, ২০:১৯
ফাইল ছবি

ব্যাপক উদ্দীপনা ও ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্যপূর্ণ পরিবেশে শুক্রবার বাদ ফজর জর্ডানের মাওলানা শায়েখ ওমর খতিবের আ’ম বয়ানের মধ্যদিয়ে শুরু হয়েছে বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্ব। এবারই প্রথম আম বয়ান আরবিতে করা হলো।

তার বয়ান ভাষান্তর করেন স্বাগতিক বাংলাদেশের মাওলানা মো. আবদুল মতিন। বাদ জুমা বয়ান করেন মাওলানা মোহাম্মদ হোছাইন, বাদ আসর বয়ান করেন মাওলানা আব্দুল বাসেত, বাদ মাগরিব বয়ান করেন মাওলানা রবিউল হক।

ইজতেমার প্রথম দিন বিশ্বের ৭১টি দেশের প্রায় ১০ হাজার প্রতিনিধি অংশগ্রহণ করেন। অনুকূল আবহাওয়া ও শান্তিপূর্ণ পরিবেশ বজায় থাকায় ইজতেমায় আগত মুসল্লিরা স্বাচ্ছন্দে তাবলিগ জামাতের শীর্ষ মুরুব্বিদের বয়ান শুনেছেন এবং ইবাদত বন্দেগিতে মশগুল রয়েছেন। আগামী রবিবার দুপুরের আগে আখেরি মোনাজাতের মধ্যদিয়ে এবারের বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্বের সমাপ্তি ঘটবে।

দিল্লির মাওলানা মোহাম্মদ সা’দ কান্ধলভী এবার ইজতেমা ময়দানে না আসায় আখেরি মোনাজাত পরিচালনা করার কথা রয়েছে কাকরাইল জামে মসজিদের খতিব হাফেজ মাওলানা জোবায়ের আহমদের।

চার দিন বিরতি দিয়ে আবার ১৯ জানুয়ারি শুরু হয়ে ২১ জানুয়ারি জোহরের আগে কোন এক সময় আখেরি মোনাজাতের মধ্যদিয়ে শেষ হবে বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় পর্ব তথা এবারের ৫৩তম বিশ্ব ইজতেমা।

প্রথম দিনের বয়ানে যা বলা হলো: বাদ ফজর জর্ডানের মাওলানা শায়েখ ওমর খতিব ঈমান, আমল ও নামাজ সম্পর্কে বিস্তারিত বয়ান করেন। তার বয়ানে তিনি বলেন, যারা দুনিয়াতে দ্বীনের উপর চলবে, ঈমানকে সুন্দর করবে, আমলকে সুন্দর করবে, আল্লাহ তায়ালা তাদের কামিয়াবি দান করবেন।

তিনি আরও বলেন, ঈমান ও আমল ছাড়া দুনিয়া ও আখিরাতে কামিয়াব হওয়া যাবে না। ঈমান আমলের পাশাপাশি নামাজকে সুন্দর করতে হবে। আল্লাহকে পেতে হলে নামাজ পড়তে হবে। জাহান্নাম থেকে বাঁচতে এবং জান্নাত লাভের মাধ্যম হলো নামাজ। দিনে পাঁচবার নামাজের মাধ্যমে আল্লাহর সাথে কথা বলা হয়। যে ব্যক্তি দৈনিক পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ খুশু-খুযুর সাথে আদায় করবে, আল্লাহ তাকে নাজাত দেবেন।

বয়ানে আরও বলা হয়, দুনিয়ার জিন্দেগি অনিশ্চিত জিন্দেগি, অক্ষম জিন্দেগি। দুনিয়ার জিন্দেগি হলো ধোকার জিন্দেগি। আর হাকিকতে বা বাস্তবতার দিক দিয়ে আসল জিন্দেগি হলো আখেরাতের জিন্দেগি। আখেরাতের জিন্দেগি হলো চিরস্থায়ী জিন্দেগি। অবশ্যই প্রত্যেক মানুষকে আখেরাতের জিন্দেগিতে যেতে হবে। প্রত্যেক মানুষকে দুনিয়ার জিন্দেগি ছেড়ে যেতে হবে। এতে কোন রকমের সন্দেহ নেই।

তিনি বলেন, আল্লাহ তায়ালা আখেরাতের জিন্দেগির খবর দিয়েছেন নবিদের মাধ্যমে। আখেরাতের জিন্দেগির কখনও শেষ হবে না।

তিনি আরও বলেন, বুদ্ধিমান লোক সেই, যে দুনিয়াতে থাকতেই আখেরাতের জিন্দেগির প্রস্তুতি নেয়। মওতের আগে আগেই সে নিজেকে শুধরে নেয়, সংশোধন করে নেয়। নিজের জীবনকে দ্বীন, ইসলাম, শরিয়ত ও সুন্নত মোতাবেক পরিচালিত করে আখেরাতের প্রস্তুতি নেয়, তাকেই বুদ্ধিমান বলা হয়েছে। আর বোকা ও বুদ্ধিহীন লোক তাকেই বলা হয়েছে যে, নিজের মনমতো, নিজের খায়েশমতো চলে, আখেরাতের জন্য কোন প্রস্তুতি নেয় না অথচ আল্লাহপাকের পক্ষ থেকে দয়া, ক্ষমা, রহমতের আশা করে। কিন্তু আখেরাতের জন্য প্রস্তুতি নেয় না। কোন মেহনত করে না।

বয়ানের তাৎক্ষণিক অনুবাদ: বিশ্ব ইজতেমায় বাংলাদেশ, ভারত, জর্ডান ও পাকিস্তানের তাবলিগ মারকাজের ১৫-২০ জন শুরা সদস্য ও বুজর্গ বয়ান পেশ করছেন। মূল বয়ান উর্দুতে হলেও বাংলা, ইংরেজি, আরবি, তামিল, মালয়, তুর্কি ও ফরাসি ভাষায় তাৎক্ষণিক অনুবাদ করা হচ্ছে। বিদেশি মেহমানরা মূল বয়ান মঞ্চের উত্তর, দক্ষিণ ও পূর্বপাশে হোগলা পাটিতে বসেন। বিভিন্ন ভাষাভাষীর মুসল্লিরা আলাদা আলাদা বসেন এবং তাদের মধ্যে একজন মুরব্বি মূল বয়ানকে তাৎক্ষণিক অনুবাদ করে শুনান।

জুমার জামাতে ভিআইপিদের অংশগ্রহণ: শুক্রবার টঙ্গীর বিশ্ব ইজতেমা ময়দানে অনুষ্ঠিত জুমার জামাতে জাতীয় সংসদের ডেপুটি স্পিকার মো. ফজলে রাব্বী মিয়া, মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী অ্যাডভোকেট আ.ক.ম মোজাম্মেল হক, স্থানীয় এমপি মো. জাহিদ আহসান রাসেল, গাজীপুর মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট জাহাঙ্গীর আলম, ঢাকা রেঞ্জের ডিআইজি আবু কালাম সিদ্দিক, গাজীপুরের জেলা প্রশাসক ড. দেওয়ান মোহাম্মদ হুমায়ুন কবীর, গাজীপুরের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ হারুন অর রশীদ ইজতেমা ময়দানে জুমার নামাজে অংশ নেন।

বধিরদের জন্য বয়ান: শুক্রবার সকাল ১০টার দিকে বিভিন্ন স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসা ও বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের জন্য নামাজের মিম্বার থেকে খাস বয়ান, শিক্ষকদের জন্য বয়ানের মিম্বার থেকে খুসুসি বয়ান ও বধিরদের জন্য পৃথকভাবে বয়ান করা হয়। এছাড়াও শবগুজারি আমলের কামরায় খাওয়াজদের জন্য বিশেষ বয়ান পেশ করা হয়।

ইজতেমায় বিদেশি মুসল্লিদের অংশগ্রহণ: ইজতেমার প্রথম পর্বে সৌদি আরব, জর্ডান, মিসর, ওমান, সংযুক্ত আরব-আমিরাত, কাতার, কানাডা, কম্বোডিয়া, ডেনমার্ক, ফিনল্যান্ড, জার্মানি, ইরান, জাপান, মাদাগাস্কার, মোজাম্বিক, নাইজেরিয়া, পানামা, সেনেগাল, দ. আফ্রিকা, তাঞ্জানিয়া, রাশিয়া, আমেরিকা, জিম্বাবুয়ে, বেলজিয়াম, ক্যামারুন, চীন, কমোরস, ফিজী, ফ্রান্স, ইন্দোনেশিয়া, মালয়েশিয়া, শ্রীলংকা, নিউজিল্যান্ড, নরওয়ে, ফিলিপাইন, সিঙ্গাপুর, আফগানিস্তান, অস্ট্রেলিয়া, থাইল্যান্ড, কুয়েত, মরক্কো, কাতার, তিউনিসিয়া, ইয়েমেন, বাহরাইন, ইরিত্রিয়া, মৌরিতানিয়া, ভারত, দুবাইসহ বিশ্বের অর্ধ শতাধিক দেশের প্রায় ১৫ হাজার মুসল্লি ইজতেমায় অংশ নিয়েছেন। বিভিন্ন ভাষা-ভাষী ও মহাদেশ অনুসারে ইজতেমা ময়দানে বিদেশি মেহমানদের ভিন্ন ভিন্ন তাবু নির্মাণ করা হয়েছে। সেখানে তাদের জন্য প্রয়োজনীয় সুযোগ-সুবিধার ব্যবস্থা রাখা হয়েছে বলে নিশ্চিত করেছেন বিদেশি নিবাসে দায়িত্বরত নামপ্রকাশে অনিচ্ছুক শূরা ইস্তেকবালের এক মুরুব্বি।

(ঢাকাটাইমস/১২জানুয়ারি/প্রতিনিধি/এলএ)

সংবাদটি শেয়ার করুন

বাংলাদেশ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত