ভরাডুবির ভয়ে সরকারের খেলা: মোশাররফ

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
| আপডেট : ১৭ জানুয়ারি ২০১৮, ১৯:৫৩ | প্রকাশিত : ১৭ জানুয়ারি ২০১৮, ১৬:৪২

হাইকোর্টে রিট আবেদনে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনে মেয়র পদে উপনির্বাচন স্থগিত হওয়ার পেছনে সরকারের হাত থাকার অভিযোগ করেছেন বিএনপি নেতা খন্দকার মোশাররফ হোসেন।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির এই সদস্যের দাবি, সরকার নিজের লোক দিয়ে রিট করিয়ে নির্বাচন বন্ধ করে দিয়েছে।

বুধবার জাতীয় প্রেসক্লাবের এক আলোচনায় এসব কথা বলেন মোশাররফ। স্বাধীনতা ফোরাম এ আলোচনার আয়োজন করে।

আগামী ২৬ ফেব্রুয়ারির ভোটকে সামনে রেখে দলগুলা যখন প্রার্থী বাছাই করে ফেলেছে তখন ভাটারা এবং বেরাইদ ইউনিয়নের দুই চেয়ারম্যানের আবেদনে বুধবার ভোট তিন মাস স্থগিত করে হাইকোর্ট।

এই দুই চেয়ারম্যানের মধ্যে ভাটারার চেয়ারম্যান বিএনপির নেতা। তিনি ভাটারা থানা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক। অন্যদিকে বেরাইদের চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর আলম বাড্ডা থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক।

দুই রিটকারীর একজন বিএনপির নেতা হলেও মোশাররফ বলেন, ‘সরকার যখন বুঝতে পেরেছে যে উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র উপ-নির্বাচনে তাদের ভরাডুবি হবে, তখন কোর্টে নিজেদের লোক দিয়ে রিট করিয়ে নির্বাচন স্থগিত করে দেওয়া হয়েছে।’

‘কী সুন্দর খেলা!’ এমন মন্তব্য করে বিএনপি নেতা বলেন, ‘ডিএনসিসি উপ-নির্বাচনের সম্ভাব্য ফলাফলের গোয়েন্দা রিপোর্ট আগেই সরকারের হাতে এসেছে। এসব রিপোর্টে উপ-নির্বাচনে আওয়ামী লীগের ভরাডুবির চিত্র ফুটে উঠেছে।’

কুমিল্লা সিটি করপোরেশন, রংপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনের মাধ্যমে আওয়ামী লীগের পরাজয় শুরু হয়েছে বলেও দাবি করেন মোশাররফ। বলেন, ‘আমাদের জয় শুরু হয়েছে।’

‘আগামী একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনেও আওয়ামী লীগের প্রার্থীদের এমন শোচনীয় পরাজয় হবে যে, তাদের প্রার্থীদের জামানত পর্যন্ত বাজেয়াপ্ত হয়ে যাবে।’

‘আমরা বলতে চাই, আওয়ামী লীগের যে পরাজয় শুরু হয়েছে, তাদের এই পরাজয় একাদশ সংসদ নির্বাচন পর্যন্ত কেউ রুখতে পারবে না, তা অব্যাহত থাকবে।’

আগামী নির্বাচন নিয়ে মোশারফ বলেন, ‘মানুষের ভোটাধিকার ও গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনতে আমরা নির্বাচনে যাব। তবে শেখ হাসিনার অধীনে নয়।’

‘নিরপেক্ষ নির্দলীয় নির্বাচনকালীন সরকারে অধীনে সেই নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। আর সেই নির্বাচনে বিএনপি অংশ গ্রহণ করবে ‘

দুর্নীতির মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা খালেদা জিয়াকে কোনোভাবেই সাজা দেয়া যাবে না মন্তব্য করে মোশাররফ বলেন, ‘তিনি (খালেদা) রাজনৈতিক ষড়যন্ত্রের শিকার।’

স্বাধীনতা ফোরামের সভাপতি আবু নাসের মুহাম্মদ রহমাতুল্লাহর সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান বরকত উল্লাহ বুলু, কল্যাণ পার্টির সৈয়দ মো. ইবরাহীম, ঢাকা দক্ষিণ বিএনপির সহ-সভাপতি ফরিদ উদ্দিন, সাবেক ছাত্রদল নেতা এবিএম মোশারফ হোসেন।                                      

ঢাকাটাইমস/১৭জানুয়ারী/জিএম/ডব্লিউবি

সংবাদটি শেয়ার করুন

রাজনীতি বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত