ছাত্রলীগ নেতার বিরুদ্ধে ব্যবসায়ীর ২১ অভিযোগ

বরিশাল ব্যুরো, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ১৮ জানুয়ারি ২০১৮, ২০:২৮

বরিশাল সরকারি বিএম কলেজের ছাত্রলীগ নেতা নাহিদ সেরনিয়াবাতের বিরুদ্ধে ২১টি অভিযোগ এনে সংবাদ সম্মেলন করেছেন এক ব্যবসায়ী। তার অভিযোগ, নাহিদ তার ৬২ লাখেরও বেশি টাকা মেরে দিয়েছেন।

বৃহস্পতিবার দুপুরে বরিশাল রিপোর্টার্স ইউনিটিতে এক সংবাদ সম্মেলনে এই অভিযোগ আনেন ব্যবসায়ী জাহিদ হোসেন।

জাহিদের অভিযোগ, নাহিদের কাছে তার ব্যবসার ৬২ লক্ষ ৩৭ হাজার টাকা পাওনা রয়েছে। কিন্তু সে টাকা না দেয়ায় তিনি মামলা করেছেন। আর নাহিদ ফেসবুকে তাকে জামায়াত-শিবির ও মাদক বিক্রেতা সাজানোর চেষ্টা করছেন।

এই ব্যবসায়ীর অভিযোগ, তার নিজের ছাড়াও বিভিন্ন ব্যক্তির বিপুল পরিমাণ টাকা মেরে দিয়েছেন নাহিদ। এদের মধ্যে একজন আত্মহত্যাও করেছেন নিজ বাড়িতে।

এই ব্যবসায়ী জানান, নাহিদের ‘অত্যাচার’ থেকে বাঁচতে তিনি ইতিমধ্যে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, র‌্যাব, বরিশালের পুলিশ কমিশনার, ডিআইজি, নিরাপত্তা গোয়েন্দা সংস্থা এনএসআই ও রাষ্ট্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা ডিজিএফআই এর কাছেও চিঠি দিয়েছেন।

জাহিদের বিরুদ্ধে ঝালকাঠি আদালতে করা মামলায় হাজিরা দিতে যাওয়ার সময় বিভিন্নভাবে বাধা সৃষ্টির অভিযোগও আনেন ওই ব্যবসায়ী। ঝালকাঠি এসপি অফিস থেকে বরিশালে আসার পথে তার ভাড়া করা মাহিন্দ্রায় মাদক রেখে ফাঁসানোর চেষ্টার অভিযোগও আনেন তিনি।

জাহিদ একজন ইটভাটা ব্যবসায়ী। এই ভাটার শ্রমিকদের শর্টগানের ভয় দেখিয়ে কাজ করতে বাধ্য করার অভিযোগও তিনি আনেন নাহিদের বিরুদ্ধে। তিনি বলেন, অস্ত্রের ভয় দেখিয়ে পাঁচ থেকে ছয় জন শ্রমিককে ভাটায় আটকে রাখা হয়েছে। এরপর গোয়েন্দা অফিসে বেনামে সই করে তাকে মাদক বিক্রেতা সাজানোর চেষ্টাও করা হয়েছে।

জাহিদের অভিযোগ, সেলিম নামে এক ব্যক্তির মাথায় শর্টগান দিয়ে আঘাত করেছিলেন নাহিদ। নাহিদ অস্ত্রসহ ঢাকায় র‌্যাবের হাতে আটক হয় বলেও জানান তিনি।

এই ব্যবসায়ী জানান, চাঁদমারি ব্যবসায়ী মাহতাব ট্রেডার্স ৭ লক্ষ টাকা পাবে নাহিদের কাছে। ঝালকাঠির রফিকুল ইসলাম নামে এক ব্যাংকের কর্মকর্তার জমি দখলের সঙ্গেও নাহিদ জড়িত।

এর বাইরে বরিশাল নগরীর ২১নং ওয়ার্ডে আলতাফ হাজী কলোনির ইটালী বিল্ডিংয়ের দুটি ফ্ল্যাট কিনতে ৩৭ লক্ষ টাকার চেক দেন নাহিদ। পরে দুইটি ফ্লাটের দলিলও করা হয়। কিন্তু চেক ব্যাংকে জমা দিলে ওই হিসাবে মাত্র এক হাজার ২৫ টাকা পাওয়া গেছে।

মাসুদ নামে এক ব্যক্তিরও ১০ লক্ষ ৪০ হাজার টাকা নাহিদ মেরে গিয়েছেন বলে জানান ব্যবসায়ী জাহিদ। এর বাইরে নিজাম নামে এক ব্যক্তিও ১২ লক্ষ ৭০ হাজার টাকা পাওনার দাবিতে নাহিদের বিরুদ্ধে বরিশাল আদালতে মামলা করেছেন।

এ ছাড়া ঠিকাদারী কাজকে কেন্দ্র করে ২০নং ওয়ার্ডের জিয়াউদ্দিন বিপ্লবকে লাঞ্ছিত করা, নিউ কলেজ রোডের মোকসেদুর রহমানের ৬২ বছরের ভিটামাটি বসতবাড়ি দখলের হুমকি অভিযোগর অভিযোগও করা হয় নাহিদের বিরুদ্ধে।

গত ২১ সেপ্টেম্বর নগরীর করিম কুটির এলাকায় আত্মহত্যা করা ব্যবসায়ী নাজিবুল হাসান রনিরও ৫০ লাখ টাকা নাহিদ আত্মসাৎ করেছেন বলে অভিযোগ করা হয় সংবাদ সম্মেলনে।

ঢাকাটাইমস/১৮জানুয়ারি/প্রতিনিধি/ডব্লিউবি

সংবাদটি শেয়ার করুন

বাংলাদেশ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত