আইভীর অসুস্থতার খবরে হকারদের ফেরার চেষ্টা

মাজহারুল ইসলাম রোকন, নারায়ণগঞ্জ
 | প্রকাশিত : ১৮ জানুয়ারি ২০১৮, ২১:৫০

নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের মেয়র সেলিনা হায়াৎ আইভী অসুস্থ হয়ে ঢাকার একটি হাসপাতালে ভর্তির খবরে হকাররা আবার শহরে বঙ্গবন্ধু সড়কের ফুটপাতে ফিরে আসার চেষ্টা করছে।

আইভী অসুস্থ হয়েছেন বিকালে। আর শহরের বঙ্গবন্ধু সড়কের দুই পাশে পাঁচটার পর থেকে হকাররা বসার চেষ্টা করেছে। তবে খবর পেয়ে পুলিশ এসে তাড়িয়েও দিচ্ছে।

একদিকে হকার বসছে অন্যদিকে পুলিশ এসে তাড়াচ্ছে-এমন চিত্র দেখা গেছে রাত অবধি।
হকার উচ্ছেদ নিয়ে মঙ্গলবার নারায়ণগঞ্জে সংঘর্ষের পরদিন সিদ্ধান্ত হয় বঙ্গবন্ধু সড়ক ছাড়া অন্য এলাকায় হকাররা বসবে বিকালের পর।

কিন্তু হকারদের অনেকেই জানিয়েছেন, সিটি মেয়র সেলিনা হায়াৎ আইভীর অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে ভর্তির খবরে তারা বঙ্গবন্ধু সড়কেও ফুটপাতে বসার চেষ্টা করেছেন।

গত বছরের ২৫ ডিসেম্বর থেকে নারায়ণগঞ্জ শহরে হকার উচ্ছেদ শুরু করে নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসন, পুলিশ প্রশাসন ও সিটি করপোরেশন। এরপর থেকে শহরে সভা সমাবেশ বিক্ষোভ মিছিল স্মারকলিপি ও সড়ক অবরোধের কর্মসূচি পালন করে আসতে থাকে হকাররা।

হকারদের বিষয়ে ব্যবস্থা নিতে ১৪ জানুয়ারি সদর আসনের সংসদ সদস্য সেলিম ওসমানের একটি চিঠি নগর ভবনে মেয়রের কাছে পৌঁছে দেয়া হয়। এতে সেলিম ওসমান তিনটি বিকল্প স্থানের প্রস্তাব দেন। ওই দিনই সিটি করপোরেশনের পক্ষ থেকে চিঠিতে চারটি বিকল্প স্থানের প্রস্তাবনা করা হয়।

পরদিন ১৫ জানুয়ারি বিকেলে শহরের চাষাঢ়ায় সলিমুল্লাহ সড়কে হকারদের সমাবেশ থেকে সিদ্ধিরগঞ্জ-ফতুল্লা আসনের সংসদ সদস্য শামীম ওসমান ২৪ ঘণ্টার আল্টিমেটাম দিয়ে ১৬ জানুয়ারি বিকেল পাঁচটা থেকে শহরে হকার বসানোর ঘোষণা দেন।
তবেন ১৬ জানুয়ারি বিকালে শামীম ওসমান ও মেয়র সেলিনা হায়াৎ আইভীর সমর্থকদের মধ্যে ব্যাপক সংঘর্ষ হয়। আর এ কারণে শামীম ওসমানের ওই ঘোষণার বাস্তবায়ন হয়নি।

পরদিন বিকেলে হকার সংগ্রাম পরিষদের নেতাদের সঙ্গে এক বৈঠকে শহরের বঙ্গবন্ধু সড়ক ছাড়া শহরের অন্য সড়কে বিকাল পাঁচটা থেকে হকার বসার অনুমতি দিয়েছিল প্রশাসনের উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা। এই নির্দেশনা কার্যকর হওয়ার কথা আজ বৃহস্পতিবার থেকে।

এরই মধ্যে বিকালে নগরভবনে অসুস্থ হয়ে পড়েন মেয়র আইভী। স্থানীয় চিকিৎসকরা পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর তাকে ঢাকায় একটি হাসপাতালে পাঠান।

এই খবর পেয়ে হকাররা বিকালেই চাষাঢ়ায় বঙ্গবন্ধু সড়ক হতে ২নং রেলগেইটসহ ডিআইটি এলাকার ফুটপাতে দোকানপাট খুলে বসার চেষ্টা করতে থাকে।

নারায়ণগঞ্জ হকার আন্দোলন সংগ্রাম পরিষদের আহ্বায়ক আসাদুল ইসলাম আসাদ ঢাকাটাইমসকে বলেন, ‘আমরা আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। প্রশাসন আমাদেরকে বঙ্গবন্ধু সড়ক ছাড়া অন্য সড়কে বসার অনুমতি দিয়েছে। কিন্তু আমাদের সাধারণ হকাররা তা মেনে নিতে পারছে না। পেটের দায়ে কিছু হকার বসলেও হকার সমিতির পক্ষ হতে কোন ধরনের নির্দেশনা নাই।’

নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের সংসদ সদস্য সেলিম ওসমান চিকিৎসা শেষে দেশে ফিরলে তার সাথে আলোচনার পর পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেয়া হবে বলেও জানান এই হকার নেতা।

দীর্ঘদিন হকার আন্দোলনে নেতৃত্ব দেয়া জেলা সিপিবি ও ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্রের সভাপতি হাফিজুল ইসলাম বলেন, ‘আমরা প্রশাসনের সিদ্ধান্ত হকারদের জানিয়ে দিয়েছি। কিন্তু বেশিরভাগ হকারই হচ্ছে বঙ্গবন্ধু সড়কের। এজন্য তারা এ সিদ্ধান্তকে মেনে নেয়নি। তবে এর আগেও তাদেরকে নিয়ন্ত্রণ করাও যায়নি। তারা সুযোগ পেলেই বঙ্গবন্ধু সড়কে বসে পড়ছে। ’

নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানা পুলিশের পরিদর্শক (তদন্ত) আব্দুর রাজ্জাক জানান, হকারদের বঙ্গবন্ধু সড়ক ছাড়া মেট্রো সিনেমা হলের সামনে বসার জন্য প্রশাসনের পক্ষ হতে হকারদের অনুমতি দেয়া হয়েছে। তারা সেখানেই বসতে পারে। অন্য সড়কে বসতে পারবে না।

‘বঙ্গবন্ধু সড়কে ফুটপাতে কিছু হকার দোকান পাট খুলে বসলেও রাত সাড়ে সাতটার দিকে উচ্ছেদ করে দেয়া হয়।’

ঢাকাটাইমস/১৮জানুয়ারি/প্রতিনিধি/ডব্লিউবি

সংবাদটি শেয়ার করুন

বাংলাদেশ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত