প্রক্টর ঘেরাও: শিক্ষার্থীদের বিরুদ্ধে ঢাবি কর্তৃপক্ষের মামলা

ঢাবি প্রতিনিধি, ঢাকাটাইমস
| আপডেট : ১৯ জানুয়ারি ২০১৮, ০০:০৫ | প্রকাশিত : ১৮ জানুয়ারি ২০১৮, ২৩:৫১

সাত সরকারি কলেজের অধিভুক্তি বাতিলের দাবিতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের সময় মেয়েদের যৌন হয়রানির প্রতিবাদে প্রক্টরের কার্যালয় ঘেরাওকালে ভাঙচুরের ঘটনায় ৫০ থেকে ৬০ জন শিক্ষার্থীর বিরুদ্ধে মামলা করেছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। তবে মামলায় কারও নাম উল্লেখ করা হয়নি।

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় এই মামলার খবরে রাতে আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা উপাচার্য আখতারুজ্জামানের বাড়ির সামনে অবস্থান নিয়ে প্রতিবাদ জানায় শিক্ষার্থীরা। তারা মামলা প্রত্যাহারের দাবি জানিয়েছে।

এদিকে ‘যৌন হয়রানীকারী’ ছাত্রলীগ নেতা কর্মীদের শনাক্তে গঠন করা হয়েছে তদন্ত কমিটি।

বৃহস্পতিবার বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান নিরাপত্তা কর্মকর্তা এস এম কামরুল আহসান বাদী হয়ে রাজধানীর শাহবাগ থানায় মামলা করেন।

ঢাকাটাইমসকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন প্রক্টর গোলাম রাব্বানী ও শাহাবাগ থানার ভারপ্রাপ্ত পুলিশ কর্মকতা আবুল হাসান।

গত সোমবার সাত কলেজের অধিভুক্তি বাতিলের দাবিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে বাধা দেয়ার চেষ্টার অভিযোগ উঠে ছাত্রলীগ কর্মীদের বিরুদ্ধে। আন্দোলনে নামা মেয়েদেরকে ক্ষমতাসীন দলের ছাত্র সংগঠনের কয়েকজন নেতা বাজে মন্তব্য করে হয়রানি করেছেন বলেও অভিযোগ উঠে।

একই দিন ছাত্রলীগ নেতা-কর্মীরা আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীদের সমন্বয়ক মশিউর রহমান সাদিককে কৌশলে উপাচার্যের বাসভবনে নিয়ে যায়। পরে তাকে শাহবাগ থানায় দেয়া হয়। সাদিক এরই মধ্যে মুক্তি পেয়েছেন। তবে তিনি মারধরের অভিযোগ এনেছেন।

আর মেয়েদের যৌন হয়রানি ও সাদিককে নির্যাতনে জড়িত ছাত্রলীগ নেতা-কর্মীদের বহিষ্কার ও শাস্তির দাবিতে বুধবার প্রক্টরের কার্যালয় ঘেরাও করে শিক্ষার্থীরা। এ সময় প্রক্টরের অফিসের গেট ভেতর থেকে তালাবদ্ধ ছিল। পরে শিক্ষার্থীরা গেট ভেঙে ফেলে।

শাহবাগ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা জানিয়েছেন, ভাঙচুরের বেশ কয়েকটি ছবি ও ভিডিও পুলিশের কাছে জমা দেওয়া হয়েছে। এই ছবি দেখেই আসামিদের শনাক্ত করার চেষ্টা করা হবে।

প্রক্টর গোলাম রাব্বানী ঢাকাটাইমসকে বলেন, ‘বুধবার বিশ্ববিদ্যালয়ের কলা ভবনের পূর্ব গেইট ও প্রক্টর অফিস ভাঙচুরের দায়ে ৫০-৬০ জনের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে। তবে মামলায় কারো নাম উল্লেখ করা হয়নি।’

‘নিপীড়ক’ ছাত্রলীগ নেতাদের শনাক্তে দুই কমিটি

এদিকে শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের সময় মেয়েদেরকে ছাত্রলীগের কয়েকজন নেতার হয়রানির অভিযোগের বিষয়টি তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়ার আশ্বাস দিয়েছেন উপাচার্য আখতারুজ্জামান। 

ঢাকাটাইমসকে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের এই সর্বোচ্চ কর্মকর্তা বলেন, ‘শিক্ষার্থীদের অভিযোগের ভিত্তিতে দুটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটির প্রতিবেদনের আলোকে ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

এদিকে আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা নিপীড়নকারী ছাত্রলীগ নেতাদেরকে বহিষ্কারসহ শাস্তির দাবিতে সোমবার পর্যন্ত সময় বেঁধে দিয়েছে। এর মধ্যে ব্যবস্থা নেয়া না হলে মঙ্গলবার থেকে লাগাতার কর্মসূচিতে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছে তারা।

ঢাকাটাইমস/১৮জানুয়ারি/এনইনচএস/ডব্লিউবি

সংবাদটি শেয়ার করুন

শিক্ষা বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত