আ.লীগের দুই পক্ষের সংঘর্ষে আহত অর্ধ শতাধিক

ফরিদপুর প্রতিনিধি, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ২০ জানুয়ারি ২০১৮, ১৮:২৭

ফরিদপুরের সালথায় আওয়ামী লীগের দুই পক্ষের পৃথক সংঘর্ষে অর্ধ শতাধিক ব্যক্তি আহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। আহতদের নগরকান্দা উপজেলা হাসপাতাল ও ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপতলে ভর্তি করা হয়েছে। এসময় সংঘর্ষকারীরা একে অপরের প্রায় ৩০টি বসতঘর ও ১৫টি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ভাঙচুর ও লুটপাট করেছে বলে অভিযোগ রয়েছে। এ ঘটনায় এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

সালথা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. দেলোয়ার হোসের খান জানান, সালথা উপজেলার মাঝারদিয়া ইউনিয়নের মাঝারদিয়া গ্রামে উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি, ইউপি চেয়ারম্যান হাবিবুর রহমান হামিদ মাতুব্বর ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সেলিম মোল্যার গ্রুপের মধ্যে দীর্ঘদিন যাবত বিরোধ চলে আসছে।

শুক্রবার রাতে দুই পক্ষের মধ্যে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে উভয় পক্ষই দেশীয় অস্ত্রে সজ্জিত হয়ে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। এ সংবাদ পেয়ে পুলিশ উপস্থিত হয়ে টিয়ার শেল নিক্ষেপ করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন।

পরদিন শনিবার সকাল থেকে উভয় গ্রুপের মধ্যে আবার শুরু সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। প্রায় দুই ঘণ্টাব্যাপী চলা ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ায় উভয় গ্রুপের বেশকিছু ব্যক্তি আহত হয়। থানা পুলিশ উপস্থিত হয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন। আহতদের নগরকান্দা উপজেলা হাসপাতাল ও ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এ সময় সংঘর্ষকারীরা একে অপরের প্রায় ৩০টি বসতবাড়ি ভাঙচুর ও লুটপাট চালায়। এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

অপরদিকে শুক্রবার রাতে উপজেলার রামকান্তপুর ইউনিয়নের রামকান্তপুর গ্রামে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে আওয়ামী লীগের দুই পক্ষের সংঘর্ষ হয়।

উপজেলা কৃষকলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক কামাল হোসেন ও রামকান্তপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক কাদের মাতুব্বরের সমর্থকদের মধ্যে এ সংঘর্ষে উভয় পক্ষের প্রায় ২৫ ব্যক্তি আহত হয়েছেন বলে জানা গেছে। আহতদের নগরকান্দা উপজেলা হাসপাতাল ও ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালসহ বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এ সময় সংঘর্ষকারীরা রামকান্তপুর বাজারের উভয় গ্রুপের প্রায় ১৫টি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ভাঙচুর ও লুটপাট চালায়।

কাদের মোল্যা বলেন, কামাল হোসেনের নামে আমি একটি মামলা করি। সেই আক্রোশে শুক্রবার সন্ধ্যার পর কামাল ও তার বাহিনী নিয়ে আমার উপর অতর্কিত হামলা চালায়।

কামাল হোসেন অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, সন্ধ্যার পর রামকান্তপুর বাজারে চা খাচ্ছিলাম। কাদের মোল্যা ও তার সমর্থকদের পূর্ব পরিকল্পনায় দেশীয় অস্ত্র নিয়ে আমার উপর হামলা চালায়। আমার লোকজন প্রতিহত করতে গেলে সংঘর্ষ বাঁধে।

থানা অফিসার ইনচার্জ দেলোয়ার হোসেন খান বলেন, বর্তমানে এলাকার পরিবেশ শান্ত রয়েছে। এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

(ঢাকাটাইমস/২০জানুয়ারি/প্রতিনিধি/এলএ)

সংবাদটি শেয়ার করুন

বাংলাদেশ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
Close