আনন্দ-উৎসবে লোহাগড়া আদর্শ মহাবিদ্যালয়ের সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন

ফরহাদ খান, নড়াইল
 | প্রকাশিত : ২২ জানুয়ারি ২০১৮, ১১:২৫

আহা কী আনন্দ! চারিদিকে শুধু আনন্দ আর আনন্দ। সবাই মেতেছেন আনন্দে। এমন উচ্ছ্বাস আর আনন্দে মতোয়ারা নড়াইলের লোহাগড়া সরকারি আদর্শ মহাবিদ্যালয়ের শিক্ষক, শিক্ষার্থীরাসহ সরকারি-বেসরকারি কর্মকর্তা, রাজনীতিবিদ ও জনপ্রতিনিধিরা। মহাবিদ্যালয়টির ৫০ বছরপূর্তি উপলক্ষে এই আনন্দ উৎসব। দু’দিনব্যাপী এই সুবর্ণজয়ন্তী উৎসব গত রাতে শেষ হয়েছে। ‘আলোকিত মানুষ চাই’ প্রতিপাদ্যে দুই দিনব্যাপী সুবর্ণজয়ন্তী উৎসবে নানা বয়সী মানুষের মিলনমেলায় প্রাণবন্ত ও বর্ণিল হয়ে উঠে কলেজ ক্যাম্পাস। নেচে-গেয়ে আনন্দ-উৎসবে মেতে উঠেন কলেজের শিক্ষক, শিক্ষার্থীসহ বিভিন্ন পেশাজীবীরা। সুবর্ণজয়ন্তীতে কলেজ চত্বরে স্বাস্থ্যসেবা, রক্তদান, আলোচনা সভা, সম্মাননা প্রদান, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানসহ বিভিন্ন অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

৫০ বছরপূর্তি উৎসবে এসে ভিন্ন ভিন্ন অনুভূতি ব্যক্ত করেন কলেজের প্রাক্তন ও বর্তমান শিক্ষার্থীরা। কলেজের এইচএসসি পরীক্ষার্থী শারমিন বলেন, ৫০ বছরপূর্তি অনুষ্ঠানে নতুন-পুরাতন শিক্ষার্থীরা মিলে অনেক মজা করেছি। আহা কী আনন্দ! চারিদিকে শুধু আনন্দ আর আনন্দ। সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন প্রচার কমিটির আহবায়ক সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ড. ফরিদুজ্জামান ফরহাদ জানান, সুবর্ণজয়ন্তী উৎসব আমাদের জন্য আনন্দ ও গর্বের বিষয়। এ কলেজের শিক্ষার্থীরা ইতোপূর্বে জাতীয় পর্যায়ে অনেক অবদান রেখেছে। বর্তমানে অনেকে সরকারি-বেসরকারি পর্যায়ে গুরুত্বপূর্ণ পদে চাকরি করছে। আশা করছি, এ কলেজের ছাত্র-ছাত্রীরা ভবিষ্যতেও দেশের কল্যাণে কাজ করবে। ‘আলোকিত মানুষ’ হবে।

প্রচার কমিটির সদস্য সচিব অ্যাডভোকেট জাহিদুল ইসলাম কাদির জানান, শিক্ষার মান উন্নয়নে এবং লোহাগড়া কলেজের ঐহিত্য ধরে রাখতে শিক্ষক, শিক্ষার্থী, অভিভাবকসহ সবাইকে আন্তরিকভাবে কাজ করতে হবে।

কলেজের সাবেক শিক্ষার্থী মুন্সিগঞ্জের শ্রীনগর থানার ওসি এসএম আলমগীর হোসাইন উৎসব সম্পর্কে বলেন, এই অনুষ্ঠানে আসতে পেরে আমি খুব আনন্দিত। সুবর্ণজয়ন্তী উৎসবে এসে নতুন-পুরাতন বন্ধুদের সঙ্গে দেখা হয়েছে। মতবিনিময় করেছি। কলেজটি অতীতের মতো শিক্ষা বিস্তারে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে বলে আশাবাদী।

ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের নির্বাহী প্রকৌশলী শরীফ হোসাইন বলেন, ১৯৮৩ থেকে ১৯৮৫ পর্যন্ত এখানে লেখাপড়া করেছি। এখানে এসে আমার শ্রদ্ধাভাজন শিক্ষক, বন্ধুসহ অনেকের সঙ্গে দেখা হয়েছে। অনেক আনন্দ পেয়েছি।

বাংলাদেশ ব্যাংকের ডিজিএম (এসএমই শাখা) এসএম মহসিন হোসেন বলেন, মিলন মেলাকে ঘিরে নস্টালজিয়ায় নিয়ে গেছে সবাইকে। কলেজ চত্বরের সেই গাছের ছায়া, পুকুরপাড়, সিঁড়িসহ বিভিন্ন স্থানে বসে ৫০ বছরের স্মৃতিচারণ করছেন বন্ধু-বান্ধবীরা। ইতোপূর্বে ক্যাম্পাসের যেসব স্থানে বসে সবাই গল্প করত, আড্ডা দিত সেসব স্মৃতি খুঁজে ফেরেন সবাই। উৎসবমুখর পরিবেশে আমাদের মিলন মেলা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

লোহাগড়া সরকারি আদর্শ মহাবিদ্যালয়ের অধ্যক্ষ এসএম এনামুল কবির বলেন, আমি কলেজটির প্রাক্তন ছাত্র। বর্তমানে অধ্যক্ষ হিসাবে কর্মরত। সুবর্ণজয়ন্তী উৎসবে অনেক আনন্দিত আমি। সবার অংশগ্রহণে মিলন মেলায় পরিণত হয়েছে।

সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন কমিটির আহবায়ক আমেরিকার প্রবাসী মুক্তিযোদ্ধা মুন্সী আফতাব উদ্দিন বলেন, আমরা দলমত নির্বিশেষে এ কলেজের সকল ছাত্র-ছাত্রীর অংশগ্রহণে সুবর্ণজয়ন্তী উৎসব বর্ণাঢ্য অনুষ্ঠানে রূপান্তর করেছি।

যুগ্ম-আহবায়ক অ্যাডভোকেট আব্দুস ছালাম খান বলেন, অনুষ্ঠানে প্রায় পাঁচ হাজার শিক্ষার্থীর মিলন মেলা হয়েছে। এই মিলন মেলাকে ঘিরে অন্যান্য পেশার মানুষও একই ছাদের নিচে এসে আনন্দ উপভোগ করেন।

সমাপনী অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি মেজর জেনারেল এস এম শফিউদ্দিন আহমেদ এনডিইউ, পিএসসি বলেন, এই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটি গৌরবের সঙ্গে ৫০ বছর অতিক্রম করেছে। এ ধারাবাহিকতা ধরে রাখার জন্য ছাত্র-ছাত্রী, শিক্ষক ও অভিভাবকদের নিষ্ঠার সঙ্গে কাজ করে যেতে হবে। আধুনিক প্রযুক্তি নির্ভর শিক্ষা ব্যবস্থা চালুর অংশ হিসাবে এই কলেজটি ভূমিকা রাখছে।

সমাপনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন জেলা প্রশাসক এমদাদুল হক চৌধুরী।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী নারায়ণ চন্দ্র চন্দ এমপি বলেন, বর্তমান সরকারের আমলে কলেজটি জাতীয়করণ করা হয়েছে। কলেজটিতে নতুন ভবন হচ্ছে, প্রয়োজন হলে আমরা আরো উদ্যোগ গ্রহণ করব। প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করে কলেজের আরো উন্নয়ন করা হবে। এছাড়া উন্নয়নের অংশ হিসেবে এখানে (নড়াইল) কালনা সেতু হচ্ছে। ফোরলেনের রাস্তা হবে। এসব কাজ দ্রুত বাস্তবায়নে আমি সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলব।

দুই দিনব্যাপী এই উৎসবে উপস্থিত ছিলেন প্রধানমন্ত্রীর সহকারী একান্ত সচিব সাইফুজ্জামান শিখর, ডিএমপির যুগ্ম কমিশনার আলিমুজ্জমান, কলেজ অধ্যক্ষ এস এম এনামুল হক, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) মাহবুবুর রহমান, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার জাহিদুল ইসলাম পিপিএম, সহকারী পুলিশ সুপার মেহেদী হাসান, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সুবাস চন্দ্র বোস, সাধারণ সম্পাদক নিজাম উদ্দীন খান নিলু, লোহাগড়া উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার ফকির মফিজুল হক, কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ শ ম আনোরুজ্জামান, শিক্ষাবিদ অধ্যাপক আব্দুল মান্নান, মুক্তিযোদ্ধা মুন্সী নজরুল ইসলাম, ওয়াহিদুজ্জমান বাচ্চু, লোহাগড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মনিরা পারভীন, লোহাগড়া থানার ওসি শফিকুল ইসলাম, ওসি (তদন্ত) মনিরুল ইসলাম, ড. ফরিদুজ্জামান ফরহাদ, লোহাগড়া উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান বিএম কামাল হোসেন, সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন কমিটির আহবায়ক মুন্সী আফতাব উদ্দিন, যুগ্ম-আহবায়ক আব্দুস ছালাম খান, সদস্য সচিব সৈয়দ মসিয়ুর রহমান, জেলা আ.লীগের সহ-সভাপতি অ্যাডভোকেট সৈয়দ আইয়ুব আলী, শিকদার আজাদুর রহমান, সাংগঠনিক সম্পাদক মঞ্জুরুল করিম মুন, লোহাগড়া উপজেলা আ.লীগের সভাপতি সিকদার আব্দুল হান্নান রুনু, আ.লীগ নেতা জাকির হোসেন, সাংবাদিক আকরামুজ্জামান মিলু, জেলা পরিষদ সদস্য সাজ্জাদ হোসেন মুন্না, লোহাগড়া ইউপি চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম প্রমুখ।

সমাপনী অনুষ্ঠানে রাত ১২টা অবধি গান পরিবেশন করেন স্বনাম্যধন্য কণ্ঠশিল্পী ফরিদা পারভীন, নোলক, বিউটি, পারভেজ, স্মরণ, আল মামুন, ঐশীসহ স্থানীয় শিল্পীরা।

(ঢাকাটাইমস/২২জানুয়ারি/প্রতিনিধি/এলএ)

সংবাদটি শেয়ার করুন

বাংলাদেশ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত