পিওর বিরুদ্ধে কী অভিযোগ, জানেন না শিক্ষামন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
| আপডেট : ২২ জানুয়ারি ২০১৮, ২০:২৩ | প্রকাশিত : ২২ জানুয়ারি ২০১৮, ১৫:৪৯

ব্যক্তিগত কর্মকর্তা মোতালেব হোসেনের বিরুদ্ধে কী অভিযোগ আছে সেটি জানেন না শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ। তার সঙ্গে গ্রেপ্তার মন্ত্রণালয়ের উচ্চমান সহকারী নাসিরউদ্দিনের গ্রেপ্তারেরও কারণ জানেন না মন্ত্রী।

রবিবার গ্রেপ্তার দেখানো এই দুই জনের বিষয়ে সোমবার সচিবালয়ে সাংবাদিকরা কথা বলেন মন্ত্রীর সঙ্গে। তিনি বলেন, ‘দুজনকে পুলিশ গ্রেপ্তার করেছে। নিশ্চয়ই তাদের বিরুদ্ধে কোনো সুনির্দিষ্ট অভিযোগ আছে। যদিও আমি তা এখনো জানি না। তবে আদালতে তাদের হস্তান্তর করলে অভিযোগ সম্পর্কে জানা যাবে।’

গ্রেপ্তার হওয়া দুই জনের বিরুদ্ধে পুলিশের ব্যবস্থার পাশাপাশি মন্ত্রণালয়ও বিভাগীয় ব্যবস্থা নিতে যাচ্ছে বলে জানিয়েছেন মন্ত্রী।

এই দুই জনের সঙ্গে রবিবার গ্রেপ্তার দেখানো হয় জঙ্গি সংশ্লিষ্টতার অভিযোগ ‍উঠা লেকহেড গ্রামার স্কুলের মালিক খালেদ হাসান মতিনকেও। এই তিন জনই ‘নিখোঁজ’ ছিলেন।

এদের মধ্যে নাসিরউদ্দিন নিখোঁজ হন গত বৃহস্পতিবার। উচ্চমান সহকারী হয়েও খিলক্ষেতের কনকর্ড লেকসিটির ফ্ল্যাটে থাকেন তিনি। আর মোতালেব শনিবার রাজধানীর বছিলায় নিজের নির্মাণাধীন ছয়তলা বাড়ির তদারকি করতে গিয়ে নিখোঁজ হন। আর খালিদ হাসানকে শনিবার বিকালে সাদা পোশাকে একদল লোক তার ‍গুলশানের বাসা থেকে তুলে নেয় বলে অভিযোগ আছে।

এই তিন জনের মধ্যে খালেদ হাসান মতিনের নাম এর আগেও গণমাধ্যমে আগে জঙ্গি তৎপরতায় পৃষ্ঠপোশকতার অভিযোগে। জঙ্গি কার্যক্রমে পৃষ্ঠপোষকতা ও ধর্মীয় উগ্রবাদে উৎসাহ দেওয়ার অভিযোগে গত নভেম্বরে লেকহেড স্কুল বন্ধ করে দিয়েছিল শিক্ষা মন্ত্রণালয়। পরে ঢাকার বিভাগীয় কমিশনারকে সভাপতি করে এবং সেনাবাহিনীর কর্মকর্তাদের নিয়ে পরিচালনা পর্ষদ করে স্কুলটি চালুর নির্দেশ দেয় সর্বোচ্চ আদালত।

আবার শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের গ্রেপ্তার দুই কর্মীর সম্পত্তি ও জীবনযাপন নিয়ে মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তাদের মধ্যে নানা আলোচনা রয়েছে। স্বল্প বেতনে চাকরি করলেও এই দুই জন বিলাসী জীবন যাপন করতেন।

এই তিন জনকে গ্রেপ্তারের কারণ না জানালেও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল জানিয়েছেন তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ সুনির্দিষ্ট। তিনি বলেন, ‘গোয়েন্দারা যখন কাউকে গ্রেপ্তার করে, তখন সুনির্দিষ্ট অভিযোগের ভিত্তিতে গ্রেপ্তার করে। তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ আছে বলেই গ্রেপ্তার করা হয়েছে।’

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘আমরা দুর্নীতি এবং অনিয়মের বিষয়ে সবসময়ই সতর্ক। সবসময়ই আমাদের অবস্থান এর বিরুদ্ধে রয়েছে। তবে কেউ দুর্নীতি করলে তাকে ছাড় দেয়া হবে না। এ বিষয়ে আমরা জিরো টলারেন্সে আছি।’

‘যে কোনো অপরাধের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে। দুর্নীতি কোনোভাবেই বরদাশত করা হবে না। আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

(ঢাকাটাইমস/২২জানুয়ারি/এমএম/ডব্লিউবি)

সংবাদটি শেয়ার করুন

শিক্ষা বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত