নিখোঁজের ১২ ঘণ্টা পর শীতলক্ষ্যায় ঢাবি ছাত্রের লাশ

আতাউর রহমান সানী, রূপগঞ্জ (নারায়ণগঞ্জ)
| আপডেট : ২২ জানুয়ারি ২০১৮, ১৯:১৪ | প্রকাশিত : ২২ জানুয়ারি ২০১৮, ১৬:৪৩

নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে নিখোঁজের ১২ ঘণ্টা পর শীতলক্ষ্যা নদী থেকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী পারভেজ আহাম্মেদ জয়ের মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। রবিবার সন্ধ্যা থেকে পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে গিয়েছিল জয়ের।

সোমবার দুপুরে উপজেলার কায়েতপাড়া ইউনিয়নের বড়ালু এলাকা থেকে মরদেহটি উদ্ধার করা হয়।

রূপগঞ্জ থানার উপ-পরিদর্শক নুরুজ্জামান জানান, রবিবার সন্ধ্যায় বাড়ি থেকে বের হয়ে আর ফেরেননি জয়। পরদিন দুপুরে স্থানীয়রা নদীতে তার লাশ ভাসতে দেখে পুলিশে খবর দেয়। পরে পুলিশ লাশটি উদ্ধার করে নারায়ণগঞ্জ সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠায়।

পারভেজ আহাম্মেদ জয় রূপগঞ্জের বড়ালু এলাকার জয়নাল আবেদীনের ছেলে। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাষ্ট্র বিজ্ঞান বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী ছিলেন। তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের সলিমুল্লাহ মুসলিম হলে অ্যাটাচ থাকলেও হলে থাকতেন না। নারায়ণগঞ্জ থেকে এসেই ক্লাস করতেন।

স্থানীয়রা জানান, লেখাপড়ার পাশাপাশি জয় মেঘনা শ্রমজীবী সমবায় সমিতি নামে মাল্টিপারপাস কোম্পানিতে চাকরি করতেন। তিনি বিভিন্ন ধরনের সমাজসেবামূলক কাজের সঙ্গেও জড়িত ছিলেন। তার সাথে এলাকার কারও ঝগড়া বিবাদের কথাও শোনা যায় না।

জয়কে হত্যা করা হয়েছে কি না, এই বিষয়টিতে এখনও সিদ্ধান্তে আসতে চাইছে না পুলিশ। ময়নাতদন্ত প্রতিবেদনের পর ব্যবস্থা নেয়ার কথা জানিয়েছেন রূপগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ইসমাইল হোসেন। তবে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য জয় যে প্রতিষ্ঠানে চাকরি করতেন সেই মেঘনা শ্রমজীবী সমবায় সমিতির ব্যবস্থাপন জাহাঙ্গীর ও দুই কর্মচারী সোহাগ এবং শারমীনকে আটক করা হয়েছে বলেও জানান তিনি।

তবে জয়ের বাবা জয়নাল আবেদীনের অভিযোগ, তার ছেলেকে হত্যা করা হয়েছে। তবে তিনি কারও বিরুদ্ধে অভিযোগ করেননি।

ছেলেকে ‘অন্ধের জষ্ঠি (একমাত্র অবলম্বন) আখ্যা দিয়ে জয়নাল বলেন, ‘আশা আছিল পোলা লেখাপড়া কইরা সংসারের হাল ধরব, কিন্তু তা আর হইল না।’

আমাদের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি এন এইচ সাজ্জাদ জানান, জয়ের মৃত্যুর খবরে তার রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের ছাত্র-শিক্ষকদের মধ্যে আর সলিমুল্লাম মুসলিম হলের শিক্ষার্থীদের মধ্যে শোকের ছায়া নেমে এসেছে। 

জয়ের বন্ধু সলিমুল্লাহ মুসলিম হলের আবাসিক শিক্ষার্থী শাহাদাত বলেন, ‘পারভেজ আমার খুব ভাল বন্ধু ছিল কিন্তু হলে না থাকায় তার সাথে সবসময় দেখা হতো না। তবে পরীক্ষার সময় সে মাঝে মাঝে হলে আসত, আমাদের সাথে পড়ালেখার বিষয়ে কথা বলত।  

জয়ের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী ইফতেখার হোসাইন চোধুরী বলেন, ‘ছেলেটি মাঝে মাঝে হলে আসত, আমাদের সাথে কথাবার্তা বলত । তার সাথে সবশেষ দেখা হয়েছিল গত ডিসেম্বর মাসে যখন দ্বিতীয় সেমিস্টারের ফাইনাল চলছিল । ছেলেটি খুব ভালো ছিল, তাকে আমরা অনেক মিস করব।’

জয়ের মৃত্যুর পাশাপাশি আরও একটি দুর্ঘটনার খবরে বিশ্ববিদ্যালয়ে শোক ছড়িয়েছে। সকালে গণিত বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী শফিকুল ইসলাম শফি তার গ্রামের বাড়ি সিরাজগঞ্জ থেকে ঢাকায় আসার পথে ট্রেনে কাটা পড়ে দুই পা হারিয়েছেন। তার বিভাগ ছাড়াও সব শিক্ষার্থীর মধ্যে বিষয়টি নিয়ে আলোচনা দেখা গেছে দিনভর।

(ঢাকাটাইমস/২২জানুয়ারি/প্রতিনিধি/এলএ)

সংবাদটি শেয়ার করুন

বাংলাদেশ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত