তথ্য না পেয়ে কমিশনে সাংবাদিকের অভিযোগ

সুন্দরগঞ্জ (গাইবান্ধা) প্রতিনিধি, ঢাকাটাইমস
| আপডেট : ২৩ জানুয়ারি ২০১৮, ২৩:৩৯ | প্রকাশিত : ২৩ জানুয়ারি ২০১৮, ২৩:৩১

গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জে কলেজে নিয়োগ, এমপিও, মঞ্জুরির বিষয়ে আবেদন করেও তথ্য পাননি এক সংবাদ কর্মী। আর এ কারণে তিনি অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে অভিযোগ দেন তথ্য কমিশনে। শুনানিতে ডাকা হয় উভয় পক্ষকেই। পরে অপরাধ স্বীকার করে জরিমানা থেকে রেহাই পেয়েছেন ওই অধ্যক্ষ।

তথ্য চেয়ে না পাওয়ার ঘটনাটি ঘটেছে গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ উপজেলার শোভাগঞ্জ ডিগ্রি কলেজে। আর এ কারণে তথ্য কমিশনের শুনানি হয়েছে ঢাকায়। 
শুনানি শেষে কলেজের অধ্যক্ষ দেলওয়ার হোসেন নূরীকে ১৫ দিনের মধ্যে সাংবাদিকের চাহিদামত তথ্য দেয়ার নির্দেশ দেন প্রধান তথ্য কমিশনার মরতুজা আহমদ।

সুন্দরগঞ্জ রিপোর্টার্স ক্লাবেরর সভাপতি আবু বক্কর সিদ্দিক গত ২০ আগস্ট তারিখে ওই কলেজের অধ্যক্ষের কাছে তথ্য অধিকার আইন অনুযায়ী বেশ কিছু তথ্য চান। এর মধ্যে ছিল ১৯৯৫ সালে কলেজটি প্রতিষ্ঠার পর থেকে কয়জনকে এবং কখন এমপিও সুবিধা দেয়া হয়েছে, ২০১২ থেকে ১৭ সাল পর্যন্ত কোনো নিয়োগ হয়েছে কি না, হলে নিয়োগ বোর্ডের প্রধান কে ছিলেন, তার সঙ্গে কীভাবে যোগাযোগ করা যায় প্রভৃতি।

তথ্য অধিকার আইন অনুযায়ী এসব তথ্য পাওয়ার অধিকার রাখেন প্রশ্ন কর্তা। কিন্তু কলেজের অধ্যক্ষ দেলওয়ার হোসেন নূরী এই আইনকে অবজ্ঞা করে কোনো জবাব দেয়ার প্রয়োজনীতা বোধ করেননি।

এরপর সাংবাদিক আবু বকর সিদ্দিকী তথ্য কমিশনে আপিল করেন। আর আজ মঙ্গলবার দুই পক্ষকেই শুনানিতে ডাকা হয়।

বেলা আড়াইটায় ঢাকার আগারগাঁওয়ে তথ্য কমিশন দায়ের করা অভিযোগের শুনানি হয়। এ সময় অধ্যক্ষ দেলওয়ার হোসেন নূরী তার ভুল স্বীকার করার পাশাপাশি ভবিষ্যতে এমনটি আর হবে না বলে অঙ্গীকার করেন। পাশাপাশি অভিযোগকারী সাংবাদিককে তাঁর চাহিদা মত তথ্য দেয়ার আশ্বাস দেন। 
এরপর প্রধান তথ্য কমিশনার ১৫ দিনের সময় বেঁধে দিয়ে অভিযোগের নিষ্পত্তি করেন।

ঢাকাটাইমস/২৩জানুয়ারি/প্রতিনিধি/ডব্লিউবি

সংবাদটি শেয়ার করুন

বাংলাদেশ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত